ঢাকা, মঙ্গলবার, ২৯ নভেম্বর, ২০২২

চট্টগ্রামের রাউজানে খাবারে বিষ দিয়ে এক হাজার মুরগীর বাচ্চা হত্যা

চট্টগ্রামের রাউজানে একটি পোল্ট্রি ফার্মের খাদ্যের পাত্রে বিষ দিয়ে এক হাজারের অধিক মুরগীর বাচ্চাকে ‘হত্যা’ করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। গত রবিবার দিবাগত রাতে রাউজান পৌরসভার ৬ নম্বর ওয়ার্ডের ছিটিয়াপাড়া হাসমত আলী চৌধুরী বাড়িস্থ দুই হাজার সেটের একটি খামারে ঘটনাটি ঘটে।


জানা যায়, গত ৫-৬ মাস আগে মুরগীর খামার গড়ে তোলেন বিনাজুরী ইউনিয়নের ৯ নম্বর ওয়ার্ডের প্রয়াত মো. হারুনের ছেলে মো. হামিদুল্লাহ সৌরভ।


নোয়াপাড়া কলেজে একাদশ শ্রেণিতে অধ্যয়নরত অবস্থা গত দুই বছর আগে বাবা মারা পড়ালেখা বন্ধ হয়ে যায় সৌরভের। বেকারত্ব গোচাতে ৬ মাসের জন্য ৩০ হাজার টাকার বিনিময়ে মুরগীর সেট ভাড়া নিয়ে নিজের পায়ে দাঁড়ানোর স্বপ্ন বুনেন সৌরভ। গত ৫ দিন আগে প্রতিটি ৪১ টাকা করে ১৩৫০টি মুরগীর বাচ্চা ও প্রতিবস্তা সাড়ে তিন হাজার টাকায় পাঁচ বস্তা খাদ্য ক্রয় করে খামারে তুলেন।


ঘটনার দিন রাতে খামারের তারের বেড়া কেটে দুর্বৃত্তরা প্রবেশ করে প্রতিটি মুরগীর পানির খাদ্যের পাত্রে বিষ প্রয়োগ করে। গতকাল সোমবার সকালে এক হাজারের বেশি মুরগী মরে যায়। বেচে আছে ৩০০-৪০০টি।


ক্ষতিগ্রস্ত তরুণ খামারি সৌরভ বলেন, ঋণ আর মায়ের কাছ থেকে টাকা নিয়ে খামার করেছি। রাতে খামারের বেড়া কেটে খাদ্যের পাত্রে বিষ প্রয়োগ করে এক হাজারের বেশি মুরগী হত্যা করেছে। প্রতিটি খাদ্যের পাত্রে বিষের ঘ্রাণ পাওয়া যাচ্ছে। এতে আমার ৭৫-৮০ হাজার টাকা ক্ষতি হয়েছে। খবর পেয়ে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন রাউজান উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আবদুস সামাদ সিকদার ও রাউজান থানার ওসি আবদুল্লাহ আল হারুন। তারা উপজেলা প্রাণী সম্পাদক কর্মকর্তাকে মুরগীর মৃত্যুর কারণ নিশ্চিত করার জন্য বলেছেন। মৃত্যুর কারণ নিশ্চিত হওয়ার পর আইনগত ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য তরুণ উদ্যোক্তাকে পরামর্শ দিয়েছেন।


রাউজান থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবদুল্লাহ আল হারুন বলেন, ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে লিখিত অভিযোগ দিতে বলেছি। অভিযোগ পেলে জড়িতদের চিহ্নিত করে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।


ইউএনও আবদুস সামাদ সিকদার বলেন, এতগুলো মুরগী মারা যাওয়ার বিষয়টি খুবই দুঃখজনক। ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে মুরগীগুলো কি কারণে মারা গেছে তা নিশ্চিত করার জন্য উপজেলা প্রাণী সম্পদ কর্মকর্তাকে নির্দেশ প্রদান করেছি।

ads
ads

করোনা পরিস্থিতি বাংলাদেশ

২৪ ঘণ্টায় মোট
পরীক্ষা ৩৪০৬৭ ২৯৩২৭৬
আক্রান্ত ৩৬৮ ১,৯৪৬,৭৩৭
সুস্থ ৪,০১৮ ১,৮৩৯,৯৯৮
মৃত ১৩ ২৯,০৭৭

Our Facebook Page