ঢাকা, সোমবার, ২৬ অক্টোবর, ২০২০

বর্তমানে যেকোনো পরিস্থিতি মোকাবিলার জন্য স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় প্রস্তুত:স্বাস্থ্যমন্ত্রী

স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মা‌লেক বলেছেন, ‌দে‌শের স্বাস্থ্যখাত নি‌য়ে আ‌গে সমা‌লোচনা হলেও এখন সবাই প্রশংসা কর‌ছে। প্রধানমন্ত্রী কয়েকবার আমাদের প্রশংসা করেছেন। বর্তমানে যেকোনো পরিস্থিতি মোকাবিলার জন্য স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় প্রস্তুত।তিনি বলেন, পৃথিবীর কোনো দেশের স্বাস্থ্যখাত নিয়ে এতো সমালোচনা হয়নি। যা বাংলাদেশের ক্ষেত্রে হয়েছে। তবে এখন সেই পরিস্থিতি আর নেই।

মঙ্গলবার সন্ধ্যায় রাজধানীর ও‌য়ে‌স্টিন হো‌টে‌লে বাংলাদেশ প্রাইভেট মেডিকেল কলেজ অ্যাসোসিয়েশন (বিপিএমসিএ) আয়োজিত ‘করোনার দ্বিতীয় ঢেউ মোকাবেলা ও প্রস্তুতি’ শীর্ষক আলোচনা সভায় প্রধান অ‌তি‌থির বক্ত‌ব্যে স্বাস্থ্যমন্ত্রী এসব কথা বলেন।

সীমিত সম্পদ ও জ্ঞান নিয়ে কাজ করার অভিজ্ঞতা তুলে ধরে স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, আগে একটা ল্যাব ছিল। এখন ১০৭টি ল্যাব। কিন্তু পরীক্ষা ১০-১২ হাজারের বেশি হয় না। সুতরাং সমস্যা দেখা দিলে আপনারা আসেন, চিকিৎসা নেন। হাসপাতালে ২০ হাজার সিটের ব্যবস্থা আছে, কিন্তু সেখানে এখন রোগী কম।

অনুষ্ঠা‌নের মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব হেলথ সাইন্স-এর প্রাক্তন ভাইস চ্যান্সেলর অধ্যাপক ডা. লিয়াকত আলী। সভাপতিত্ব করেন বিপিএমসিএ -এর সভাপতি এম এ মুবিন খান।

শামিম আরা মুন্নির উপস্থাপনায় অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী ডা. মো. এনামুর রহমান। এছাড়া বিশেষ অতিথি হিসেবে ভার্চুয়ালি যুক্ত হন প্রধানমন্ত্রীর বেসরকারি শিল্প বিনিয়োগ উপদেষ্টা সালমান এফ রহমান।

সম্মানিত অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, স্বাস্থ্য শিক্ষা ও পরিবার কল্যাণ বিভাগের সচিব মো. আলী নূর, প্রধানমন্ত্রীর ব্যক্তিগত চিকিৎসক অধ্যাপক ডা. এ বি এম আব্দুল্লাহ, স্বাস্থ্য শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. এনায়েত হোসেন। স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক অধ্যাপক এ বি এম খুরশীদ আলম প্রমুখ।

অনুষ্ঠানে স্বাস্থ্যমন্ত্রী আরো বলেন, করোনাকালে সবখানে লকডাউন থাকলেও স্বাস্থ্যখাতে কোনো লকডাউন ছিল না। এই খাতের সবাই মিলেমিশে কাজ করেছে। দেশে ওষুধের কোনো অভাব হয়নি। দেশের আনাচে-কানাচে ওষুধ পাওয়া গেছে। এজন্য কোম্পানিগুলো ধন্যবাদ পেতে পারে, তারাও ভালো কাজ করেছে। আমরা সেকেন্ড ওয়েভের কথা আলোচনা করছি। কিন্তু প্রথম পর্ব তো শেষ হয়নি। তবে যে কোনো পরিস্থিতির জন্য স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় প্রস্তুত। দেশের জিডিপি একটু কমলেও যে অবস্থায় আছে সেটাতে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়েরও অবদান আছে বলে জানান মন্ত্রী।

‌তি‌নি আ‌রো ব‌লেন, এদেশে হাসপাতালে কিন্তু কোনো লাশ পড়ে থাকেনি। আমরা অনেকের থেকে ভালো আছি। আর জানিও না সেকেন্ড ওয়েভ আসবে কি-না। তবে শীতে সংক্রমণ বাড়তে পারে এমন আশংকা থেকে আমরা সবাইকে সচেতন করছি। আমরা আরো প্রস্তুত হবো। আমরা আশাকরি সবাই সচেতন থাকলে সংক্রমণ আর বাড়বে না।

