ঢাকা, রবিবার, ৫ ফেব্রুয়ারী, ২০২৩

কলকাতায় ভারত-বাংলাদেশ বঙ্গবন্ধু নাট্য উৎসব অনুষ্ঠিত

কলকাতার যোগেশ মাইম একাডেমিতে গত বুধবার (২১ ডিসেম্বর) অনুষ্ঠিত হলো প্রথম ভারত-বাংলাদেশ বঙ্গবন্ধু নাট্য উৎসব। উক্ত উৎসবে নিউইয়র্ক প্রবাসী নাট্যকার খান শওকত রচিত ৪টি নাটক মঞ্চস্থ করেছেন দুই বাংলার ৪টি নাট্য গ্রুপ। বাংলাদেশ স্বাধীনের পর দুই বাংলার নাট্যকর্মীদের উদ্যোগে বঙ্গবন্ধুর জীবনভিত্তিক নাটক নিয়ে এবারই প্রথম ভারত বাংলাদেশ বঙ্গবন্ধু নাট্য উৎসব উদযাপিত হলো।


যথাযোগ্য ভাব গাম্ভীর্যের সাথে দুই দেশের জাতীয় সঙ্গীত পরিবেশনের পর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রদীপ প্রজ্বলন করেন উৎসবের প্রধান অতিথি বাঁকুড়ার সর্বজন শ্রদ্ধেয় প্রবীণ নাট্যজন গোবিন্দ বন্দ্যোপাধ্যায়।


এ সময় মঞ্চে উপস্থিত ছিলেন- চলচ্চিত্র ব্যক্তিত্ব সুমন চক্রবর্তী, স্টার জলসা/জি-বাংলার বিশিষ্ট অভিনেতা বিমান চক্রবর্তী, অংশগ্রহণকারী ৪টি নাট্যদলের চারজন নির্দেশক এজহারুল হক মিজান, সঞ্জয় সাহা, কিশোর দত্ত ও সমিত চৌধুরী, টালিগঞ্জ থেকে আসা চলচ্চিত্র প্রতিনিধিদলের সদস্য ঈদ্রজিৎ সান্যাল, কুন্তল, বিতান, অমিত, রতন, আগরতলা নিউজের ইন্দ্রজিৎ গুপ্তা, আশুতোষ কলেজের অধ্যাপক ঋষি বাবু এবং কয়েকজন নাট্য পরিচালক।


তাদের পক্ষ থেকে বক্তব্য রাখেন- সুমন চক্রবর্তী। তিনি দুই বাংলার চলচ্চিত্রে বঙ্গবন্ধুর কথা এবং ভারত বাংলাদেশ মৈত্রীর কথা তুলে ধরার আহবান জানান।


উদ্বোধনী পর্বে বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. আব্দুল মোমেনের শুভেচ্ছা বানী পাঠ করা হয়। এরপর প্রদীপ প্রজ্বলনের পর নাট্য উৎসবের থিম সঙ্গীত পরিবেশিত হয়। সঙ্গীতটি রচনা করেছেন নাট্যকার খান শওকত এবং সুর দিয়েছেন নিউইয়র্কের শিল্পকলা একাডেমির সাবেক সাধারণ সম্পাদক ও বর্তমান সহ সভাপতি কণ্ঠশিল্পী মিলন কুমার রায়।


থিম সঙ্গীতের কথাগুলো হলো- দুই বাংলার নাট্যমোদিরা ভালোবাসায় এক হবে, হাসবো আমরা মিলবো আমরা বঙ্গবন্ধু নাট্য উৎসবে। দুই বাংলার নাট্যমোদিরা ভালোবাসায় এক হবে, হাসবো আমরা মিলবো আমরা বঙ্গবন্ধু নাট্য উৎসবে। এসো গাই গান, ভালোবাসার গান, এসো গাই গান সম্প্রীতির গান …../ সাতচল্লিশে ভাগের আগে, আমরা কি আলাদা ছিলাম, ধর্মভিত্তিক রাষ্ট্র হওয়াতে, বিভক্ত হয়ে গেলাম। কাঁটাতারের সীমানা থাকুক দেশ ভাগের নামে, আমরা মিলবো ভাষার টানে ভালোবাসার খামে। এসো গাই গান, ভালোবাসার গান …./ ধর্মনিরপেক্ষ রাষ্ট্র গড়তে মুজিব হলেন শহীদ, আজও বাঙালিদের মন ও মননে মুজিব চিরঞ্জীব। দুই বাংলার নাট্যমোদিরা ভালোবাসায় এক হবে, হাসবো আমরা মিলবো আমরা বঙ্গবন্ধু নাট্য উৎসবে। এসো গাই গান, ভালোবাসার গান, এসো গাই গান সম্প্রীতির গান …..।


