ঢাকা, বুধবার, ২৫ নভেম্বর, ২০২০

করোনার মহামারিতে নতুন আতঙ্ক ডেঙ্গু

চলমান করোনাভাইরাস মহামারির মধ্যে নতুন আতঙ্ক ডেঙ্গু। বর্ষা শেষে যখন মশাবাহিত এই রোগের প্রকোপ কমতে শুরু করে সেই সময়ে এবার প্রাণঘাতী রোগটি বেশি দেখা দিয়েছে। গত ২৪ ঘণ্টায় ডেঙ্গুজ্বর নিয়ে রাজধানী ঢাকার সরকারি-বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন ১৫ জন। আর সারাদেশে বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি আছেন ৪৮ জন রোগী।এদের মধ্যে ঢাকার ৪৭ জন, ঢাকার বাইরে মাত্র একজন রোগী ভর্তি আছেন।


রবিবার (০১ নভেম্বর) স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের হেলথ ইমার্জেন্সি অপারেশন সেন্টার ও কন্ট্রোলরুমের দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তা এবং স্বাস্থ্য তথ্য ইউনিটের (এমআইএস) ডেপুটি চিফ (মেডিক্যাল) ডা. এ বি মো. শামছুজ্জামান এ তথ্য জানান।


হেলথ ইমার্জেন্সি অপারেশন সেন্টার ও কন্ট্রোলরুমের তথ্যমতে, দেশে ডেঙ্গু রোগীর সংখ্যা ধীরে ধীরে বাড়ছে। চলতি বছরে রাজধানীসহ সারাদেশের বিভিন্ন হাসপাতালে ডেঙ্গু ও সন্দেহজনক ডেঙ্গু নিয়ে ৬৪২ জন হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন। এর মধ্যে ছাড়পত্র নিয়ে চলে গেছেন ৫৯০ জন। বর্তমানে ডেঙ্গু নিয়ে ৪৮ জন রোগী হাসপাতালে ভর্তি আছেন।


জানা যায়, চলতি বছরে রাজধানীসহ সারাদেশের বিভিন্ন হাসপাতালে ডেঙ্গু ও সন্দেহজনক ডেঙ্গু নিয়ে ৬৪২ জন হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন। এর মধ্যে জানুয়ারি মাসে সবচেয়ে বেশি ১৯৯ জন, ফেব্রুয়ারি মাসে ৫৪ জন, মার্চ মাসে ২৭ জন, এপ্রিল মাসে ২৫ জন, মে মাসে ১০ জন, জুন মাসে ২০ জন, জুলাই মাসে ২৩ জন, আগস্ট মাসে ৬৮ জন, সেপ্টেম্বর মাসে ৪৭ জন, অক্টোবর মাসে ১৬৩ জন।


চলতি বছরে ডেঙ্গু ও ডেঙ্গু সন্দেহে এ পর্যন্ত চারজন রোগীর মৃত্যুর তথ্য সরকাররে রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা ইনস্টিটিউটে (আইইডিসিআর) পাঠানো হয়। দু’জনের মৃত্যুর তথ্য বিশ্লেষণ করে আইইডিসিআর নিশ্চিত হয়েছে, একটি মৃত্যু ডেঙ্গুজনিত কারণে হয়েছে।


স্বাস্থ্য অধিদপ্তর বলছে, মশার আবাস ও প্রজননক্ষেত্র ধ্বংস করতে পারলেই এডিস মশা নির্মূল করা যাবে। রাজধানীসহ সারা দেশে এডিস মশামুক্ত করতে সিটি করপোরেশনের পাশাপাশি স্থানীয় প্রশাসন দায়িত্বের সঙ্গে কাজ করছে। এডিস মশার লার্ভা ধ্বংস করতে প্রতিনিয়ত অভিযান চলছে। তবে ডেঙ্গু মোকাবিলায় স্বাস্থ্য অধিদপ্তর প্রস্তুত রয়েছে।


সাধারণত বর্ষাকালেই এইডিস মশাবাহিত ডেঙ্গু রোগ দেখা দেয়। গত বছর জুনেই ঢাকায় ব্যাপকভাবে ডেঙ্গু আক্রান্ত হওয়া শুরু করে, জুলাই ও অগাস্টে এই রোগীর সংখ্যা নতুন রেকর্ড গড়ে। পরে সেপ্টেম্বর-অক্টোবর থেকে ডেঙ্গু আক্রান্তের সংখ্যা কমতে শুরু করে।


বাংলাদেশে ২০০০ সালে প্রথম ডেঙ্গু দেখা দেওয়ার পর গেল বছরই সবচেয়ে বেশি সংখ্যক মানুষ এতে আক্রান্ত হয় এবং মারা যায়। সরকারি হিসাবে লক্ষাধিক মানুষ আক্রান্ত এবং পৌনে দুইশর বেশি মানুষ মারা যায়, যদিও সারা দেশের হাসপাতাল ও চিকিৎসকদের দেওয়া তথ্য মতে এই সংখ্যা আরও অনেক বেশি।


এবার ডেঙ্গু নিয়ে আতঙ্ক থাকলেও তার আগেই গত মার্চ থেকে করোনাভাইরাস মহামারির কারণে ঘরবন্দি হয়ে পড়ে মানুষ। টানা দুই মাসের লকডাউন পরিস্থিতি কাটিয়ে মানুষ বাইরে বেরোলেও এখনও পরিস্থিতি পুরোটা স্বাভাবিক হয়নি।


এরমধ্যে বর্ষাকাল শেষে এই অক্টোবরেই ডেঙ্গু রোগীর সংখ্যা বাড়েছে। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, জলবায়ু পরিবর্তনজনিত কারণে অক্টোবরে ভারী বৃষ্টি হওয়ায় ডেঙ্গু মশার বাহক এইডিস ইজিপ্টি জন্মেছে বেশি। সেই সঙ্গে ডেঙ্গুর প্রকোপও বেড়েছে।

করোনা পরিস্থিতি বাংলাদেশ

২৪ ঘণ্টায় মোট
পরীক্ষা ১৫০১৮ ২৬৮০১৪৯
আক্রান্ত ২২৩০ ৪৫১৯৯০
সুস্থ ২২৬৬ ৩৬৬৮৭৭
মৃত ৩২ ৬৪৪৮

Our Facebook Page