ঢাকা, সোমবার, ১১ ডিসেম্বর, ২০২৩

‘ফ্রেন্ডস’খ্যাত মার্কিন অভিনেতা ম্যাথিউ পেরি মারা গেছেন

‘ফ্রেন্ডস’খ্যাত মার্কিন অভিনেতা ম্যাথিউ পেরি মারা গেছেন। গতকাল যুক্তরাষ্ট্রের লস অ্যাঞ্জেলসে নিজ অ্যাপার্টমেন্টের বাথটাব থেকে উদ্ধার করা হয়েছে তার লাশ। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৫৪ বছর। একাধিক আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমের প্রতিবেদনে উঠে এসেছে এ তথ্য।


জানা গেছে, শনিবার সকালে পিকেল বল খেলে বাড়ি ফিরেন ম্যাথিউ। তার ব্যক্তিগত সহকারীকে কাজের জন্য বাইরে পাঠান। ২ ঘণ্টা পর তিনি ফিরে দেখেন বাথটাবে পড়ে আছেন ম্যাথিউ। ডাকাডাকির পর সাড়া না দেওয়ায় পুলিশ ডাকেন তিনি।


সংবাদমাধ্যম পিপলকে লস অ্যাঞ্জেলস পুলিশ বিভাগের একটি সূত্র জানিয়েছে, পঞ্চাশোর্ধ এক ব্যক্তির মৃত্যুর খবর দিয়ে পেরির বাড়ি থেকে পুলিশ ডাকা হয়। তবে সেই সময় মৃত ব্যক্তির পরিচয় নিয়ে কিছু নিশ্চিত করা হয়নি। পরবর্তীতে নিশ্চিত হয়ে ম্যাথিউয়ের মৃত্যু নিয়ে তদন্তে নামে পুলিশ। পুলিশ জানায়, ঘটনাস্থল থেকে কোনো ধরনের মাদক পাওয়া যায়নি। এ অভিনেতার সঙ্গে খারাপ কিছু হয়েছে, তারও কোনো প্রমাণ পাওয়া যায়নি। ধারণা করা হচ্ছে, হৃদযন্ত্রের ক্রিয়া বন্ধ হয়ে মারা গেছেন তিনি। ম্যাথিউ’র বাড়ি থেকে সাহায্যের জন্য যে ফোন আসে সেখানেও প্রাথমিকভাবে কার্ডিয়াক অ্যারেস্টের কথা বলা হয়েছিল।


১৯৭৯ সালে কপ শো ‘২৪০ রবার্ট’-এ অতিথি হিসেবে উপস্থিত হয়ে শোবিজে পেরির পথচলা শুরু হয়। এরপর টিভিতে ছোটখাটো চরিত্রে কাজ করার ডাকও পেতে থাকেন। ১৯৮৭ থেকে ১৯৮৮ সাল পর্যন্ত ‘বয়েজ উইল বি বয়েজ’-এ চ্যাজ রাসেল চরিত্রে অভিনয় তাকে কাঙ্ক্ষিত সাফল্য এনে দেয়। আর তারপর আসে ‘ফ্রেন্ডস’-এ অভিনয়ের সুযোগ। জনপ্রিয় টেলিভিশন শো ‘ফ্রেন্ডস’-এর প্রধান ছয় চরিত্রের অন্যতম ছিল চ্যান্ডলার বিং। চ্যান্ডলারের চরিত্রে অভিনয় করে দর্শকের নজরে এসেছিলেন ম্যাথিউ। তার সংবেদনশীল কৌতুকাভিনয়ে মুগ্ধ হয়েছিলেন অনুরাগীরা। মাঝে ‘গ্রোয়িং পেইনস’ ও ‘সিডনি’র মতো সিরিজগুলোতেও তাকে দেখা গিয়েছিল।


উল্লেখ্য, ১৯৬৯ সালের ১৯ আগস্ট ম্যাসাচুসেটসের উইলিয়ামস টাউনে জন্মগ্রহণ করেন ম্যাথিউ পেরি। তিনি বেড়ে উঠেছেন কানাডার অটোয়াতে। কানাডার প্রধানমন্ত্রী জাস্টিন ট্রুডোর সঙ্গে একই স্কুলে পড়েছেন তিনি। তার মা সুজান মরিসন ছিলেন একজন সাংবাদিক আর বাবা জন বেনেট পেরি ছিলেন একজন অভিনেতা। 

ads
ads

করোনা পরিস্থিতি বাংলাদেশ

২৪ ঘণ্টায় মোট
পরীক্ষা ৩৪০৬৭ ২৯৩২৭৬
আক্রান্ত ৩৬৮ ১,৯৪৬,৭৩৭
সুস্থ ৪,০১৮ ১,৮৩৯,৯৯৮
মৃত ১৩ ২৯,০৭৭

Our Facebook Page