ঢাকা, রবিবার, ১৮ এপ্রিল, ২০২১

ধূমপান ছাড়ার সহজ উপায়

সিগারেট প্রতিনিয়ত জীবনকে ধ্বংসস্তূপে ধাবিত করা; কিংবা সম্ভাবনাময় মানসিক ধৈর্যে ধস আনতে পারা অন্যতম এক মাদকের নাম। বাংলাদেশ সরকারের সমীক্ষা মতে, প্রতি বছর প্রায় ১ লাখ ৬১ হাজার মানুষ তামাকজনিত রোগে নিজেদের প্রাণের ইতি টানেন। মৃত্যু অবধারিত সত্য, আর সত্য সব সময়ই সুন্দর।


যদিও জীবন বিয়োগে ঘনিষ্ঠ হতে যদি কোনো মানুষের শরীরে নেমে আসে যন্ত্রণাময় অবস্থা, তখন তা কারও জন্যই সুখকর কিছু হবে না বৈকি।


সহজ করে বললে, একটা স্বাভাবিক মৃত্যুর স্বাদ নিতে পৃথিবীর সমস্ত প্রাণ ভীষণভাবে মরিয়া। অথচ দিনের পর দিন, জেনে শুনে, স্রেফ সস্তা যুক্তির বদৌলতে অনেকেই অস্বাভাবিক মৃত্যুর দুয়ার খুলে দিতে যেন বড্ড পরিকর। চোখ বন্ধ করে একবার যদি কল্পনা করা যায়, অল্প বয়সে জীর্ণশীর্ণ দেহ, লম্বা সময় ধরে বিছানায় কাতরানো, কিংবা মরণব্যাধি ক্যানসারের আঘাতে চূর্ণবিচূর্ণ একটি শরীর, ঠিক তখনো কি মনে প্রশ্ন জমে না -একটি বারের জন্য পাওয়া এই জীবন খাতায় ভয়ংকর সব যন্ত্রণা লিখে দিতে, কেন আমরা এত উঠেপড়ে লাগলাম?


আমাদের আজকের আয়োজনে, যে বা যারা আদতেই জীবনকে জীবনের মতো করে ভালোবাসেন, কিংবা তামাক সেবন থেকে নিজেকে সরিয়ে নিতে কিছু একটা খুঁজছেন, তাদের জন্য বিশেষ কিছু পদ্ধতি নিয়ে কথা বলব।


শক্ত কারণ অনুসন্ধান


নিজেকে অনুপ্রেরণা দিতে, কিংবা কিছু একটা থেকে সরিয়ে নিতে চাইলে, সব সময়ই কোনো না কোনো শক্ত কারণের প্রয়োজন পড়ে। সিগারেট সেবন অভ্যাসটি থেকে পরিত্রাণ পেতে তাই নিজস্ব একটি লক্ষ্য থাকা দরকার। যেমন, ধূমপান ত্যাগে আপনার হৃদরোগ কিংবা ফুসফুসে ক্যানসারের ঝুঁকি অনেকাংশে কমে, এবং বয়স বাড়লেও শরীরে তারুণ্য ধরে রাখা যায়। এছাড়া, আরও নানাবিধ কারণ আপনার নিজস্ব তালিকায় সংযুক্ত হতে পারে।


পরিশেষে শনাক্তকৃত বিষয়গুলো ভেতর থেকে অনুধাবন করতে পারলে খুব সহজেই একজন অতিমাত্রায় ধূমপানে আসক্ত ব্যক্তি নিজেকে বিরত রাখতে পারেন।


পরামর্শ


কখনো কখনো নিকোটিনে আচ্ছন্ন কোনো মগজকে ধূমপান হতে অব্যাহতি পেতে ডাক্তারের শরণাপন্ন হওয়া দরকার। পরামর্শ মোতাবেক, নির্দিষ্ট কিছু কায়দাকানুন, যেমন -মেডিটেশন, ধূমপানে কী কী ক্ষতি হয় এমন হিসাব রাখা কিছু অ্যাপ্লিকেশন ব্যবহার করা যেতে পারে।


বিকল্প খোঁজা


নিয়মিত তামাক সেবন যেহেতু একটি শক্তপোক্ত বদভ্যাস, তাই হঠাৎ করে যখন কেউ সিগারেট থেকে নিজেকে বিরত রাখতে যায়, তখন ব্যক্তির মানসিক আচরণ কিংবা শরীরে নানাবিধ বিপ্রতীপ পরিবর্তন আসে। এ ক্ষেত্রে সিগারেটের বিকল্প হিসেবে চুইংগাম, আদা অথবা লজেন্স মুখে রাখা বেশ কার্যকর।


কাছের মানুষদের অবগত করা


ধূমপান হতে নিজেকে গুটিয়ে নিতে চাইলে এই চাওয়াটা কাছের মানুষদের জানিয়ে রাখা দরকার। এতে করে যখন আপনি পুনরায় ধূমপানে আগ্রহ প্রকাশ করবেন তখন তাঁরা আপনাকে ত্যাগের ব্যাপারটি মনে করিয়ে দিতে পারেন।


