ঢাকা, বুধবার, ২৫ নভেম্বর, ২০২০

কে হলেন মিস ইউনিভার্স অস্ট্রেলিয়া?

   এবারের মিস ইউনিভার্স অস্ট্রেলিয়া হলেন ভারতীয় বংশোদ্ভূত মারিয়া থাটিল। জেনে নিন মারিয়া সম্পর্কে।
  • ভারতীয় বংশোদ্ভূত তরুণীর মাথায় শোভা পেলো অস্ট্রেলিয়ার তাজ। সম্প্রতি ‘মিস ইউনিভার্স অস্ট্রেলিয়া’ হলেন ভারতীয় বংশোদ্ভূত তরুণী মারিয়া থাটিল।

  • গত ২৮ অক্টোবর মেলবোর্নের পাঁচতারা হোটেল সোফিটেল মেলবোর্ন অন কলিন্সে এই প্রথম ভার্চুয়ালি মিস ইউনিভার্স অস্ট্রেলিয়া প্রতিযোগিতা হয়। মহামারির কারণেই এই ব্যবস্থা।

    গত ২৮ অক্টোবর মেলবোর্নের পাঁচতারা হোটেল সোফিটেল মেলবোর্ন অন কলিন্সে এই প্রথম ভার্চুয়ালি মিস ইউনিভার্স অস্ট্রেলিয়া প্রতিযোগিতা হয়। মহামারির কারণেই এই ব্যবস্থা।

  • মোট ২৬ জন প্রতিযোগী অংশ নিয়েছিলেন ওই প্রতিযোগিতায়। তাদের মধ্যে মিস ইউনিভার্স অস্ট্রেলিয়ার মুকুট ছিনিয়ে নেন মারিয়া।

    মোট ২৬ জন প্রতিযোগী অংশ নিয়েছিলেন ওই প্রতিযোগিতায়। তাদের মধ্যে মিস ইউনিভার্স অস্ট্রেলিয়ার মুকুট ছিনিয়ে নেন মারিয়া।

  • ভার্চুয়াল ইভেন্টের শেষে মারিয়াকে মুকুট পরিয়ে দেন ২০১৯ সালের ‘মিস ইউনিভার্স অস্ট্রেলিয়া’ প্রিয়া সেরাও। ঘটনাচক্রে, প্রাক্তন ওই মিস ইউনিভার্স অস্ট্রেলিয়াও ভারতীয় বংশোদ্ভূত।

    ভার্চুয়াল ইভেন্টের শেষে মারিয়াকে মুকুট পরিয়ে দেন ২০১৯ সালের ‘মিস ইউনিভার্স অস্ট্রেলিয়া’ প্রিয়া সেরাও। ঘটনাচক্রে, প্রাক্তন ওই মিস ইউনিভার্স অস্ট্রেলিয়াও ভারতীয় বংশোদ্ভূত।

  • ২৭ বছরের মারিয়া একজন মেক-আপ শিল্পী। ফেসবুক, ইনস্টাগ্রামে তিনি মেক-আপ সম্পর্কে নানা তথ্য শেয়ার করেন। তার একটি ইউটিউব চ্যানেলও আছে। তাতে লাইফস্টাইল এবং মেক-আপের নানা ভিডিও শেয়ার করেন তিনি।

    ২৭ বছরের মারিয়া একজন মেক-আপ শিল্পী। ফেসবুক, ইনস্টাগ্রামে তিনি মেক-আপ সম্পর্কে নানা তথ্য শেয়ার করেন। তার একটি ইউটিউব চ্যানেলও আছে। তাতে লাইফস্টাইল এবং মেক-আপের নানা ভিডিও শেয়ার করেন তিনি।

  • মেলবোর্নেই জন্ম এবং বড় হওয়া মারিয়ার। ন’য়ের দশকে তার মা-বাবা ভারত ছেড়ে মেলবোর্নে চলে যান। তারপর থেকে সেখানেই থাকতে শুরু করেন তারা।