উক্ত নাট্য উৎসবে মোট ৪টি নাট্যগ্রুপ অংশগ্রহণ করে। ক্রমানুসারে প্রথমেই মঞ্চে আসেন কুমিল্লার সারথি থিয়েটার। তাদের নাটকের নাম- ৭ই মার্চের ভাষণ। রচনা- খান শওকত। নির্দেশনা- এজহারুল হক মিজান। মিউজিক- কমল চন্দ্র দাস, পোশাক- রাইয়ানুল জান্নাত রোজা।


অভিনয় করেছেন- মো. বশীরুল আনোয়ার, কমল চন্দ্র দাস, ফয়সাল আহমেদ, এস. এ. এম আল মামুন, এবং এজহারুল হক মিজান। এ নাটকে বঙ্গবন্ধুর ঐতিহাসিক ৭ই মার্চের ভাসনের পটভূমি ও বাস্তবতা তুলে ধরা হয়।


এরপর মঞ্চে আসে ভারতের বনগাঁর গোবরাপুর সংবিত্তি নাট্য সংস্থা। তাদের নাটকের নাম- আমার নাম শেখ মুজিব। রচনা- খান শওকত। নির্দেশনা- কিশোর দত্ত। অভিনয়ে- গোবিন্দ কর, রামপ্রসাদ ঘোষ, মিন্টু দত্ত এবং রিমা কর। এ নাটকে বঙ্গবন্ধুর নিজের বয়ানেই স্বাধীনতার পটভূমি ও তার স্বপ্নের সোনার বাংলার প্রসঙ্গ তুলে ধরা হয়। বঙ্গবন্ধু চরিত্রে সুনিপুণ অভিনয় করেন কিশোর দত্ত।


এরপর মঞ্চে আসে কলকাতার যাদবপুর দলমাদল। তাদের নাটকের নাম- বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব, রচনা- খান শওকত, নির্দেশনা- সঞ্জয় সাহা। অভিনয়ে- স্বরূপ কুমার বোস, অরুণাভ মণ্ডল, সুমন্ত দাস, সৌরভ দাস, সঞ্জয় সাহা, ইন্দ্রজিৎ গুপ্ত, সুধা কুম্ভকার, অনিন্দিতা ভট্টাচার্য, নেহা দেবনাথ, সাত্যকি চন্দ, তপজ্যতি কর, দেবজ্যোতি ভট্টাচার্য, সুবীর মণ্ডল, রাজেশ সরকার, শুভাশিস দাস এবং চিত্রিতা রায়।


এ নাটকে ১৯৭১ সালের উত্তাল মার্চ মাসের বিভিন্ন বিষয়, বঙ্গবন্ধুর গ্রেফতার, কারাবরণ এবং ১৯৭৫ এর ১৫ আগস্টের হত্যাকাণ্ড তুলে ধরা হয়। এ নাটকে বঙ্গবন্ধু চরিত্রে অভিনয় করেন সঞ্জয় সাহা।


সবশেষে মঞ্চে আসে ভারতের হাওড়ার ব্যাপ্তি কালচারাল অ্যাসোসিয়েশন। তাদের নাটকের নাম- মুজিব বাইয়া যাওরে। রচনা- খান শওকত। মঞ্চ পরিকল্পনা ও নির্দেশনা- সমিত চৌধুরী। শিল্পীদের নাম- সমিত চৌধুরী, অঙ্কিত ভট্টাচার্য, সঞ্জয় আচার্য, সৌমেন পাহাড়ি, শুভজিৎ দে, সৌভিক দাস, সৌমিক বসু, অনুপ দাস, সৌরভ মুখার্জি, প্রতীপ সাউ, দিব্যেন্দু বণিক, দীপেন সাহা, অরুণাভ দাশগুপ্ত, কৌস্তুভ চক্রবর্তী, শ্রেয়সী গাঙ্গুলি, রিম্পা রুইদাস, ঐশী সর্দার, অনুপা ঘোষ, অদৃজা চ্যাটার্জী, তাপসী ব্যানার্জী, সায়নী সরকার, এবং তৃষিতা বসু। এ নাটকে বঙ্গবন্ধুর দেশপ্রেম, সংগ্রাম, কারাজীবন এবং হত্যাকাণ্ডের বিভিন্ন দিক অভিনয়, কোরিওগ্রাফি এবং মাঈমের কম্বিনেশনে ফুটিয়ে তোলা হয়।


পুরো অনুষ্ঠানে আলোক নির্দেশনা করেন বিশিষ্ট আলোক শিল্পী সুব্রত সরকার এবং সাউন্ড কন্ট্রোল করেন সুবির কুমার। বাংলাদেশ থেকে আরও দুটো গ্রুপ এ উৎসবে অংশগ্রহণের কথা ছিল। কিন্তু ভিসার জটিলতায় তারা অংশ নিতে পারেননি। তারা হলেন সিলেটের দেশ থিয়েটার এবং ঢাকার বঙ্গবন্ধু থিয়েটার।


