ঢাকা, মঙ্গলবার, ১৬ এপ্রিল, ২০২৪

জমে উঠেছে ঈদের কেনাকাটা ক্রেতাদের ভিড়ে মুখরিত মার্কেটগুলো

চট্টগ্রামের হাটহাজারীতে জমে উঠেছে ঈদ বাজার। ক্রেতাদের ভিড়ে মুখরিত মার্কেটগুলো। সব বয়সের নারী-পুরুষ তাদের পছন্দের জিনিস পত্র কিনতে ব্যস্ত। ইদকে সামনে রেখে বাহারি পোশাকের পসরা সাজিয়েছেন দোকানিরা। অভিজাত বিপণি বিতান থেকে শুরু করে ছোট বড় মার্কেটের দোকানগুলো এখন বাহারি পোশাকে ঠাসা। ক্রেতা সাধারণের পদভারে পূর্ণ মার্কেটগুলোর বিক্রেতাদের ঘুম নেই। সকাল থেকে গভীর রাত পর্যন্ত দোকানে বেচাকেনা চলছে।


হাটহাজারী উপজেলার ছাড়াও পার্শ্ববর্তী রাউজান ও ফটিকছড়ি উপজেলার লোকজন এসে হাটহাজারী মার্কেটগুলোকে ব্যাপক হারে ভিড় জমিয়েছে। ইদ যতই ঘনিয়ে আসছে উপজেলার বাজারগুলো ক্রেতাসাধারণের সমাগমে পরিপূর্ণ হয়ে উঠছে।


সদরের বিভিন্ন মার্কেটের শপিং মল থেকে শুরু করে ফুটপাথের দোকানগুলোতে ক্রেতাদের উপচে-পড়া ভিড় লক্ষ্য করা গেছে। সাধ আর সাধ্যের মধ্যে প্রিয়জনের উপহার কিনতে ধনী ও মধ্যবিত্তদের পাশাপাশি কেনাকাটায় ব্যস্ত সময় পার করছেন নিম্নবিত্তের খেটে খাওয়া মানুষও।


উপজেলা সদরে বসবাসকারীরা ছাড়াও বিভিন্ন গ্রাম থেকে দলে দলে লোকজন প্রতিদিন ঈদের বাজার করতে আসছেন হাটহাজারী বাজারের বিপণী বিতানগুলোতে। হাটহাজারী কাচারি সড়কের মার্কেটগুলোকে বিভিন্ন ধরনের লাইটিংয়ে সাজানো হয়েছে ক্রেতা আকর্ষণে।


ফুটপাতের দোকানগুলোকেও আকর্ষণীয় করে সাজিয়ে তোলা হয়েছে। এদিকে হাটহাজারী ব্যবসায়ী সমিতি মাইক দিয়ে ক্রেতা আকর্ষণের জন্য সারাক্ষণ প্রচার চালিয়ে যাচ্ছেন।


সরেজমিনে ঘুরে দেখা যায়, পৌরসভার বড়-বড় মার্কেটের গলিতে গরম প্রতিরোধের জন্য বৈদ্যুতিক পাখা ও এসি স্থাপন করা হয়েছে যাতে মার্কেটে আগত ক্রেতারা স্বস্তিতে কেনাকাটা করতে পারেন। এছাড়া উপজেলার নূর আলী মিয়ার হাট, কাটিরহাট বাজার, মনিয়া পুকুরপাড় বাজার, সরকারহাট বাজার, চারিয়া নয়াহাট বাজার, মিরেরহাট বাজার, নজুমিয়াহাট বাজার, মাদার্শা মদুনাঘাট বাজার, আমান বাজার, চৌধুরী হাট বাজার, ইছাপুর বাজার, চৌধুরীহাট ইস্টার্ন প্লাজা, আরাফাত টাওয়ার, সরকারহাট গণি মার্কেট সহ বিভিন্ন মার্কেট ও দোকানে চোখে পড়ার মতো ভিড় লক্ষ্য করা গেছে।


যদিও হাটহাজারী পৌর এলাকা উপজেলা পরিষদ মার্কেট, মাদরাসা মার্কেট, উপজেলা মার্কেট, ফেন্সি সুপার মার্কেট, একে প্লাজা, কাচারি সড়ক এম এ গণি মার্কেট, দিদার শপিং মল, এস এ টাওয়ার, পপুলার মার্কেট, সাত্তার শপিং সেন্টার, সিটি সেন্টার, জহুর শপিং সেন্টার, আলী মমতাজ চৌধুরী শপিং মল, তৈয়বা নুর কমপ্লেক্স, আমীর এরশাদ প্লাজা, বাস স্ট্যান্ডের সিদ্দিক মার্কেট সহ বিভিন্ন দোকানে কেনাকাটায় উপচে-পড়া ভিড় লক্ষণীয়।


এ দিকে উপজেলা পরিষদ মার্কেটের সহ বিভিন্ন টেইলাস দোকানগুলো ঘুরে দেখা গেছে শ্রমিকরা কাজের চাপে নির্ঘুম রাত কাটাচ্ছেন। পাঞ্জাবী, সেলোয়ার, শার্ট, প্যান্ট সহ বিভিন্ন রকম মডেলের জামা তৈরিতে দর্জি শ্রমিকরাও ব্যস্ত সময় পার করছেন।


সকাল থেকে সারারাত বিরতিহীন ভাবে চলছে পোশাক তৈরির কাজ। প্রসাধনী ও জুতার দোকানেও শুরু হয়েছে ক্রেতাদের ভিড়। বিশেষ করে প্রসাধনীর দোকান হক স্টোরসহ অন্যান্য প্রসাধনীর দোকানগুলোতে মেয়েদের মেহেদী ও নানা রকম কসমেটিকস কেনায় উপচে-পড়া ভিড় দেখা গেছে। পাশাপাশি টুপি ও আতরের দোকানেও রয়েছে ক্রেতাদের ভিড়।


এ দিকে আসন্ন ঈদকে সামনে রেখে ক্রেতা সাধারণের নিরাপদ কেনাকাটা নিশ্চিত করতে ও বখাটেদের দৌরাত্ম্য বন্ধ করতে মডেল থানার পুলিশ সাদা পোশাকে বিশেষ অভিযান পরিচালনা করেছেন।


হাটহাজারী পুলিশ প্রশাসন সূত্রে জানা গেছে, পবিত্র ঈদকে সামনে রেখে বাজারে আসা বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষকে নিরাপত্তা দিতে পর্যাপ্ত পরিমাণ পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। আইন-শৃঙ্খলার কোনো বিঘ্ন না ঘটার জন্য পুলিশি টহল জোরদার করা হয়েছে। সড়কে ও বিপণী বিতানগুলাতে যেন কোনো নারী ইভটিজিংয়ের শিকার না হয় সে দিকেও নজর রয়েছে পুলিশ প্রশাসনের।

ads

Our Facebook Page