    মেলবোর্নেই জন্ম এবং বড় হওয়া মারিয়ার। ন’য়ের দশকে তার মা-বাবা ভারত ছেড়ে মেলবোর্নে চলে যান। তারপর থেকে সেখানেই থাকতে শুরু করেন তারা।

  • মারিয়ার বাবার জন্ম ভারতের কেরালায়। মায়ের কলকাতায়। কেরালয় এখনও তার বাবার তরফে অনেক আত্মীয়স্বজন থাকেন। কিন্তু মায়ের তরফে প্রায় কেউই আর ভারতে নেই। কর্মসূত্রে সকলেই এখন অস্ট্রেলিয়ার বিভিন্ন শহরে থাকেন।

    মারিয়ার বাবার জন্ম ভারতের কেরালায়। মায়ের কলকাতায়। কেরালয় এখনও তার বাবার তরফে অনেক আত্মীয়স্বজন থাকেন। কিন্তু মায়ের তরফে প্রায় কেউই আর ভারতে নেই। কর্মসূত্রে সকলেই এখন অস্ট্রেলিয়ার বিভিন্ন শহরে থাকেন।

  • সে কারণে ২০০১ সালে একবার বাবার সঙ্গে কেরলে গেলেও কলকাতায় কখনো আসা হয়নি তার।

    সে কারণে ২০০১ সালে একবার বাবার সঙ্গে কেরলে গেলেও কলকাতায় কখনো আসা হয়নি তার।

  • ভারত এবং অস্ট্রেলিয়া দুই সংস্কৃতিতেই বড় হয়েছেন মারিয়া। বাড়িতে মা-বাবার থেকে ভারতীয় সংস্কৃতি শিখেছেন। স্কুল-কলেজ এবং বন্ধুদের থেকে শিখে নিয়েছেন সে দেশের সংস্কৃতিও।

    ভারত এবং অস্ট্রেলিয়া দুই সংস্কৃতিতেই বড় হয়েছেন মারিয়া। বাড়িতে মা-বাবার থেকে ভারতীয় সংস্কৃতি শিখেছেন। স্কুল-কলেজ এবং বন্ধুদের থেকে শিখে নিয়েছেন সে দেশের সংস্কৃতিও।

  • এই দুই সংস্কৃতিকে বয়ে নিয়ে যেতে প্রথম প্রথম একটু অসুবিধাই হত মারিয়ার। ছোটবেলায় অনেক চেষ্টাও করেছেন শুধুমাত্র অস্ট্রেলিয়ার নাগরিক হিসাবেই নিজের পরিচিতি গড়ে তুলতে। কিন্তু সেটা সম্ভব হয়নি।

    এই দুই সংস্কৃতিকে বয়ে নিয়ে যেতে প্রথম প্রথম একটু অসুবিধাই হত মারিয়ার। ছোটবেলায় অনেক চেষ্টাও করেছেন শুধুমাত্র অস্ট্রেলিয়ার নাগরিক হিসাবেই নিজের পরিচিতি গড়ে তুলতে। কিন্তু সেটা সম্ভব হয়নি।

  • বড় হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে মারিয়ার উপলব্ধি, তার মধ্যে দুই দেশের সংস্কৃতিই মিশে আছে। আর সেটাই তার পরিচয়। এই পরিচয়েই এখন গর্বিত মারিয়া।

    বড় হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে মারিয়ার উপলব্ধি, তার মধ্যে দুই দেশের সংস্কৃতিই মিশে আছে। আর সেটাই তার পরিচয়। এই পরিচয়েই এখন গর্বিত মারিয়া।

করোনা পরিস্থিতি বাংলাদেশ

২৪ ঘণ্টায় মোট
পরীক্ষা ১৫০১৮ ২৬৮০১৪৯
আক্রান্ত ২২৩০ ৪৫১৯৯০
সুস্থ ২২৬৬ ৩৬৬৮৭৭
মৃত ৩২ ৬৪৪৮

Our Facebook Page