ঢাকা, মঙ্গলবার, ১৭ মে, ২০২২

বিপিএল : ঘরের মাঠে ৬ উইকেটের হার চট্টগ্রামের

বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগের (বিপিএল) ঢাকা পর্বে তিন ম্যাচের দুটিতে জিতে দারুণভাবে আসর শুরু করেছিল চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্স। সে হিসেবে চট্টগ্রামে ঘরের মাঠে মেহেদি হাসান মিরাজের দলের কাছ থেকে বাড়তি প্রত্যাশা ছিল ভক্তদের। তবে ঘরের মাঠে আশানুরূপ পারফর্ম করতে পারেনি চ্যালেঞ্জার্স। খুলনা টাইগার্সের কাছে ৬ উইকেটে হেরে গেছে তারা।


শুক্রবার (২৮ জানুয়ারি) চট্টগ্রামের জহুর আহমেদ চৌধুরি স্টেডিয়ামে টসে জিতে চট্টগ্রামকে ব্যাটিংয়ে পাঠায় খুলনা। করোনা থেকে সেরে উঠে এদিনই বিপিএলের প্রথম ম্যাচ খেলতে নেমেছিলেন সৌম্য সরকার। তবে নিজের প্রথম ম্যাচে নিজেকে রাঙাতে পারেননি তিনি। ৩ বলে ১ রান করে শরিফুল ইসলামের বলে ক্যাচ দিয়ে সাজঘরে ফেরেন চ্যালেঞ্জার্সের এই ব্যাটার।


দ্বিতীয় উইকেটে ৫০ রানের জুটি গড়েন আন্দ্রে ফ্লেচার ও রনি তালুকদার। ১৮ বলে ১৭ রান করে নাসুম আহমেদের শিকার হন রনি।


এরপর অর্ধশতক হাঁকিয়ে বিদায় নেন ফ্লেচার। ৪৭ বলে ৫৮ রান করেন এই ক্যারিবিয়ান হার্ড-হিটার। তার ইনিংসে ছিল ৬টি চার ও ২টি ছক্কা। পরে খুলনাকে জয়ের বন্দরে নিয়ে যান সেকুগে প্রসন্ন ও মুশফিকুর রহিম। স্কোর লেভেল করে ক্যাচ আউট হন প্রসন্ন। তিনি করেন ১৫ বলে ২৩ রান।


খুলনার পক্ষে জয়সূচক রানটি করেন মুশফিক। ৩০ বলে ৪৪ রানের ঝলমলে ইনিংস খেলে দলের জয় নিয়েই মাঠ ছাড়েন অধিনায়ক। ৬ উইকেটে জয় পেয়েছে খুলনা।


এর আগে ব্যাট করতে নেমে দ্বিতীয় ওভারেই কেনার লুইসকে হারিয়েছিল চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্স। দ্বিতীয় উইকেটে ৫৭ রানের জুটি গড়েছিলেন আফিফ হোসেন ধ্রুব ও উইল জ্যাকস। জ্যাকস ২৩ বলে ২৮ রান করে বিদায় নেওয়ার পর চরমভাবে ব্যর্থ চ্যালেঞ্জার্সের মিডল অর্ডার।


একপ্রান্ত আগলে রাখা আফিফ করেন ৩৭ বলে ৪৪ রান। বিপিএলের চলতি আসরে এটিই তার সর্বোচ্চ রান। তার ইনিংসজুড়ে ছিল ৩টি চার ও ২টি ছক্কা। শেষ দিকে রান বাড়ানোর দায়িত্ব নেন নাঈম ইসলাম ও শরিফুল ইসলাম। নাঈম দুই চার ও এক ছক্কায় করেন ১৯ বলে অপরাজিত ২৫ রান। একটি করে চার ও ছক্কায় ৬ বলে ১২ রানে অপরাজিত ছিলেন শরিফুল।


খুলনার পক্ষে চার ওভারে মাত্র ১৮ রান খরচ করে তিনটি উইকেট নেন পেরেরা। একটি করে উইকেট নিজেদের ঝুলিতে তোলেন কামরুল ইসলাম রাব্বি, নাবিল সামাদ, শেখ মেহেদী হাসান, ফরহাদ রেজা ও সেকুগে প্রসন্ন।

ads
ads

করোনা পরিস্থিতি বাংলাদেশ

২৪ ঘণ্টায় মোট
পরীক্ষা ৩৪০৬৭ ২৯৩২৭৬
আক্রান্ত ৩৬৮ ১,৯৪৬,৭৩৭
সুস্থ ৪,০১৮ ১,৮৩৯,৯৯৮
মৃত ১৩ ২৯,০৭৭

Our Facebook Page