প্রধান অতিথি গোবিন্দ বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, দুই বাংলার সম্পর্ককে আরও আন্তরিক ও সুদৃঢ় করতে এ ধরনের আয়োজন বারবার হওয়া দরকার এবং বঙ্গবন্ধুর আদর্শ ও দেশপ্রেমের কথা ছড়িয়ে দেয়া দরকার।


ভারত-বাংলাদেশ বঙ্গবন্ধু নাট্য উৎসবের বাংলাদেশ কমিটির সভাপতি নাট্যজন এজহারুল হক মিজান তার বক্তব্যে সবাইকে আসছে ফেব্রুয়ারিতে বাংলাদেশে অনুষ্ঠিতব্য নাট্য উৎসবে সবাইকে অংশগ্রহণের আহবান জানান।


এ নাট্য উৎসবের মূল উদ্যোক্তা যাদবপুর দলমাদলের সভাপতি সঞ্জয় সাহা বলেন, নাট্যকার খান শওকতের লেখা পড়লে এটাকে নাটক মনে হয়না, মনে হয় জীবন্ত ঘটনা দেখছি। কারণ তার লেখা অত্যন্ত বাস্তবসম্মত, নিরপেক্ষ, হৃদয়গ্রাহী, মর্মস্পর্শী এবং সত্য ইতিহাস। প্রতিটা সংলাপের পরতে পরতে তিনি তথ্য তুলে ধরেছেন। আলোচ্য বিষয়ে প্রচুর গবেষণা না করলে এ ধরনের সংলাপ লেখা যায়না। এ পর্যন্ত তার লেখনী নিয়ে আমাদের উদ্যোগে দুই বাংলায় অনুষ্ঠিত হয়েছে অনেকগুলো নাট্য সেমিনার ও পাঠচক্র। আমার বিশ্বাস তার লেখা নাটকগুলোর মাধ্যমে বাংলাদেশের মহান মুক্তিযুদ্ধ, স্বাধীনতার ইতিহাস এবং বঙ্গবন্ধুর বর্ণাঢ্য রাজনৈতিক জীবনের ঘটনাসমূহ নাটকের সংলাপের মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়বে সবার মাঝে প্রজন্ম থেকে প্রজন্মে।


নিউইয়র্ক থেকে প্রেরিত নাট্যকার খান শওকতের অডিও ভাষণ মাইকে বাজিয়ে শুনানো হয়। নাট্যকার খান শওকত তার বক্তব্যে সবাইকে ধন্যবাদ দেন এবং আসছে ফেব্রুয়ারিতে ২য় নাট্য উৎসব সফল করতে সবার সহযোগিতা কামনা করেন। ভারত বাংলাদেশ বঙ্গবন্ধু নাট্য উৎসবের ভারত কমিটির পক্ষে নাট্যজন কিশোর দত্ত সবাইকে ধন্যবাদ জানিয়ে এবং আসছে ফেব্রুয়ারিতে কলকাতা এবং বাংলাদেশে অনুষ্ঠিতব্য পরবর্তী নাট্য উৎসব সফল করতে সবার সহযোগিতা কামনা করেন।