এসময় বিভিন্ন সামাজিক অস্থিরতার জন্য মানসিক স্বাস্থ্য সেবার ব্যাপারে সবাইকে সচেতন হতে বলেন মন্ত্রী। সংবাদ মাধ্যমকে এব্যাপারে প্রচারণা চালাতে বলেন। এছাড়া ভ্যাকসিনের ব্যাপারে সরকার যোগাযোগ করছে বলেও জানান তিনি।

বিশেষ অতিথির বক্তব্যের শুরুতে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী এনামুর রহমান করোনাকালে যারা প্রাণ দিয়েছেন তাদের প্রতি গভীর শ্রদ্ধা নিবেদন করেন। কোভিভ যোদ্ধাদের প্রতি সম্মান জানিয়ে তিনি বলেন, করোনাকালে অনেক দেশ কোনো উপায় না পেয়ে আকাশের দিকে তাকিয়ে ছিল। কিন্তু আমাদের দেশের সংশ্লিষ্টরা অভিজ্ঞতা অর্জনের মাধ্যমে দক্ষতার সঙ্গে কাজ করে যাচ্ছে। আমাদের সরঞ্জামের অভাব ছিল, সেটা এখন নেই। উপজেলায় পর্যন্ত সক্ষমতা অর্জন হয়েছে। সুতরাং এখন ভয়ের কিছু নেই।

তিনি বলেন, করোনার দ্বিতীয় ঢেউ এলেও সেটা এখন বড় কোনো চ্যালেঞ্জ হবে না। তবে আমাদের আরো সচেতনতা বাড়ানোর দরকার। যারা মাস্ক পরে না তাদেরকে নিজের জন্য হলেও স্বাস্থ্যবিধি মানার ব্যাপারে অনুরোধ জানান। অনুষ্ঠান আয়োজনের জন্য বিপিএমসিএকে ধন্যবাদ জানান ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী।

অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন লক্ষ্মীপুর-১ (রামগঞ্জ) আসনের সংসদ সদস্য ড. আনোয়ার হোসেন খান। তিনি দেশের ক্রান্তিকালে এমন উদ্যোগে সবার স্বতঃস্ফূর্ত অংশগ্রহণের জন্য ধন্যবাদ জানান।

                                                                                   স্বাগত বক্তব্য রাখেন লক্ষ্মীপুর-১ (রামগঞ্জ) আসনের সংসদ সদস্য ড. আনোয়ার হোসেন খান

তি‌নি ব‌লেন, করোনার কারণে পৃথিবীতে লাখ লাখ মানুষের মৃত্যু হয়েছে। উন্নত দেশগু‌লো এ মহামারি মোকা‌বিলায় হিম‌শিম খা‌চ্ছে। উন্নয়নশীল দেশসহ বিভিন্ন দেশের রাষ্ট্রপ্রধানরা করোনার সময় সঠিক সিদ্ধান্ত নিতে না পারায় সমালোচনার মুখে পড়েছেন। কিন্তু আমাদের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশে আমরা করোনাভাইরাস সফলতার সঙ্গে মোকাবিলা করেছি। এতে প্রধানমন্ত্রী বিশ্বের বিভিন্ন দেশের ও বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার প্রশংসা পেয়েছেন। অন্য দেশের তুলনায় আমাদের দেশে করোনাভাইরাসে মৃত্যুর হারও অনেক কম।

মূল প্রবন্ধে অধ্যাপক ডা. লিয়াকত আলী বলেন, বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার সংজ্ঞা অনুযায়ী আমাদের দেশে এখনো শনাক্তের হার ৫ শতাংশের নিচে নামেনি। সুতরাং এটা বলার সুযোগ নেই যে আমাদের প্রথম ঢেউ শেষ হয়েছে। তারপরও আসন্ন শীতের প্রস্তুতি হিসেবে এই অনুষ্ঠানের আয়োজন। এই প্রসঙ্গে আলোচনার অবতারণা।

তি‌নি ব‌লেন, দেশের এই অবস্থায় আমার মনে হয়, আত্মতুষ্টিতে ভোগার মতো তেমন কিছু নেই। কিন্তু আত্মবিশ্বাসী হওয়ার অনেক কিছু আছে। এগুলোকে পুঁজি করে সবাইকে সাথে নিয়ে এই ভাইরাসকে প্রতিরোধ করার সর্বাত্মক চেষ্টা চালিয়ে যেতে হবে।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক অধ্যাপক এ বি এম খুরশীদ আলম বলেন, এ ব্যাপারে আমাদের কাছে এখনো সুনির্দিষ্ট কোনো তথ্য নেই। পূর্ব অভিজ্ঞতা বলে, শীতে অবস্থা খারাপ হতে পারে, এজন্য প্রস্তুতি চলছে। আমরা বসে নেই। তবে ভ্যাকসিনসহ অন্যান্য চিকিৎসার কথা না ভেবে দীর্ঘ মেয়াদে প্রতিরোধমূলক ব্যবস্থা গড়ে তুলতে হবে। ভ্যাকসিন ৫০ থেকে ৭০ শতাংশ কাজ করবে। কোনো ভ্যাকসিন যেহেতু শতভাগ কাজ করবে না, সুতরাং উদাসীনতা না করে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের নির্দেশনা মেনে চলার অনুরোধ করেন তিনি।

