ঢাকা, রবিবার, ২৫ ফেব্রুয়ারী, ২০২৪

নরসিংদী জেলা বিএনপির অস্থায়ী কার্যালয়ে আবারও হামলা-ভাঙচুর

নরসিংদী জেলা বিএনপির অস্থায়ী কার্যালয় ও কেন্দ্রীয় যুগ্ম মহাসচিব খায়রুল কবির খোকনের বাসভবনে জেলা ছাত্রদলের পদবঞ্চিত ও বহিষ্কৃত নেতারা আবার ও হামলা চালিয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।


আজ শনিবার (২০ মে) দুপুর একটায় নরসিংদী সদর উপজেলার চিনিশপুরে বিএনপির অস্থায়ী কার্যালয়ে এ হামলার ঘটনা ঘটে। এ সময় ছাত্রদলের পদবঞ্চিত নেতাদের সমর্থকরা ওই কার্যালয়ে ইটপাটকেল ছুড়ে ভাঙচুর শেষে প্রধান ফটকের পকেট গেট তালাবদ্ধ করে চলে যায়।


হামলার কথা স্বীকার করে পদবঞ্চিত কর্মীরা জানান, জেলার সিনিয়র নেতাদের নিয়ে বিএনপি কার্যালয়ে মিটিং করার কথা ছিল যুগ্ম মহাসচিব খায়রুল কবির খোকনের। এই সংবাদ পেয়ে পদবঞ্চিতরা কার্যালয়টির সামনে অবস্থান নিয়ে ছাত্রদলের ঘোষিত কমিটি বাতিলের দাবীতে বিক্ষোভ করে। পরবর্তীকালে কার্যালয়ে খায়রুল কবির খোকন এবং জেলা বিএনপি নেতাদের কেউ না আসলে পদবঞ্চিত প্রায় অর্ধশত ছাত্রদল কর্মী হামলা চালিয়ে ভাংচুর করে কার্যালয়টির প্রধান ফটক তালাবদ্ধ করে। সাথে সাথে, যুগ্ম মহাসচিব খায়রুল কবির খোকনকে অবাঞ্ছিত ঘোষণা করে স্লোগান দেয় তারা।


এর আগে দুপুর ১টার দিকে ছাত্রদলের পদবঞ্চিত ও বহিষ্কৃত নেতা ফাহিম রাজ অভি ও তার ৪০-৫০ জন কর্মী-সমর্থক স্লোগান দিতে দিতে জেলা বিএনপি কার্যালয়ে আসে। তারা ফটকের বাইরে অবস্থান করে কার্যালয়ের সামনে বিক্ষোভ মিছিল করে পরে কার্যালয়ের ভেতর অতর্কিতভাবে ইটপাটকেল ছুড়তে থাকে। এ সময় এলাকাজুড়ে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। ১০ মিনিটের মধ্যে তারা এসব ঘটনা ঘটিয়ে চলে যান।


এ বিষয়ে মাইন উদ্দিন ভূঁইয়া বলেন, আজ সকালে বিএনপির দলীয় কার্যালয়ের সামনে আমরা পকেট কমিটি বাতিলের দাবিতে বিক্ষোভ মিছিল করি। যত দিন পর্যন্ত জেলা ছাত্রদলের এ কমিটি বাতিল করা না হবে, তত দিন আমরা তাদের কোনো কর্মসূচি পালন করতে দেব না।


জানতে চাইলে বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব ও জেলা কমিটির আহ্বায়ক খায়রুল কবির খোকন বলেন, হামলাকারীরা পুলিশের নাকের ডগায় থেকে বারবার এসব ঘটনা ঘটাচ্ছে। এতেই প্রমাণিত যে কারা তাদের ছত্রছায়া দিচ্ছে। আমরাও এ দেশের নাগরিক, আমাদের নিরাপত্তা দেওয়া প্রশাসনের দায়িত্ব। অথচ প্রশাসন বারবার এসব ঘটনা এড়িয়ে যাচ্ছে।


নরসিংদী মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবুল কাশেম ভূঁইয়া বলেন, খবর পেয়ে বিএনপি কার্যালয়ে গিয়ে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছি। এ ঘটনায় লিখিত অভিযোগ পেলে তদন্ত সাপেক্ষে প্রয়োজনীয় আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।


উল্লেখ্য, গত ২৬ জানুয়ারি জেলা ছাত্রদলের পাঁচ সদস্যের আংশিক কমিটির অনুমোদন দেয় কেন্দ্রীয় ছাত্রদলের সভাপতি কাজী রওনকুল ইসলাম ও সাধারণ সম্পাদক সাইফ মাহমুদ। দীর্ঘ ১২ বছর পর ঘোষিত ওই কমিটিতে সিদ্দিকুর রহমানকে সভাপতি ও মেহেদী হাসানকে সাধারণ সম্পাদক করা হয়। ওই কমিটির সাধারণ সম্পাদক পদপ্রত্যাশী ছিলেন মাইন উদ্দিন ভূঁইয়া ও ফাহিম রাজ অভি। প্রত্যাশিত পদ না পেয়ে তারা যৌথভাবে তাদের কর্মী–সমর্থকদের নিয়ে একের পর এক ঘটনা ঘটিয়ে চলেছে। এসবের জের ধরে ১২ ফেব্রুয়ারি তারা দুজনসহ মোট তিন নেতাকে বহিষ্কার করে কেন্দ্রীয় ছাত্রদল।


ওই কমিটি ঘোষণার রাতে (২৬ জানুয়ারি) পদবঞ্চিত নেতাদের ২০-২৫ জন সমর্থক জেলা বিএনপি কার্যালয়ের প্রধান ফটকের সামনে ব্যানার, প্রচারপত্র ও ফেস্টুন ছিঁড়ে ফেলে এবং ইটপাটকেল ছুড়ে কার্যালয়ের জানালা ও সিঁড়ির গ্লাস ভাঙচুর করে। এর পর ৩০ জানুয়ারি বিকেলে ওই স্থানে খায়রুল কবির খোকনের কুশপুত্তলিকা পোড়ায় তারা। পরে কয়েক দফা ওই কমিটি বাতিলের দাবিতে বিক্ষোভ মিছিল ও মানববন্ধন করে। ১১ ফেব্রুয়ারি সকালে শিবপুরের ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের ইটাখোলা মোড়ে ছাত্রদলের দুই পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষের সময় গুলি ও ককটেল ছুড়ে মারার ঘটনা ও ঘটে।

Our Facebook Page