প্রধান অতিথি প্রবীণ নাট্যজন গোবিন্দ প্রসাদ বন্দ্যোপাধ্যায় তার ফেসবুকে লেখেন, গত ২১/১২/২০২২ তারিখে কলকাতার যোগেশ মাইম একাডেমিতে শুভ সন্ধ্যায় ভারত-বাংলাদেশ বঙ্গবন্ধু নাট্য উৎসব পালিত হল সাড়ম্বরে। একাধারে বাংলাদেশের বিজয় উৎসবের মাস ডিসেম্বর, অন্যাধারে বাংলা নাটকের সার্ধ শতবর্ষ পূর্তি উৎসবের সন্ধিক্ষণে ডিসেম্বরের পৌষালি শীতে দুই দেশের বাঙালি মানস নতুন আলোকে যেন জেগে উঠলো। সমবেতভাবে দুই দেশের জাতীয় সংগীত গাওয়া, প্রদীপ প্রজ্বলন এবং নাটকের থিম সঙ্গীত পরিবেশনের পর ভারতের তিনটি এবং বাংলাদেশের একটি নাট্যদল সুন্দর নাটক পরিবেশন করেন। বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে নাটকগুলি লিখেছেন নিউইয়র্ক প্রবাসী নাট্যকার খান শওকত মহাশয়। নাটকের ঘটনা বিন্যাস, চরিত্রায়ন, উদ্বেগ, উৎকণ্ঠা ও উত্তেজনা নাটকীয় রসে জারিত হয়ে মঞ্চ আলো আবহ দৃশ্যসজ্জা অঙ্গ রচনার সহায়তায় উপভোগের হয়ে উঠেছিলো। যা হলভর্তি দর্শককে আলোড়িত করে। নাট্যকার বিশ্বস্ততার সঙ্গে ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্টের মর্মান্তিক ঘটনাকে এবং বঙ্গবন্ধুর আদর্শ ও আত্মত্যাগকে তার নাট্যশৈলীর মাধ্যমে যেমন প্রতিষ্ঠা করেছেন অনুরূপ পরিচালকরাও মুনশিয়ানার সাথে সেগুলো মঞ্চস্থ করতে সক্ষম হয়েছেন। সএ নাট্য প্রযোজনাগুলো সৌখিন স্বপ্নাচার নয়। আদর্শ লালিত। সুব্রত সরকারের আলো ছিলো চলনসই। বিশেষ করে হাওড়ার ব্যাপ্তি কালচারাল অ্যাসোসিয়েশনের "মুজিব ভাইয়া যাওরে" নাটকে মুজিব চরিত্রাভিনেতা সমিত চৌধুরীর দুর্দান্ত অভিনয় রাজনৈতিক সহকর্মীর প্রতি অশেষ বিশ্বাস ও ভালোবাসা, সমাজ ও দলের প্রতি দায়বদ্ধতা, সর্বোপরি মানবতার পূজারী বঙ্গবন্ধুর আত্মত্যাগ ও দেশপ্রেমকে অনুভবী অভিনয়ে মূর্ত করে তুলেছেন। দলবদ্ধ অভিনয় সুন্দর হয়েছে। হাজারো কর্মব্যস্ততার মাঝেও বঙ্গবন্ধু নাট্য উৎসবকে কেন্দ্র করে ভারত-বাংলাদেশ সংস্কৃতি মৈত্রীর যে স্বপ্ন মাননীয় নাট্যকার খান শওকত সুদূর নিউইয়র্কে বসে দেখেছিলেন তার অক্লান্ত প্রয়াসে বাস্তব করে তুলেছেন দুই বাংলার নাটকের কলাকুশলী উদ্যোক্তারা থেকে শুরু করে নাট্যামোদী সংস্কৃতি প্রিয় প্রায় হলভর্তি দর্শক। এ এক অপূর্ব মেলবন্ধন। খান শওকতের সুপরামর্শে বাংলাদেশ নাট্যদলের এজহারুল হক মিজান, কলকাতার দলমাদল নাট্যদলের সঞ্জয় সাহা এবং কিশোর দত্ত সহ অন্যান্য সহযোদ্ধারা অসহনীয় ধৈর্য আর অনমনীয় জেদ নিয়ে এই মহতী কাণ্ডকে সুচারু ব্যবস্থাপনায় বাস্তব করে তুলেছেন। এই অবসরে তাদের কুর্নিশ জানাই। আর অবহেলায় পড়ে থাকা স্মৃতিভারাক্রান্ত যোগেশ মাইম একাডেমিকে বাংলা নাটকের সার্ধশতবর্ষ উদযাপনের সময় যারা নতুন করে ধুলো ঝেড়ে সজীব করে তুললেন, হলের সেই কর্মী বন্ধুদেরকে জানাই ধন্যবাদ। নাট্যকার, গবেষক, নিউইয়র্ক পুলিশ বিভাগের সদস্য এবং সুপরিচিত সমাজকর্মী খান শওকত মহোদয় এই আনন্দযজ্ঞে সশরীরে উপস্থিত হতে পারেননি। কিন্তু তার সহৃদয় শুভেচ্ছাবার্তার মধ্যে দিয়ে তিনি সারাক্ষণ আমাদের মধ্যে সজাগ ছিলেন। আমরা চাই এই শুভক্ষণে বিশ্বজুড়ে ছড়িয়ে পড়ুক বঙ্গবন্ধু নাট্য উৎসব, দুদেশের সমৃদ্ধ বাংলা নাট্যসাহিত্য এবং থিয়েটার। সীমারেখাটা মুছে ফেলতে আমরা তাকিয়ে থাকলাম ২০২৩ সালের মহান ফেব্রুয়ারিতে বাংলাদেশে অনুষ্ঠিতব্য ভারত-বাংলাদেশ বঙ্গবন্ধু নাট্য উৎসবের দিকে। বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে বলবো “পেয়ে যারে পাইনে, তারি পরশ পাই রে বারেবারে.."।



ads
ads

করোনা পরিস্থিতি বাংলাদেশ

২৪ ঘণ্টায় মোট
পরীক্ষা ৩৪০৬৭ ২৯৩২৭৬
আক্রান্ত ৩৬৮ ১,৯৪৬,৭৩৭
সুস্থ ৪,০১৮ ১,৮৩৯,৯৯৮
মৃত ১৩ ২৯,০৭৭

Our Facebook Page