ঢাকা, বুধবার, ২৫ নভেম্বর, ২০২০

অনির্দিষ্টকালের ধর্মঘটে বরিশাল মেডিকেল

বরিশাল শেরে বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে (শেবাচিম) অনির্দিষ্টকালের জন্য ধর্মঘট শুরু করেছেন ইন্টার্ন চিকিৎসকরা। শনিবার দুপুর থেকে ৩ দফা দাবিতে তারা প্রকাশ্যে ধর্মঘটের ঘোষণা দেন। ইন্টার্ন ডক্টরস এ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি সজল পান্ডে ও সাধারণ সম্পাদক তরিকুল ইসলাম স্বাক্ষরিত এক চিঠিতে এ তথ্য জানা গেছে। ফলে চরম দুর্ভোগ দেখা দিয়েছে হাসপাতালে। ডায়াগনস্টিক সেন্টারের কমিশন ভাগাভাগি নিয়ে হাসপাতালের চিকিৎসক ডা: মাসুদ খানকে ইন্টার্ন চিকিৎসক কর্তৃক মারধরে দায়ের করা মামলার জেরে এ ধর্মঘট ডাকা হয়েছে।


ইন্টার্ন ডক্টরস এ্যাসোসিয়েশন ঘোষিত দাবিগুলো হচ্ছে- হাসপাতালের ডা. মাসুদ খান কর্তৃক দায়েরকৃত মামলা ও বিভিন্ন মাধ্যম কর্তৃক হয়রানি অনতিবিলম্বে প্রত্যাহার করা, ডা: মাসুদ খানের বিরুদ্ধে আনিত অভিযোগের সুষ্ঠ বিচার ও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম প্রচারকৃত অসত্যের জন্য মানহানির বিচার করা।


জানা গেছে, শেবাচিম হাসপাতালে দেড় শতাধিক ইন্টার্ন চিকিৎসক কর্মরত রয়েছেন। শনিবার তারা হাসপাতালের পরিচালক ডা. বাকির হোসেনের সাথে বৈঠকে বসেন। ওই বৈঠকে ইন্টার্নদের মারধরের শিকার মেডিসিন ইউনিট-৪ এর সহকারী রেজিস্টার মাসুদ খানও ছিলেন। তবে বৈঠকে উভয় পক্ষই অনড় থাকায় সমঝোতা ভেস্তে যায়। এর জেরে ইন্টার্ন চিকিৎসকরা শনিবার দুপুরে হাসপাতালের পরিচালককে লিখিত চিঠি দিয়ে ধর্মঘটের ঘোষণা দেন। একাই দাবীতে গত ২৯ অক্টোবর গভীর রাতে গেট আটকে ধর্মঘটের ডাক দেয়া হয়েছিল। এভাবে দফায় দফায় ধর্মঘট ডাকায় হাসপাতালের রোগীরা ভোগান্তির মধ্যে পড়েন।


শনিবার বিকেল সাড়ে ৩টায় হাসপাতালে খোজ নিয়ে জানা গেছে, ইন্টার্নরা দায়িত্ব পালন করছেন না। তবে হাসপাতালের গেট তখনও খোলা ছিল। বিভিন্ন ওয়ার্ডে চিকিৎসক না থাকায় রোগীরা চরম কষ্ট ভোগ করছেন। ইন্টার্ন চিকিৎসক অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি ডা. সজল পান্ডে বলেন, হাসপাতালের ডা. মাসুদ খান মিথ্যা অভিযোগ এনে ইন্টার্নদের বিরুদ্ধে মামলা করেছেন। এজন্য তার (ডা. মাসুদ) বিচার দাবিতে শনিবার দুপুর থেকে অবিরাম ধর্মঘট শুরু করেছেন।


এসব প্রসঙ্গে শেবাচিম হাসপাতালের পরিচালক ডা: বাকির হোসেন শনিবার বলেন, ধর্মঘটে স্বাস্থ্য সেবা ব্যাহত হচ্ছে। উভয় পক্ষকে নিয়ে আলোচনায় বসা হয়েছিলো। কিন্তু কোন পক্ষ ছাড় দিতে রাজি নন। তারা নিজ অবস্থানে অনড়। ইন্টার্ন চিকিৎসকরা দুপুর থেকে কাজে যোগ না দেয়ার ঘোষণা দিয়েছেন। তবে সমঝোতার চেষ্টা অব্যাহত রয়েছে বলে জানান পরিচালক বাকির।


প্রসঙ্গত, সম্প্রতি শেবাচিম হাসপাতালের মেডিসিন ইউনিট-৪ এর রেজিস্টার ডা. মো. মাসুদ খানকে কমিশন নিয়ে বিরোধে মারধর করে ইন্টার্ন চিকিৎসকরা। ওই ঘটনার জেলে ইন্টার্ন চিকিৎসকদের সংগঠন ইন্টার্ন ডক্টরস এ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি সজল পান্ডে এবং সাধারণ সম্পাদক ডা: তরিকুল ইসলামের নাম উল্লেখ করে আরো ৮/১০ জনের বিরুদ্ধে পরিচালক বরাবরে অভিযোগ দায়ের করেন।


পরদিন ২২ অক্টোবর ইন্টার্ন চিকিৎসকরা মেডিকেলের সামনে ডায়াগনস্টিক সেন্টার থেকে কমিশন নেয়ার অভিযোগে পাল্টা অভিযোগ দায়ের করেন ডা. মাসুদ খানের বিরুদ্ধে। এ ঘটনায় হাসপাতালের পরিচালক একটি তদন্ত কমিটি গঠন করেন। সর্বশেষ ৩০ অক্টোবর ডা. মাসুদ খান কোতোয়ারী মডেল থানায় ইন্টার্ন চিকিৎসকদের নাম উল্লেখ করে মামলা দায়ের করেন।

করোনা পরিস্থিতি বাংলাদেশ

২৪ ঘণ্টায় মোট
পরীক্ষা ১৫০১৮ ২৬৮০১৪৯
আক্রান্ত ২২৩০ ৪৫১৯৯০
সুস্থ ২২৬৬ ৩৬৬৮৭৭
মৃত ৩২ ৬৪৪৮

Our Facebook Page