ঢাকা, রবিবার, ১৭ অক্টোবর, ২০২১

মালয়েশিয়ার জলসীমায় ‘অনুপ্রবেশ’ : চীনা রাষ্ট্রদূতকে তলব

দক্ষিণ চীন সাগরে মালয়েশিয়ার জলসীমায় এশিয়ার পরাশক্তি চীনের জাহাজের অনুপ্রবেশের অভিযোগ তুলেছে কুয়ালালামপুর। এ কারণে দেশটিতে নিযুক্ত চীনা রাষ্ট্রদূতকে তলব করেছে মালয় সরকার। বোর্নিও দ্বীপের এক্সক্লুসিভ ইকোনমিক জোনে (ইইজেড) চীনের ‘উপস্থিতি ও কার্যক্রম’র প্রতিবাদ জানাতে রাষ্ট্রদূতকে তলব করেছে মালয়েশিয়ার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। খবর আল-জাজিরার।


মালয়েশিয়ার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় বিবৃতির মাধ্যমে জানায়, একটি সার্ভে বোটসহ চীনের জাহাজ মালয়েশিয়ান রাজ্য সাবাহ ও সারাওয়াক উপকূলে অনুপ্রবেশ করে, যা ১৯৮২ সালের জাতিসংঘের কনভেনশনের লঙ্ঘন। কিন্তু ঘটনাটি আসলে কখন ঘটে বা কয়টি চীনা জাহাজের অনুপ্রবেশ ঘটেছে তা স্পষ্ট করে বলা হয়নি।


বিবৃতিতে দাবি করা হয়, দেশের আত্মমর্যাদা ও আত্মরক্ষার্থে মালয়েশিয়া আন্তর্জাতিক আইন মেনে ব্যবস্থা নেবে। এর আগে অন্য বিদেশি জাহাজ অনুপ্রবেশের ঘটনায়ও প্রতিবাদ জানায় দেশটি।


বিশ্লেষকদের মতে, দক্ষিণ চীন সাগরে বেইজিংয়ের আধিপত্য বিস্তার ইস্যুতে দীর্ঘদিন যাবত অভিযোগ করে আসছে মালয়েশিয়া, ভিয়েতনাম, ফিলিপাইন এবং ব্রুনাই। অবশ্য চীন তাদের কথিত ‘নাইন ড্যাশ লাইন’ অনুযায়ী, মূল ভূখণ্ড থেকে প্রায় দুই হাজার কিলোমিটার সামুদ্রিক অঞ্চল নিজেদের বলে দাবি করে থাকে।


আরও পড়ুন : শপথগ্রহণে প্রস্তুত মমতা


বিতর্কিত এই দাবির ধারাবাহিকতায় সম্প্রতি বেইজিং দক্ষিণ চীন সাগরের বিতর্কিত অঞ্চলে নিজেদের আগ্রাসন আরও বৃদ্ধি করেছে। ফলে গড়ছে কৃত্রিম দ্বীপও। এছাড়া তারা বানাচ্ছে সামরিক ফাঁড়ি।


দ্য এশিয়া মেরিটাইম ট্রান্সপারেন্সি ইনিশিয়েটিভ (এএমটিআই) জানিয়েছে, চীন সেখানে ২৭টি ফাঁড়ি বানিয়েছে। এটি স্কারবোরো শোলও নিয়ন্ত্রণ করে, যা ২০১২ সালে ফিলিপাইন থেকে নিজেদের দখলে নেয় চীনের সেনাবাহিনী।


উল্লেখ্য, দক্ষিণ চীন সাগর হলো প্রশান্ত মহাসাগরের একটি অংশ। এটিকে ঘিরে চীন, তাইওয়ান, ফিলিপাইন, ব্রুনাই, মালয়েশিয়া, ইন্দোনেশিয়া, সিঙ্গাপুর ও ভিয়েতনামের অবস্থান। দক্ষিণ চীন সাগরের ৩৫ লাখ বর্গ কিলোমিটারের মধ্যে বিশ্বের এক-তৃতীয়াংশ পণ্যবাহী জাহাজ চলাচল করে।

ads
ads

করোনা পরিস্থিতি বাংলাদেশ

২৪ ঘণ্টায় মোট
পরীক্ষা ৩১৭১৪ ৮০৭৫৪০৭
আক্রান্ত ৬৯৫৯ ১৫,৫০,৩৭১
সুস্থ ৯২৬৮ ১৫,১০,১৬৭
মৃত ১৭৪ ২৭,৩৯৩

Our Facebook Page