বিরতি


অনেকেই ভাবেন, সিগারেট সেবন তাদের মানসিক চাপ প্রশমনে বিশেষভাবে কার্যকর। আসলে, সেবনের চাইতে এই ভাবনার বিষয়টি এ ক্ষেত্রে বিশেষ ভূমিকা পালন করে। যখন ব্যক্তি নিজের মধ্যে স্থাপন করে ফেলেন, ধূমপান তাকে দুশ্চিন্তা বা মানসিক ব্যাপারে সহায়তা করে, তখন খুব স্বাভাবিকভাবেই সিগারেট থেকে অব্যাহতি পাওয়া মুশকিল হয়ে পড়ে।


আরও পড়ুন : নৌকাসহ ১৩ চীনা জেলেকে তাইওয়ানের জলসীমায় আটক


এ ক্ষেত্রে করণীয় হচ্ছে, নিজেকে কিছুটা বিরতি দেওয়া এবং প্রাকৃতিক আশ্রয়ে যাওয়া। যেমন, বিষণ্ণতা কাটিয়ে উঠতে বন্ধুমহলে অবস্থান, সুন্দর কিছু গান শোনা, প্রাকৃতিক দৃশ্যে নিজেকে বিনোদিত করা, প্রভৃতি। এগুলো বাস্তবায়নের ফলে আপনি একটা সময় ঠিকই অনুধাবন করতে পারবেন—ধূমপান নয়, বরং প্রাকৃতিক বা শারীরবৃত্তীয় কাজগুলোই দুশ্চিন্তা লাঘবে সুষম শক্তিমত্তার দাবিদার।


খাদ্যাভ্যাসে পরিবর্তন


এক কাপ চা, সঙ্গে একটা সিগারেট; কিংবা ভাত খাওয়া শেষে একটু ধোঁয়া সেবন যেন কারও কারও দৈনন্দিন কর্ম। আবার কেউ কেউ কোমল পানীয় ডান হাতে ধরে অন্য হাতে রাখেন সিগারেট। লক্ষ করুন, যেহেতু আপনি সিগারেট হতে নিজেকে বিরত রাখতে চাইছেন, সেহেতু কিছুদিনের জন্য হলেও খাদ্যাভ্যাসে পরিবর্তন আনা ভীষণ দরকার।


যেমন, গোটা কয়েক দিন চা বা কোমল পানীয় থেকে নিজেকে সরিয়ে রাখা, ভাত খাওয়া শেষে দাঁত ব্রাশ করা, বন্ধুকে কল করা অথবা প্রিয় মানুষটির সঙ্গে একটু আলাপচারিতা করা ইত্যাদিতে মগ্ন হওয়া যেতে পারে।


ঘরদোর পরিচ্ছন্ন রাখা


যারা ব্যক্তিগত কক্ষে ধূমপান করেন তাঁদের সিগারেট ছাড়ার ক্ষেত্রে করণীয় হচ্ছে, সমস্ত ঘর রোজ পরিষ্কার রাখা। কক্ষের যে সমস্ত স্থানে দাঁড়িয়ে সিগারেটে দেশলাই ঠোকা হয়, সেখানে এয়ার ফ্রেশনার ব্যবহার করা।


ফলফলাদি ও সবজি ভোজন


ধূমপান ছাড়ার সময় কোনো অবস্থাতেই স্বাস্থ্যকর ভোজন হতে নিজেকে বিরত রাখা যাবে না। বরং, এ সময় ব্যক্তির উচিত প্রচুর পরিমাণে সবজি ও ফলমূল খাওয়া।


নিজেকে উপহার দিন


তামাক আসক্ত মানুষ যখন নেশার ঘোরে থাকে, তখন সে নিজেও জানে না, ঠিক কী পরিমাণ কষ্টার্জিত অর্থ কেবলমাত্র তার বদ আসক্তির পেছনে রোজ খরচ হয়। তাই, আপনি যখন সিগারেট মুক্তির জন্য মনস্থির করবেন, তখন বেঁচে যাওয়া সব অর্থ জমিয়ে নিজেকে ভালো কিছু উপহার দিন। এতে করে আপনার অন্তরাত্মা যেমন প্রচণ্ড অনুপ্রেরণা পায়, অন্য দিকে সময়ের সঙ্গে সঙ্গে আপনার ভেতর সঠিক বাস্তবতা ক্রমশ প্রকাশিত হতে থাকে।

ads
ads

করোনা পরিস্থিতি বাংলাদেশ

২৪ ঘণ্টায় মোট
পরীক্ষা ১৯৪০৪ ৫১৫১১৬১
আক্রান্ত ৩৬৯৮ ৭১৮৯৫০
সুস্থ ৬১২১ ৬১৪৯৩৬
মৃত ১০২ ১০৩৮৫

Our Facebook Page