ঢাকা, মঙ্গলবার, ২৯ নভেম্বর, ২০২২

ফেনী চাড়ীপুর গ্রামে গনকবর উদ্ধার

আমাদের প্রতিনিধির সংবাদঃ-

ফেনী সদর মডেল থানা নিয়ন্ত্রনাধী আনুমানিক ৫ কিঃমিঃ উত্তরে অবস্থিত চাড়ীপুর গ্রামে সরকারী খাল সংলগ্ন আজিম চৌধুরীর বাশঁঝারের মধ্যে একটি গনকবর চিহ্নিত করা হয়। উল্লেখ্য যে-গত ১১/০৮/২১ইং সকালে কৃষকরা খাল থেকে সেচের পানির লাইন তৈরী করতে গিয়ে পানির গতি প্রবাহ বাশঁঝারে শুরঙ্গ নালা দিকে প্রবাহিত হওয়ার কারনে বিষয়টি সন্দেহের উদ্বেগ সৃষ্টি করে। ফলে কৃষক জামাল উদ্দিন ও সহযোগী আকিজ মিয়া বিষয়টি অনুসন্ধানকরে বাশ ঝারের ভিতর পরিত্যাক্ত গভীর গর্তে ৫টি নরকঙ্কাল দেখতে পায় এবং বিষয়টি দ্রুত এলাকায় জানাজানির হওয়াতে দীর্ঘদিন নিখোজ ৫টি ভিকটিম পরিবার সদস্যরা ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে কঙ্কাল গুলীর সাথে পোষাকপরিধান ইত্যাদি আলামতের ভিত্তিতে প্রাথমিক পরিচয় শনাক্ত করেন। কিন্তু এমতাবস্থায় এই ঘটনাটি থানা পুলিশ জানতে পারলে দ্রুত ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে জনগনের সমাগম/ভীড় উচ্ছেদ করেন এবং কঙ্কাল গুলী জব্দকরে আইনি কার্য সম্পাদনের জন্য তাৎক্ষনিক সিভিল সার্জেন ও জেলাপ্রশাসক কার্যালয় নিয়ে যায়। যাহারপর দুপুরে ভিকটিম পরিবার ও এলাকাবাসিরা মৃত ভিকটিমদের ধর্মীয়ভাবে দাফনের লক্ষে কঙ্কাল ফেরৎ দাবীকরে জেলা প্রশাসক কার্যালয় মানব বন্ধন ও ঘেড়াও অভিযান চালায়। প্রতিনিধি ঘটনা স্থলে ৫জন ভিকটিম পরিবারকে জিজ্ঞাসাবাদে জানতে পারেন-সকলে ফেনী জেলার বিভিন্ন থানার নিয়ন্ত্রনাধীন স্থায়ী বাসিন্ধা। পরিবারের সদস্যরা দাবী করেন যে,গত ৩০/১২/১৮ইং নির্বাচন কেন্দ্রীক স্বহিংশতায় জের হিসাবে র‍্যাব ও ডিবি পুলিশ পরিচয় ধারীরা ভিকটিমদের বিভিন্ন স্থান থেকে গ্রেফতার/অপহরন ও গুম করে। যাহারফলে প্রতিটি পরিবার নিকটস্থ্য থানায় এই গ্রেফতার/অপহরনের বিরুদ্ধে সাধারন ডায়েড়ী ও মামলা করেন কিন্তু আইন সংস্থা এই অপহরন/গুমের বিষয় আজ অব্দি তাহাদেরকে কোন সঠিক তথ্য/বাস্ততার বিষয় অবগত করেন নাই। বরঞ্চ পরিবারবর্গ সন্ধান জানতে থানায় যোগাযোগ করলে আইন সংস্থা তাহাদের সাথে দূর্ব্যবহার এমনকি বিভিন্ন হুমকি ধামকি ও মিথ্যা অপবাদ দিয়ে বিদায় করেন। প্রতিনিধি ভিকটিম পরিবারদের জিজ্ঞাসাবাদে ৫জনের পরিচয় নিশ্চিত করে ১।আমিরুল ইসলাম(৫২),পিং-মৃত হাজী বদ্রুল ইসলাম, সদর মডেল থানা,পেশা-হাফিজিয়া মাদ্রাসার শিক্ষক,২।হাফেজ মোঃরবিউল হক(৪৩),পিং-মোঃআব্দুল বাতেন, ছাগলনাইয়া-থানা,পেশা-এতিমখানাও মাদ্রাসার শিক্ষকে গত ৩১/১২/১৮ইং সন্ধায় মাদ্রাসা থেকে নাটকিয় অজুহাতে ডেকে অপহর করা হয়। ৩।ইমরুল হাসান(৩৩),পিং-জাকির হোসেন মাষ্টার,সদর মডেল থানা, পেশা-কৃষি ব্যবসায়িকে ১৭/০১/১৯ইং সন্ধায় জমি থেকে গ্রেফতার এবং ৪। আবুল কাশেম (৪৫), পিং- আব্দুল গোফরান, সদর মডেল থানা, পেশা-ব্যবসায়িকে গত ২৫/০১/১৯ইং রাতে স্থানিয় বাজার থেকে গ্রেফতার এবং ৫।উসমান আলী(৪৮),পিং-হাজী দাউদ, দাগমভুঞা থানা,পেশা-কৃষককে গত ২৬/০১/১৯ ইং ভোরে মসজিদে যাওয়ার পথে অপহরন করে। প্রতিনিধি এইরুপ গ্রেফতার বা অপহরনের পর হত্যা ও লাশ গুমের বিষয় থানাকে জিজ্ঞাসা করলে পুলিশ প্রশাসন বিষয়টি অস্বীকার ও বিভিন্ন অভিযোগ উত্থাপন করে সম্পূর্ন এড়িয়ে যায়। অবরোধকারী ভিকটিম পরিবারের দাবীর বিষয় জিজ্ঞাসা করলে প্রতিটি কঙ্কালের ডি.এন.এ পরিক্ষার মাধ্যমে পরিচয় নিশ্চিতর পর ভিকটিম পরিবারে নিকট কঙ্কাল গুলী হস্থান্তরের আশ্বাস জানায়।বর্তমানে থানা পুলিশ এই প্রসঙ্গে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রনালয়ের সাথে আইনি কার্যক্রম নিয়ে ব্যস্ততার বিষয় অবগত করেন এবং সংবাদ প্রচার মাধ্যমকে এই বিষয় কোন অপপ্রচারনা না চালানোর সতর্কতা ও সাবধান করেন ।


ads
ads

করোনা পরিস্থিতি বাংলাদেশ

২৪ ঘণ্টায় মোট
পরীক্ষা ৩৪০৬৭ ২৯৩২৭৬
আক্রান্ত ৩৬৮ ১,৯৪৬,৭৩৭
সুস্থ ৪,০১৮ ১,৮৩৯,৯৯৮
মৃত ১৩ ২৯,০৭৭

Our Facebook Page