ঢাকা, মঙ্গলবার, ১৭ মে, ২০২২

গোপালগঞ্জে জাকিয়া হত্যা মামলার রায় পেছাল

গোপালগঞ্জে জাকিয়া বেগম নামে এক গৃহবধূ খুনের মামলায় স্বামীসহ চার জনের বিরুদ্ধে করা মামলার রায় পিছিয়ে আগামী ১০ ফেব্রুয়ারি ধার্য করেছেন আদালত। ঢাকার দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনাল-২-এর বিচারক মো. জাকির হোসেনের আদালতে বৃহস্পতিবার (২৭ জানুয়ারি) মামলাটির রায় ঘোষণার জন্য দিন ধার্য ছিল। রায় প্রস্তুত না হওয়ায় ১০ ফেব্রুয়ারি রায় ঘোষণার জন্য দিন ধার্য করেন বিচারক।


এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন ঢাকার দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনাল-২-এর পাবলিক প্রসিকিউটর আবু আব্দুল্লাহ ভুঁইয়া।


এর আগে গত ১৩ জানুয়ারি রাষ্ট্র ও আসামিপক্ষের যুক্তি উপস্থাপন শেষে একই আদালতের বিচারক রায় ঘোষণার জন্য আজকের দিন ধার্য করেছিলেন। মামলার আসামিরা হলেন- জাকিয়ার স্বামী মোর্শেদায়ান নিশান, নিশানের ভাই এহসান সুশান, ভগ্নিপতি হাসান শেখ এবং ম্যানেজার আনিছুর রহমান।


মামলার অভিযোগ থেকে জানা যায়, ২০০৬ সালে নিশানের সঙ্গে জাকিয়া বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হন। তাদের একটি সন্তান রয়েছে। বিয়ের পর থেকে নিশান ও তার পরিবারের সদস্যরা এক কোটি টাকা যৌতুকের জন্য জাকিয়ার ওপর চাপ সৃষ্টি করতো। এ কারণে তাকে শারীরিক ও মানসিকভাবে নির্যাতন করা হতো। সন্তানের মুখের দিকে তাকিয়ে সব নির্যাতন সহ্য করতেন জাকিয়া।


২০১৬ সালের ৫ ফেব্রুয়ারি রাতে গোপালগঞ্জের সিলনা রোড বেদগ্রাম ৬৩৯/৫ নম্বর বাড়িতে জাকিয়াকে নির্যাতন করা হয়। সেসময় জাকিয়ার কাছে যৌতুকের এক কোটি টাকা চাওয়া হয়। তিনি অস্বীকৃতি জানালে আসামিরা তাকে জোর করে শোয়ার ঘর থেকে রান্নার ঘরে নিয়ে যায়। এরপর অন্যান্য আসামিদের প্ররোচনায় মোর্শেদায়ান নিশান তাকে কুপিয়ে হত্যা করেন।


এ সংক্রান্ত অভিযোগ পেয়ে পুলিশ জাকিয়ার স্বামী মোর্শেদায়ান নিশান, তার ভাই এহসান সুশান, বোনজামাই মোহাম্মদ হাসান শেখ ও ম্যানেজার আনিসুর রহমানকে আটক করে।


এসময় জাকিয়াকে উদ্ধার করে গোপালগঞ্জ সদর হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। এই ঘটনায় জাকিয়ার বাবা জালাল উদ্দিন মল্লিক বাদী হয়ে গোপালগঞ্জ থানায় একটি হত্যা মামলা করেন।


২০১৬ সালের ৯ জুন মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা আদালতে চার আসামির বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র দাখিল করেন। এরপর ওই বছরের ৭ সেপ্টেম্বর আদালত আসামিদের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করেন। মামলার বিচার চলাকালীন আদালতে ২০ জন সাক্ষী সাক্ষ্য দেন।


২০২১ সালের ৩০ ডিসেম্বর মামলাটি রায়ের জন্য ধার্য ছিল। কিন্তু সেদিন রায় থেকে উত্তোলন করে আবার আসামিদের আত্মপক্ষ শুনানি অনুষ্ঠিত হয়। এরপর, গত ১৩ জানুয়ারি যুক্তিতর্ক উপস্থাপন শেষে আদালত রায়ের জন্য আজকের তারিখ ধার্য করেন।

ads
ads

করোনা পরিস্থিতি বাংলাদেশ

২৪ ঘণ্টায় মোট
পরীক্ষা ৩৪০৬৭ ২৯৩২৭৬
আক্রান্ত ৩৬৮ ১,৯৪৬,৭৩৭
সুস্থ ৪,০১৮ ১,৮৩৯,৯৯৮
মৃত ১৩ ২৯,০৭৭

Our Facebook Page