ঢাকা, শুক্রবার, ৩০ সেপ্টেম্বর, ২০২২

জাল সনদে শিক্ষা অধিদপ্তরের ডিজির প্রতিনিধি সালথার আব্দুল কাইউম মোল্লা

ফরিদপুর জেলার বোয়ালমারী উপজেলার রুপাপাত বামন চন্দ্র উচ্চ বিদ্যালয় ফরিদপুর জেলার হাতেগোনা শতবর্ষী শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোর মধ্যে অন্যতম । এই শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান থেকে পড়াশোনা শেষে স্ব-স্ব পেশায় প্রতিষ্ঠিতদের সংখ্যাও নেহায়েত কম নয়। রুপাপাত বামন চন্দ্র উচ্চ বিদ্যালয় এর ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি ফরিদপুর জেলার সালথা উপজেলার যদুনন্দী  গ্রামের আব্দুল হক মোল্লার ছেলে আব্দুল কাইউম মোল্লা । আব্দুল কাইউম মোল্লা বিগত ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে যদুনন্দী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী ছিলেন। যেখানে তিনি আনারস প্রতীক নিয়ে নির্বাচনও করেন। 


আব্দুল কাইউম মোল্লা নবকাম পল্লী ডিগ্রি কলেজের গভর্নিং বডির বিদ্যুৎসাহী সদস্য । নবকাম পল্লী ডিগ্রি কলেজ এলাকার অন্যতম সফল শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান। নবকাম পল্লী ডিগ্রি কলেজে উচ্চ মাধ্যমিক, অনার্স ও মাস্টার্স শ্রেনীতে শিক্ষাদান চলমান আছে। গত ২১/৮/২০২২ স্মারক নং স.রা.ক/ফরিদ /৯৫৬ তে শিক্ষক/কর্মচারী নিয়োগে শিক্ষা অধিদপ্তরের ডিজির প্রতিনিধি  হিসেবে মনোনয়ন এর জন্য আব্দুল কাইউম মোল্লার নাম প্রস্তাব করেন নবকাম পল্লী ডিগ্রি কলেজের অধ্যক্ষ। বিধিমতে তিনজন এর নাম প্রস্তাব করতে হয়। অথচ  আব্দুল কাইউম মোল্লার নাম দিয়েই অনুমোদন করানো হয়। উল্লেখ্য, সরকারি রাজেন্দ্র কলেজের প্রিন্সিপাল প্রফেসর অসীম কুমার হচ্ছেন জেলার শিক্ষা অধিদপ্তরের ডিজির প্রতিনিধি। 


কিন্তু ঘটনার শুরু এখানেই । ডিজি প্রতিনিধিকে অবশ্যই স্নাতক পাস হতে হবে। অথচ আব্দুল কাইউম মোল্লা এক্ষেত্রে যে সনদ জমা দিয়েছেন সেটি জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের রেকর্ড অনুযায়ী জাল সনদের ফটোকপি বলে প্রতীয়মান হয় । তার প্রদত্ত সাময়িক সনদটি যাচাই করতে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ে আবেদন করা হলে স্মারক নংঃ জাতী:বি:/পরী/সনদ/৪৪৯/২০০৫/৬৬৪৩ স্মারকে সনদটিকে জাল বলে সাব্যস্ত করা হয়। (রোল: ৯৭১৬৭৬২, রেজিস্ট্রেশন: নম্বর: ১৮২৩৭৩৯, শিক্ষাবর্ষ: ২০১০-২০১১, বিএ অনার্স)। 


সনদপত্র যাচাই-বাছাই প্রসঙ্গে ঢাকা কলেজের স্মারক নং- ঢা:ক:/২২৩/২০২২ 


এই বিষয়ে জানতে চাইলে, নবকাম কলেজের অধ্যক্ষ ওবায়দুর রহমান বলেন, আব্দুল কাইউম মোল্লা যে একাডেমিক সনদের ফটোকপি জমা দিয়েছেন উক্ত সনদের ভিত্তিতে আমরা ডিজির প্রতিনিধি করার সুপারিশ করেছিলাম। 


এবং ডিজির প্রতিনিধি সরকারি রাজেন্দ্র কলেজের অধ্যক্ষ অসীম কুমার সাহা বলেন, সনদ যাচাই বাছাই করা আমার কাজ না। কলেজ এর অধ্যক্ষ নাম প্রস্তাব করার পরে আমি তাকে অনুমোদন দেই। 


উক্ত বিষয়ে আব্দুল কাইউম মোল্লার কাছে জানতে চাইলে তিনি বিষয়টি এড়িয়ে যান এবং কোনো প্রকার সনদ জমা দেন নি বলে জানান।

ads
ads

করোনা পরিস্থিতি বাংলাদেশ

২৪ ঘণ্টায় মোট
পরীক্ষা ৩৪০৬৭ ২৯৩২৭৬
আক্রান্ত ৩৬৮ ১,৯৪৬,৭৩৭
সুস্থ ৪,০১৮ ১,৮৩৯,৯৯৮
মৃত ১৩ ২৯,০৭৭

Our Facebook Page