ঢাকা, মঙ্গলবার, ১৬ এপ্রিল, ২০২৪

নরসিংদীতে বাণিজ্যিকভাবে চুই ঝালের চাষাবাদ শুরু

খাবারের রুচি বাড়াতে ও ক্ষুধামন্দা দূর করতে চুই ঝালের জুড়ি মেলা ভার। মশলা হিসেবে চুই ঝাল বর্তমানে রন্ধন বিলাসীদের পছন্দের শীর্ষ তালিকায় অবস্থান করছে। চুই ঝাল বাংলাদেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের জেলা বাগেরহাট, খুলনা, নড়াইল, যশোর, সাতক্ষীরা এলাকার জনপ্রিয় একটি মশলা। বর্তমানে দেশের অন্যান্য জেলায়ও এর জনপ্রিয়তা বাড়ছে।


সম্প্রতি নরসিংদী জেলার শিবপুর উপজেলায় প্রথম বারের মতো এর বাণিজ্যিকভাবে এর চাষাবাদ শুরু হয়েছে। শিবপুর উপজেলার মাহিমপুর ইউনিয়নের দত্তের গাঁও পশ্চিম পাড়া গ্রামের আফজাল হোসেন মোল্লা প্রথমবারের মতো নরসিংদীতে চুই ঝালের চাষাবাদ শুরু করেন।


সরজমিনে দেখা যায়, প্রতিটি গাছ মাটির নিচে মোটা শিকড় গজিয়ে ও কান্ড মেলে বেশ সুন্দর আকৃতি ধারণ করেছে। পান পাতার মতো বেশ বড় বড় সাইজের সবুজ পাতায় গোটা বাগান ছেয়ে গেছে। এ দেখে কৃষক আফজাল হোসেন মোল্লার মুখে আনন্দের হাসি ফুটে উঠেছে।


চুই ঝাল চাষি আফজাল হোসেন মোল্লা বলেন, ইউটিউবে চুই ঝালের চাষ করা দেখে চুই ঝাল চাষে উদ্বুদ্ধ হই। পরে বিগত ২০২১ সালে খুলনা গিয়ে একটি নার্সারি থেকে চাষাবাদের জন্য ৫০ টাকা পিছ হিসেবে এক হাজার চুই ঝালের চারা ৫০ হাজার টাকা দিয়ে ক্রয় করে নিয়ে এসে চাষাবাদ শুরু করি।


তিনি আরও বলেন, চুই ঝাল চাষাবাদের পূর্বে আমি প্রথমে শিবপুর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মোহাম্মদ বিন সাদেক, উপজেলা সহকারী কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তা মো. মোশারফ হোসেন ও উপজেলার মাহিমপুর ইউনিয়নের উপ সহকারী কৃষি কর্মকর্তা নাছরিন আক্তারসহ সকলের কাছ থেকে এব্যাপারে পরামর্শ গ্রহণ করি। পরে বাৎসরিক ৩৫ হাজার টাকা ভাড়ায় আমাদের বাড়ির পাশের পতিত জমি থেকে ৫০ শতাংশ জমি লিজ নেই।


আফজাল হোসেন মোল্লা বলেন, লিজ নেওয়া জমিতে ৭/৮ বার চাষ দিয়ে জমির মাটি নরম ও মসৃণ করে এক হাজার চারা রোপণ করে চাষাবাদ শুরু করি। চুই ঝালের চারা রোপণ করার সময় প্রতিবেশীরা আমাকে নিয়ে নানা রকম উপহাস করতেন। কিন্তু আমি তাদের এসব কথায় কান না দিয়ে প্রতিদিনই ক্ষেতে গিয়ে গাছের পরিচর্যা করতাম।


চুই ঝাল চাষি বলেছেন, প্রায় ১৫ মাস কঠোর পরিশ্রম ও এক লক্ষ ৫০ হাজার টাকা ব্যয় করে চুই ঝালের চারার পরিচর্যা শেষে আমার চারাগাছগুলো বিক্রির উপযোগী হয়। বর্তমানে গাছগুলো লতা পাতায় ৪/৫ ফুট লম্বা হয়েছে। প্রতিটি গাছে মাটির নিচের শিকড় ও কান্ড মিলে গড়ে দুই থেকে আড়াই কেজি ওজন পরিমাণ মসলা হবে। এখন এগুলো বিক্রি করলে প্রতি কেজি পাঁচশত টাকা মূল্যে মোট সাড়ে সাত লাখ টাকা বিক্রি করা যাবে। তাছাড়া কৃষকদের কাছে চারা বিক্রি করতে পারলে ছয় লক্ষ টাকার মতো আয় হবে।


