ঢাকা, রবিবার, ৫ ডিসেম্বর, ২০২১

ইন্দোনেশিয়ার বালি দ্বীপে ভূমিকম্পে নিহত ৩, আহত ৭

ইন্দোনেশিয়ার বালি দ্বীপে ভূমিকম্পে কমপক্ষে তিনজন নিহত এবং আরও সাতজন আহত হয়েছে। মার্কিন ভূতাত্ত্বিক জরিপ জানিয়েছে, স্থানীয় সময় শনিবার ইন্দোনেশিয়ায় আঘাত হানা ভূমিকম্পের মাত্রা ছিল ৪ দশমিক ৩। ভূমিকম্পের পর বেশ কয়েকটি পরাঘাত (আফটার শক) অনুভূত হয়েছে। খবর আল জাজিরার।


শনিবার ভোরের কিছু সময় আগে ভূমিকম্পটি আঘাত হানে। এ সময় আতঙ্কিত লোকজন ঘর থেকে রাস্তায় নেমে আসে। মাত্র দু’দিন আগেই পর্যটকদের জন্য উন্মুক্ত হয়েছে বালি দ্বীপ। এর মধ্যেই জনপ্রিয় ওই দ্বীপে ভূমিকম্প আঘাত হানলো।


মার্কিন ভূতাত্ত্বিক জরিপ জানিয়েছে, ভূমিকম্পটির কেন্দ্র ছিল বালির বন্দর শহর সিংগারাজা থেকে ৬২ কিলোমিটার (৩৮.৫ মাইল) উত্তরপূর্বাঞ্চলে।


ভূমিকম্পটির গভীরতা ছিল ১০ কিলোমিটার (৬.২) মাইল। ভূমিকম্পের কারণে কি পরিমাণ ক্ষয়ক্ষতি হয়ে তা এখনও নিশ্চিত নয়। বালি দ্বীপের তল্লাশি ও উদ্ধার এজেন্সির প্রধান গেড ডারমাডা বলেন, তারা এখনও ক্ষয়ক্ষতি এবং হতাহতের তথ্য সংগ্রহের চেষ্টা করে যাচ্ছেন। তিনি জানিয়েছেন, দুর্ঘটনায় অনেকের হাড় ভেঙে গেছে, আবার কারও মাথায় আঘাত লেগেছে।


ভূমিকম্পের কারণে একটি পাহাড়ি জেলায় ভূমিধসে দু’জনের মৃত্যু হয়েছে। কমপক্ষে তিনটি গ্রামে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে গেছে।


ভূমিকম্পের উপকেন্দ্রের কাছে কারাংগাসেমে বেশ কিছু বাড়ি এবং মন্দির ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। ওই এলাকায় ধ্বংসাবশেষের নিচে চাপা পড়ে তিন বছর বয়সী এক শিশু প্রাণ হারিয়েছে।


কারাংগাসেমের বুঙ্গা গ্রামের প্রধান কেরতাওয়া বলেন, সেখানকার প্রায় ৬০ শতাংশ বাড়ি-ঘর ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। বালি দ্বীপে ৪০ লাখের বেশি মানুষের বসবাস।


এক বছরের বেশি সময় বন্ধ থাকার পর গত বৃহস্পতিবার আন্তর্জাতিক ভ্রমণকারীদের জন্য দুয়ার খুলে দিয়েছে বালি। করোনা মহামারির কারণে দীর্ঘদিন ধরেই সেখানে আন্তর্জাতিক ফ্লাইট বন্ধ ছিল।


এর আগে গত জানুয়ারিতে ৬ দশমিক ২ মাত্রার শক্তিশালী ভূমিকম্পে কমপক্ষে ১০৫ জন নিহত এবং আরও সাড়ে ৬ হাজার মানুষ আহত হয়। পশ্চিম সুলাওয়েশি প্রদেশের মামুজু এবং মাজেনা জেলায় ভূমিকম্প আঘাত হানায় ৯২ হাজারের বেশি মানুষ বাস্তুচ্যুত হয়ে পড়ে।

ads
ads

করোনা পরিস্থিতি বাংলাদেশ

২৪ ঘণ্টায় মোট
পরীক্ষা ১৩০৭২ ৮০৭৫৪০৭
আক্রান্ত ২২৭ ১,৫৭৬,০১১
সুস্থ ২৮০ ১,৫৪০,৫৯৭
মৃত ০২ ২৭,৯৮০

Our Facebook Page