ঢাকা, শনিবার, ২ জুলাই, ২০২২

উদ্বোধনের পরপরই খুলনাসহ দক্ষিণাঞ্চলের দ্বার খুলবে পদ্মা সেতু

জনসাধারণের জন্য স্বপ্নের পদ্মা সেতুকে আগামী ২৫ জুন উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এই তারিখ ঘোষণার পর থেকে উচ্ছ্বাস বইতে শুরু করেছে গোটা দক্ষিণাঞ্চল জুড়ে। এখন শুধু অপেক্ষার পালা সেই শুভক্ষণের।


সংশ্লিষ্টরা বলছেন, পদ্মা সেতু উদ্বোধনের পরপরই খুলনাসহ দক্ষিণাঞ্চলের ২১ জেলার সড়কপথে রাজধানী ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন জেলার সঙ্গে সরাসরি যোগাযোগের সবকটি বাণিজ্যিক পথ উন্মুক্ত হবে। দক্ষিণাঞ্চলের পর্যটন শিল্প ও নতুন শিল্পায়নের সম্ভাবনার দ্বার উন্মোচিত হওয়ার পাশাপাশি বিভাগীয় শহর খুলনা হবে দেশের অন্যতম বাণিজ্যিক নগরী। আর এতে গতি ফিরবে মংলা বন্দরেও।


দক্ষিণাঞ্চলবাসীর ভাগ্যন্নয়নে আওয়ামী লীগ সরকার একের পর এক বৃহৎ প্রকল্প বাস্তবায়ন করায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রতি কৃতজ্ঞতা জানিয়েছেন দক্ষিণাঞ্চলের সুশীল সমাজ ও রাজনৈতিক নেতারা।


খুলনা জেলা প্রশাসক মো. মনিরুজ্জামান তালুকদার বলেন, পদ্মা সেতুতে যান চলাচল শুরু হলে দক্ষিণাঞ্চলের সঙ্গে রাজধানী ঢাকাসহ বিভিন্ন বিভাগের যোগাযোগ ব্যবস্থায় আমূল পরিবর্তন ঘটবে। আর এতে বাড়বে এখানকার পর্যটন কেন্দ্রগুলোতে লোক সমাগম। ফলে দক্ষিণাঞ্চলের মানুষের ভাগ্যের দুয়ার খুলে যাবে। পাশাপাশি ঘুরে দাঁড়াবে এখানকার অর্থনীতিও।


খুলনা চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রিজের সভাপতি কাজী আমিনুল হক জানান, পদ্মা সেতুকে ঘিরে দক্ষিণাঞ্চলবাসীর ভাগ্যন্নয়ন ঘটাতে নতুন শিল্পায়নের যে সম্ভাবনার দ্বার উন্মোচিত হতে যাচ্ছে তার প্রধান বাঁধা হয়ে দাঁড়িয়েছে গ্যাস ও খানজাহান আলী বিমানবন্দর। গ্যাস ও বিমানবন্দর চালু হলে দক্ষিণাঞ্চলে ব্যাপক শিল্পায়ন হবে। গতি ফিরবে অর্থনীতির।


খুলনা মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এমডিএ বাবুল রানা বলেন, পদ্মা সেতুকে ঘিরে গোটা দক্ষিণাঞ্চলে গড়ে উঠছে ছোট-বড় অসংখ্য কল-কারখানা। মংলা বন্দর পর্যন্ত দুইপাশে এখন কোথাও জমি পাওয়া যায় না। পদ্মা সেতুকে কেন্দ্র করে বিভিন্ন শিল্প কারখানার মালিকরা সেখানে জমি কিনে রেখেছেন।


বাবুল রানা আরও বলেন, পদ্মা সেতুতে রেল যোগাযোগের ব্যবস্থা থাকায় দেশের অভ্যন্তরীণ পণ্যপরিবহন, সাধারণ মানুষের যাতায়াতসহ পার্শ্ববর্তী দেশের সঙ্গেও ব্যবসা-বাণিজ্যের এক নতুন সম্ভাবনার দিক উন্মোচিত হবে।


খুলনা চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রিজের সাবেক সহ সভাপতি সুলতান হোসেন খান বলেন, পদ্মা সেতু চালু হলে রাজধানীর সঙ্গে মংলা বন্দর কেন্দ্রিক পণ্য পরিবহণের খরচ কমায় ব্যবসায়ীরা আকৃষ্ট হবেন। তাছাড়া দেশের অন্যতম বৈদেশিক মুদ্রা অর্জনকারী হিমায়িত মৎস্য ও পাটশিল্প থেকে রফতানি আয় বাড়বে। এতে সচল হবে এ অঞ্চলের অর্থনীতির চাকা।


খুলনা বিভাগীয় শ্রম অধিদফতরের উপ পরিচালক মো. মিজানুর রহমান বলেন, পদ্মা সেতু চালু হলে দক্ষিণাঞ্চলে শিল্পায়নের ধুম পড়বে। আরও নতুন নতুন শিল্প কল কারখানা স্থাপিত হলে শ্রমিকদের কর্মসংস্থান হবে। অর্থনীতিতে গতি আসবে।


শ্রম ও কর্মসংস্থান প্রতিমন্ত্রী বেগম মন্নুজান সুফিয়ান বলেন, দক্ষিণাঞ্চলবাসীর ভাগ্যন্নয়নে আওয়ামী লীগ সরকার একের পর এক বৃহৎ প্রকল্প গ্রহণ করায় উন্নয়নের মহাযজ্ঞ চলছে। যার ধারাবাহিকতায় চালু হচ্ছে দক্ষিণাঞ্চলবাসীর দীর্ঘদিনের স্বপ্নের পদ্মা সেতু। পদ্মা সেতু চালু হলে খুলনাসহ দক্ষিণাঞ্চলের অর্থনীতি আবার ঘুরে দাঁড়াবে। ব্যাপক কর্মসংস্থান হবে শ্রমিকদের।

ads
ads

করোনা পরিস্থিতি বাংলাদেশ

২৪ ঘণ্টায় মোট
পরীক্ষা ৩৪০৬৭ ২৯৩২৭৬
আক্রান্ত ৩৬৮ ১,৯৪৬,৭৩৭
সুস্থ ৪,০১৮ ১,৮৩৯,৯৯৮
মৃত ১৩ ২৯,০৭৭

Our Facebook Page