ঢাকা, শুক্রবার, ৩০ সেপ্টেম্বর, ২০২২

দুইটি পাতা একটি কুড়ি ন্যায্য দাবীতে আহাজারি!

আজ চা শ্রমিকেরা হয়ে গেছে কুলি! পথে নেমেছে আজ তাদের ন্যায্য দাবীতে। কিন্তু এই ভুবনে ন্যায্য আর অন্যায্য ব্যবধান কে করবে? কে শুধাবে আজ বিজয়ের গান, কে ধরিবে হাল, কে তুলিবে পাল!


আজ এই রঙিন চায়ের কাপে চুমুক দিয়ে শান্তির নিঃশ্বাস আর প্রশান্তির ঢেকুর তুলছি! ওই যে চায়ের কাপে ভরে নানান নামের নানান স্বাদের রঙিন চা খাচ্ছি না? ওটা শুধু চা নয়, ওটা শ্রমিকদের বুকের রক্ত। চুমুক দিয়ে একের পর এক কাপ রক্ত খাচ্ছি! কতটুকু বা দাম দিচ্ছি? কতটা আছে দেওয়ার সামর্থ্য?


এই যে চায়ের মাধ্যমে এত ব্যবসা হচ্ছে, এত বৈদেশিক মুদ্রা অর্জন হচ্ছে। শহরে শহরে অলিতে গলিতে চায়ের পসরা বসছে, টঙ দোকানে চায়ের কাপে ঝড় উঠছে, এগুলো কি সব মিথ্যা? সেই মেহেদী পাতার মতোই তো চায়ের পাতার বাহিরে সবুজ আর ভিতরে রক্তাক্ত লাল! ওই যে রক্তেরই তো লাল, হাজার লক্ষ চা শ্রমিকদের তাজা রক্ত, ঘামের নামে ঝড়ছে রক্ত!


কিন্তু সেই রক্তের দাম? দিয়েছি কতটা? নিয়েছি যতটা?


কে মিলাবে আজ হিসাবের খাতা?


এত এত অর্থ উপার্জন হচ্ছে দেশের আর যারা কিনা সেই অপরুপ চিত্রের চিত্রায়ণ করে তাদের হাড়িতে ভাত জোটে না!


বুকে হাত দিয়ে বলুন তো, ১২০টাকায় একটা মানুষের কী হয় আজকের দিনে? একটা পরিবারের চলতে গেলে ৩০০টাকাই তো যথেষ্ট নয়, সেখানে ১২০টাকা নস্যি!


তাহলে কিসের এত আয়োজন? যদি চা বিক্রি লাভ না হয় তাহলে বন্ধ হয়ে যাক সকল চায়ের দোকান, বন্ধ হয়ে যাক সকল চা বাগান, কাল থেকে জুম চাষ হোক পাহাড়ে পাহাড়ে।


কয়েকদিন ধরে চা বাগানের শ্রমিকদের আন্দোলনের কথা আমরা সবাই জানি। কিন্তু খুবই আশ্চর্যের বিষয়ের তাদের হাজিরা যে মাত্র ১২০টাকা করে তা আমরা অধিকাংশই জানতাম না। এভাবে শর্ষের মধ্যে ভুত তা কেই-বা জানতো! এভাবে দিনের পর দিন শোষিত নিষ্পেষিত হয়ে হয়েছে চা বাগানের শ্রমিকেরা। আজ তারা চাচ্ছে, লাখো কোটি টাকা চাচ্ছে না, চাচ্ছে মাত্র ৩০০টাকা। একটা খুটি নড়লেই তো সবকিছুর দাম বেড়ে যায়, চায়ের দাম কি সৃষ্টিলগ্ন থেকে একই আছে? নিশ্চয়ই না, তাহলে কেন শ্রমিকদের হাজিরা বাড়বে না?


খাব না চা, হয়ে যাক যা তা! আগে শ্রমিকদের বেতন বাড়াক, তারপরে অন্য কথা! তাদেরকে কুলি বললে মনে লাগে যে বড় ব্যাথা!


আসল কথা হচ্ছে, এভাবে আন্দোলন করে তাদেরও ক্ষতি হচ্ছে। তাদের তো এমনিতেই নুন আনতে পান্তা ফুরায়! কীভাবে চলবে দিন, কীভাবে চলবে জীবন। বিষয়গুলো নিয়ে কোম্পানিরা মাথা না ঘামালেও সরকারকে অবশ্যই মাথা ঘামাতে হবে। দেশ ও আন্তর্জাতিক শ্রম আইন কী বলে সেটাও জেনে দেখা দরকার। আর শ্রমিকেরা চাইলে আইনি সহায়তা নিতে পারেন কিনা সেটাও দেখা দরকার। তাদের পাশে দাঁড়ানো আমাদের নৈতিক দায়িত্ব। তবে পাশে দাঁড়াতে গিয়ে আবার আন্দোলনকে রাজনৈতিক খাতে যাতে কেউ প্রবাহিত করতে না পারে সেটাও দেখা জরুরী। আরেকটা বিষয় হচ্ছে তারা তাদের পেটের দাবীতে, ভাতের অধিকারের জন্য আন্দোলন করছে এখানে নিশ্চয়ই প্রশাসন কোনোভাবে তাদের উপরে হামলা বা জুলুম চালাবে না তেমনটাই প্রত্যাশা।

ads
ads

করোনা পরিস্থিতি বাংলাদেশ

২৪ ঘণ্টায় মোট
পরীক্ষা ৩৪০৬৭ ২৯৩২৭৬
আক্রান্ত ৩৬৮ ১,৯৪৬,৭৩৭
সুস্থ ৪,০১৮ ১,৮৩৯,৯৯৮
মৃত ১৩ ২৯,০৭৭

Our Facebook Page