ঢাকা, শনিবার, ২৯ জানুয়ারী, ২০২২

হযরত সালেহ (আঃ) এর জীবনীর একাংশ

হযরত হুদ (আঃ) এর প্রায় ১০০ বছর পর মহান আল্লাহ পাক হযরত সালেহ (আঃ)কে নবী হিসেবে 'সামুদ' জাতির হেদায়েতের জন্য প্রেরণ করেন।  'সামুদ' জাতি যেন মনগড়া পথে চলে অর্থাৎ 'আদ' জাতির মতো ধ্বংস না হয়, সেজন্য হযরত সালেহ (আঃ) তাদের সত্য পথে আসার আহ্বান জানান। কিন্তু তারা বিরোধিতা করায় শেষ পর্যন্ত তাদের উপরও আল্লাহর গজব নেমে আসলো।  সামুদ জাতির বিষয়ে মহাগ্রন্থ আল-কুরআনে ইরশাদ হচ্ছে, 


" সামুদ জাতির কাছে তাদের ভাই সালেহ (আঃ)কে প্রেরণ।  তিনি এসে বললেন, হে আমার জাতি তোমরা আল্লাহর দাসত্ব কবুল করো, তিনি ছাড়া তোমাদের আর কোন ইলাহ নেই........(সূরা আরাফ ৭৩-৭৭) 


প্রথম দিকে কিছু সংখ্যক লোক এই দাওয়াতে সাড়া দিয়েছেন। শেষে প্রায় সকলেই তাঁর বিরোধিতা করেছেন। হযরত সালেহ (আঃ)এর দাওয়াতের প্রাথমিক পর্যায় ওরা নবীর নির্দেশিত পথে চলে বেশ প্রতিষ্ঠা লাভ করেছিলো এবং এক বিশাল ভূ-খণ্ডের উপর তাদের কর্তৃত্ব প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল। তাদের একেক ব্যক্তির বয়স ১২শ/১৩শ বছর পর্যন্ত দীর্ঘ ছিল। কর্তৃত্বের অন্ধ মোহে পড়ে শেষ পর্যন্ত তারা ভালো কাজের প্রতি উদাসীন এবং মন্দ কাজের প্রতি আগ্রহী হয়ে ভুল পথে চলতে শুরু করে। তাদের মধ্যকার কোন সম্ভ্রান্ত ব্যক্তি মারা গেলে মৃতের মূর্তি তৈরি করে পূজা করতে শুরু করেন। 


নবী তাদের কৃতকর্মের পরিনতির কথা জানিয়ে সত্য পথে আসার আহ্বান জানান। কিন্তু সে জাতি তাঁর কথা শুনলো না। 


তাদের দাবী অনুসারে নবী মুজিজা হিসেবে ১ টুকরো পাথর থেকে ১ টি উটনী বের হয়ে তাদের সামনেই ১টি বাচ্চা প্রসব করে দিলো। এটা দেখে বহু লোক ঈমান গ্রহণ করেন। কিন্তু ভোর হতে না হতেই আবার তারা মুরতাদ হয়ে যায়,তারা নবীর মুজিজাকে যাদু বলে আরো বেশি অত্যাচার শুরু করেন।অধিকন্তু উটনীর বিষয় তারা আল্লাহর নির্দেশ অমান্য করেন।যেমন কোরআনের ভাষায় তাদের প্রতি নির্দেশ ছিল

"এটি আল্লাহর পাঠানো উটনী, তোমাদের জন্য প্রমান হিসেবে এসেছে। সুতরাং একে আল্লাহর জমীনে স্বাধীনভাবে চলাফেরা করে খেতে দাও। কেউ তাকে খারাপ নিয়তে ধরতে পারবে না, তাহলে তোমাদের কঠোর শাস্তি ভোগ করতে হবে"(সূরা আরাফ - ৭৩)।কিন্তু কিদার ইবনে সালিফ নামক এক ব্যাক্তি উটনীকে হত্যা করে ফেলে। মায়ের করুণ অবস্থা দেখে শাবকটি পাহাড়ে আশ্রয় নেয়।দুষ্ট লোকেরা শাবকটির পেছনে ছুটে। নবী সংবাদ পেয়ে পাহাড়ে যায় এবং খুব মর্মাহত হন। শাবকটি নবীকে দেখে খুব কাঁদলো এবং পরপর ৩টি শব্দ করার পর পাথরটি ফেটে গেলো এবং শাবকটি তার ভেতরে ঢুকে পড়লো। এরপর হযরত সালেহ (আঃ) তাঁর জাতিকে জানিয়ে দিলেন যে, "তোমাদের আর মাত্র ৩ দিন সময় আছে।" এই বলে তিনি মক্কা শরীফে চলে গেলেন। পরে ১ম দিন তাঁর জাতির লোকদের মুখমণ্ডল হলুদ, ২য় দিনে লাল এবং শেষ দিন অর্থাৎ ৩য় দিন কালো হয়ে যায়। ৪র্থ দিন জিবরাইল (আ:) এমন শব্দ করলো যার ফলে তাদের ছোট-বড় সকলে কলিজা ফেটে মৃত্যু হয়।অন্য বর্ণনায় ভূমিকম্পের ফলে সকলে মৃত্যু বরণ করে।


ads
ads

করোনা পরিস্থিতি বাংলাদেশ

২৪ ঘণ্টায় মোট
পরীক্ষা ১৮,৯৩৮ ৮০৭৫৪০৭
আক্রান্ত ১৬,০৩৩ ১,৭১৫,৯৯৭
সুস্থ ১,০৯৫ ১,৫৫৮,৯৫৪
মৃত ১৮ ২৮,২৫৬

Our Facebook Page