স্বাস্থ্য শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. এনায়েত হোসেন তার বক্তব্যে বলেন, আমরা প্রথম ঢেউ সফলভাবে মোকাবেলা করতে সক্ষম হয়েছি। সবার চেষ্টায় এটা সম্ভব হয়েছে। এখন দ্বিতীয় ধাপে এই ঢেউ এলে সবাই মিলে সেটাও মোকাবিলা করার ব্যাপারে আমরা আত্মবিশ্বাসী।

                                                                                                        বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী ডা. মো. এনামুর রহমান

প্রধানমন্ত্রীর ব্যক্তিগত চিকিৎসক অধ্যাপক ডা. এ বি এম আব্দুল্লাহ বলেন, জনগণ এখন অনেক বেশি সচেতন। এখন দ্বিতীয় ঢেউ নিয়ে যে কথা এসেছে এবং প্রধানমন্ত্রীও এটা বলেছেন। বিষয়টি নিয়ে অনেকে আমাকে জিজ্ঞেস করেছে। আমি এটা ওনাকে (প্রধানমন্ত্রী) বলেছি কি-না। আমি তাদের বলেছি, উনি আসলে তথ্য-উপাত্ত নিয়েই কথা বলেছেন।

তিনি বলেন, সবার সমন্বিত কাজের ফলে এখন দেশের অবস্থা অনেক ভালো। অনেক সংকট এবং অভিযোগের মধ্যেও সংশ্লিষ্টরা অনেক ভালো কাজ করেছেন। ঢেউ নিয়ে আমরা যেটা বলছি, তার বৈজ্ঞানিক কোনো ভিত্তি আমি দেখি না। প্রস্তুতি রাখতে হবে, এলে মোকাবিলা দরকার। না এলে ভালো।

‌তি‌নি আ‌রো ব‌লেন, ভ্যাকসিন আসার ব্যাপারে আশাবাদী হলেও তা কতটুকু কাজ করবে এটা নিয়ে সংশয় আছে। তবে এটার সংরক্ষণ এবং ট্রান্সপোর্টেশনের ব্যাপারে প্রস্তুতি নিয়ে রাখতে হবে। পাশাপাশি জনগণকে স্বাস্থ্যবিধি মানার ব্যাপারে কোনো গড়িমসি না করে আরো সচেতন হওয়ার ব্যাপারে পরামর্শ দেন এই বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক।

স্বাস্থ্য শিক্ষা সচিব মো. আলী নূর বলেন, দ্বিতীয় ঢেউ আসবে কি-না, সেটা নিয়ে নিশ্চিত না হওয়া গেলেও সচেতনতা দরকার। প্রথমে তো অবস্থা খারাপ ছিল সেটা মানতেই হবে। কিন্তু আমাদের সেটা থেকে উত্তরণ হয়েছে। আগামীতে দ্বিতীয় ঢেউ বা যে সংকট আসুক আমরা তার জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছি, মাল্টি সেক্টোরাল এপ্রোচের মাধ্যমে সেটা মোকাবিলা করা হবে।

সভাপতির বক্তব্যে এম এ মুবিন খান বলেন, দ্বিতীয় কিংবা তৃতীয় ঢেউ এলেও আমাদের সাহসের সাথে এগিয়ে যেতে হবে। করোনাকালে বেসরকারি মেডিকেল কলেজ হাসপাতালগুলো তাদের সাধ্যানুযায়ী চেষ্টা করে গেছে। সরকারের সহযোগিতা করার ব্যাপারে আমরা সবসময় প্রতিশ্রুতিবদ্ধ।

করোনা পরিস্থিতি বাংলাদেশ

২৪ ঘণ্টায় মোট
পরীক্ষা ১১১০৩ ২২৫৭৫৮৯
আক্রান্ত ১০৯৪ ৩৯৮৮১৫
সুস্থ ১৫৪৪ ৩১৫১০৭
মৃত ২৩ ৫৮০৩

Prayer Times

Calender

Printcal.net Calendar Widget

Our Facebook Page