চুই লতা জাতীয় গাছ। এর কান্ড ধূসর এবং পাতা পান পাতার মতো, দেখতে সবুজ রংয়ের। চুই ঝাল খেতে ঝাল হলেও এর রয়েছে বিভিন্ন ধরনের ঔষধি গুণ। চুই লতার শিকড়, কান্ড, পাতা, ফুল- ফল সবই ভেষজ গুণসম্পন্ন। এছাড়াও মশলা হিসেবেও এটি ব্যবহৃত হয়। তবে ঝাল হিসেবে সবচেয়ে বেশি ব্যবহৃত হয় হাঁসের মাংস ও গরুর মাংস রান্নায়। মূলত রান্নার জন্য চুই ঝালের কান্ড ব্যবহার করা হয়।


চুই ঝালে দশমিক ৭ শতাংশ সুগন্ধি তেল থাকে। এছাড়াও এতে রয়েছে আইসোফ্লাভোন, অ্যালকালয়েড, পিপালারিটিন, পোপিরন, পোলার্টিন, গ্ইলাকোসাইডস, মিউসিলেজ, গ্লুকোজ, ফ্রুকটোজ, সিজামিন, পিপলাস্টেরল। চুই এর শিকড়ে রয়েছে ১৩.১৫ শতাংশ পিপারিন।


এতে প্রচুর পরিমাণ আইসোফ্লাভোন ও অ্যালকালয়েড নামক ফাইটোক্যামিকাল রয়েছে যা অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট হিসেবে কাজ করে এবং ক্যান্সার প্রতিরোধে অগ্রণী ভূমিকা পালন করে।


স্থানীয় কৃষক আবুল কাশেম ভূঁইয়া বলেন, আমি মাঝে মধ্যে দেখি বিভিন্ন অফিসারা এই ক্ষেত দেখতে আসেন এবং তাদেরকে বিভিন্ন রকম পরামর্শ দেন। তাদের নিকট থেকে জেনেছি চুই ঝাল অত্যন্ত উপকারী ও অর্থকরী ফসল। আফজালের কাছ থেকে চুই ঝালের চারা কিনে তার পতিত জমিতে রোপণ করে চুই ঝালের চাষাবাদ শুরু করব।


শিবপুর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মোহাম্মদ বিন সাদেক বলেন, চুই ঝালের কান্ড, শিকড়, শাখা-প্রশাখা সবই মসলা হিসেবে মাছ, মাংস ও সব ধরনের রান্নায় ব্যবহার করা হয়। চুই ঝাল খাবারে রুচি বাড়ায়, গ্যাস্ট্রিক, ঠাণ্ডা, কাশি, সৰ ধরনের ব্যথার জন্য অনেক উপকারী।


এগুলো বিক্রির ব্যাপারে ৯টি ইউনিয়নে দায়িত্বরত কৃষি কর্মকর্তা ও নার্সারি মালিকদের সহযোগিতা কামনা করেন তিনি।


শিবপুর উপজেলা সহকারী কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তা মো. মোশরফ হোসেন বলেন, এই কৃষককে আমি চুই ঝাল রোপণ করার পর থেকে নিয়মিত সব ধরনের সহযোগিতা ও পরামর্শ দিয়ে যাচ্ছি।


উপজেলার মাছিমপুর ইউনিয়ন উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা নাছরিন আক্তার বলেন, আমার সিনিয়র কর্মকর্তাদের নির্দেশ মোতাবেক সবসময় খোঁজখবর রেখেছি। তার দেখাদেখি নরসিংদীর অন্যান্য উপজেলায় চুই ঝালের চাষাবাদ ছড়িয়ে পড়বে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন তিনি।

ads

Our Facebook Page