ঢাকা, সোমবার, ২৬ অক্টোবর, ২০২০

আশুলিয়ায় সাংবাদিককে মর্মান্তিক নির্যাতন, মামলার তিন দিনেও গ্রেপ্তার হয়নি কেউ

সাভারের আশুলিয়ায় মোঃ মাহাবুর রহমান (মাহাবুব) নামে এক সাংবাদিককে মর্মান্তিক  নির্যাতনের ঘটনায় মামলার তিন দিন অতিবাহিত হলেও এপর্যন্ত কাউকে গ্রেপ্তার করতে পারেনি পুলিশ। ওই সাংবাদিক স্থানীয় একটি দৈনিক পত্রিকায় স্টাফ রিপোর্টার হিসেবে কর্মরত। অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, সাংবাদিক মাহবুবুর রহমান গত ১৫ ই অক্টোবর (বৃহস্পতিবার)  বেলা ১ টা ২০ মিনিটের দিকে পেশাগত কাজে বাইপাইল থেকে রিক্সাযোগে গাজিরচট হাই স্কুলের উদ্দেশ্য রওনা হন। পথিমধ্যে ইউনিক বাসস্ট্যান্ডের ১০০গজ দক্ষিণে পৌঁছালে আশিক সরকার ও বকুল আহমেদ নামে দুই যুবক তার গতিরোধ করে তাকে চা খাওয়ার কথা বলে ইউনিক স্ট্যান্ডের পাশে আপন জেনারেল হসপিটাল সংলগ্ন জাগো বাংলাদেশ গার্মেন্টস শ্রমিক ফেডারেশনে মামুনের অফিসে নিয়ে যায়। সেখানে আগে থেকেই শেখ আল-মামুন বিপ্লব ও মামুনসহ ৪ জন ওৎ পেতে ছিলো। তারা গার্মেন্টস শ্রমিকদের উস্কানি মুলক কথাবার্তা বলছিল। সে সময় মাহবুবুর রহমানের গোপন ক্যামেরা অন আছে বলে অভিযোগ তুলে বিপ্লব ও মামুন তাকে বেধরক মারধোর করতে থাকে। তার কাছ থেকে মোবাইল ফোন কেড়ে নেয় এবং তারা আতিকুজ্জামান পাটোয়ারী ও সানাউল্লাহ ভূইঁয়া সানি নামে আরো দুই যুবককে ফোন করে ডেকে নিয়ে আসে। এরপর সবাই মিলে তাকে কোন কিছু না বলেই মারধর করে এবং উক্ত অফিসে আটকে রাখে। পরে তারা মাহবুবুর রহমানের সম্পাদকের সাথে যোগাযোগ করলে সম্পাদক আইনি ব্যাবস্থা নিবেন বলে সন্ত্রাসীদের জানালে তারপরেও ৪ঘন্টা অবরুদ্ধ রাখে।এঘটনা থানা পুলিশকে জানালে বা কোনো বাড়াবাড়ি করলে তাকে প্রাণে মেরে ফেলার হুমকি দিয়ে জোরপূর্বক ৩শত টাকার স্ট্যাম্প ও ভিডিও সাক্ষাৎকার রেখে তাকে ছেড়ে দেয় তারা। 
ওখান থেকে মুক্ত হয়ে ঘটনার দিনই ভুক্তভোগী সাংবাদিক ৬ জনের নাম উল্লেখসহ কয়েক জনকে অজ্ঞাত উল্লেখ করে আশুলিয়া থানায় অভিযোগ দায়ের করেন। অভিযুক্তরা হল-মোঃ আতিকুজ্জামান পাটোয়ারী, সানাউল্লাহ ভূইঁয়া সানি, শেখ আল-মামুন বিপ্লব, মোঃ আশিক সরকার, বকুল আহম্মেদ ও শ্রমিকনেতা মামুন।


এ বিষয়ে নির্যাতনের শিকার সাংবাদিক মাহবুবুর রহমান বলেন, এঘটনায় আমি চরম নিরাপত্তাহীনতায় ভূগছি। এই সন্ত্রাসী বাহিনী আমাকে মেরে ফেলার জন্য আবারও যে কোন সময় আমার উপর হামলা করতে পারে। আমার উপর যে হামলা হয়েছে তার সুষ্ট বিচারের দাবী করছি। এটি একটি সংঘবদ্ধ বাহিনী। আতিকের নেতৃত্বে এলাকার চরম আতংক এই বাহিনী এলাকায় আতিক বাহিনী হিসেবে পরিচিত। আতিক বাহিনীর সদস্যরা বিভিন্ন ধরনের মাদক ব্যাবসা সহ নানা রকম অপকর্ম  করে বেড়ায়। আতিকসহ তার বাহিনীর বিরুদ্ধে বিভিন্ন থানা একাধিক মামলা রয়েছে। তার বাহিনীর প্রায় সকল সদস্যই কমবেশি কারাভোগ করেছে।  ২০১৬ সালের আশুলিয়া শিল্পাঞ্চলের শ্রমিক অসন্তোস ও শ্রমিকদের উস্কানীর দায়ে একটি মামলায় আতিক দীর্ঘদিন কারাভোগ করলেও আদালতের মাধ্যমে জামিনে বেরিয়ে এসে আরো বেপরোয়া হয়ে উঠেছে সে।
এ বিষয়ে আশুলিয়া থানার উপ-পরিদর্শক জসিম উদ্দিন জানান, এ সংক্রান্ত একটি অভিযোগ পেয়েছি এবং সাথে সাথে অভিযুক্তদের আটকের অভিযান পরিচালনা করা হলেও এপর্যন্ত কাউকে গ্রেপ্তার করা সম্ভব হয়নি। আসামীরা গা-ঢাকা দিয়েছে। তাদেরকে গ্রেপ্তার করতে অভিযান অব্যাহত থাকবে।

করোনা পরিস্থিতি বাংলাদেশ

২৪ ঘণ্টায় মোট
পরীক্ষা ১১১০৩ ২২৫৭৫৮৯
আক্রান্ত ১০৯৪ ৩৯৮৮১৫
সুস্থ ১৫৪৪ ৩১৫১০৭
মৃত ২৩ ৫৮০৩

Prayer Times

Calender

Printcal.net Calendar Widget

Our Facebook Page