ঢাকা, রবিবার, ১৮ এপ্রিল, ২০২১

ডামুড্যায় কলেজ ছাত্রীকে আগুনে পুড়িয়ে মারার চেষ্টা

শরীয়তপুর জেলার ডামুড্যা পৌরসভার ৩ নং ওয়ার্ডের বিশা কুড়ি গ্রামের শফিকুল ইসলাম সরদারের কলেজ পড়ুয়া কন্যা জান্নাত ইসলাম কে আগুনে পুড়িয়ে মারার চেষ্টা।


ডামুড্যা পৌরসভার ৩ নং ওয়ার্ডের বিশা কুড়ি গ্রামের সাখাওয়াত হোসেন সেকু গাজী তার প্রতিবেশী শফিকুল ইসলাম সরদারের কলেজ পড়ুয়া কন্যা জান্নত ইসলাম কে আগুনে পুড়িয়ে মারার চেষ্টা। 

জান্নাত ইসলাম বলেন,

বিগত ২ তারিখ বৃহস্পতিবার বিকেল ৪.৩০ মিনিটের সময় আমি সাখাওয়াত হোসেন সেকু গাজীর স্ত্রী কে জিজ্ঞেস করি যে, আপনারা আমাদের জায়গায় প্রতিদিন কেন ময়লা আবর্জনা ফেলেন? একথা বলতে না-বলতেই ঘর থেকে সেকু গাজী খুব বাজে ভাষায় গালাগাল করতে করতে ঘর থেকে বাহিরে আসে এবং আমাকে কে মেরে ফেলার হুমকি দেয়।আমি তাদেরকে বলি আপনারা এসমস্ত ময়লা আমাদের জায়গায় না ফেলে একত্রে করে আগুন দিয়ে পুড়িয়ে ফেলতে পারেন। এ কথা বলে আমি সমস্ত ময়লা ঝাড়ু দিয়ে একসাথে  করে আগুন জ্বালিয়ে দেয়। ঐ আগুনের ধুঁয়া সেকু গাজীর ঘরে প্রবেশ করলে সে ক্ষিপ্ত হয়ে আমার দিকে এগিয়ে আসে তখন আমি ভয়ে পিছিয়ে যেতে থাকি একপর্যায়ে আমার তাদের ঘরের দেয়ালের সাথে পিঠ ঠেকে যায় ঐ সময় সেকু গাজী আমার চুলের মুঠি ধরে টেনে হিঁচড়ে  আগুনের ভেতর চেপে ধরে এবং অকথ্য ভাষায় গালাগাল করতে থাকে এবং বলে তোকে আজকে মেরেই ফেলবো দেখি তোর কোন বাপে বাঁচায়? এ কথা বলে সেকু গাজী আমার গলা চেপে ধরে এবং আমাকে বিবস্ত্র করার চেষ্টা করে এতে করে আমার গলায় জখমের সৃষ্টি হয় এবং আগুনে আমার পা,হাত ও মুখের বেশ কিছু অংশ পুড়ে যায়। এ ঘটনার সময় আমার বাবা ও ভাই বাহিরে থাকায় সেকু গাজী খুব বেশি সুযোগ পায়।

জান্নাত ইসলাম জাগোকন্ঠকে আরও জানান,আমার মা, নানির চিকিৎসার জন্য বেশ কিছু দিন ধরে ঢাকায় অবস্থান করছে। সেকু গাজী আমাকে শুধু আগুনে পুড়িয়েই ক্ষান্ত্য হয়নি পরবর্তীতে বাঁশের লাঠি দিয়ে পিটিয়ে জখম করে। আমার চিৎকারে আশেপাশের লোকজন ছুটে আসলে সেকু গাজী আমাকে মাটিতে ফেলে পালিয়ে যায়। পরবর্তীতে আমার ভাই সাইফুল ইসলাম ঘটনা স্থলে এসে আহত অবস্থায় আমাকে ডামুড্যা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে। 

জান্নাত ইসলামের বড় ভাই সাইফুল ইসলাম জাগোকন্ঠকে বলেন,সেকু গাজী জান্নাত কে মেরেই ক্ষান্ত হয়নি তার গলায় থাকা ৮০ হাজার টাকা মূল্যর স্বর্নের চেইন ছিনিয়ে নেয়।বর্তমানে আমার বোনের শরীরিক পরিস্থিতির অবনতি হওয়ায় ডামুড্যা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স থেকে উন্নত চিকিৎসার জন্য শরীয়তপুর সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।সাইফুল ইসলাম আরও বলেন আসামি পক্ষ প্রভাবশালী হওয়ায় বিভিন্ন ভাবে আমার এবং পরিবারকে হুমকি দিয়ে চলছে। এতকিছুর পরও তারা বলে যে, তোমরা আমার কচু করতে পারবা। তোমাদেরকে আবার দেখে নিব।

 উক্ত ঘটনার দুই দিন পর জান্নাতের ভাই সাইফুল বাদি হয়ে সেকু গাজীর বিরুদ্ধে ডামুড্যা থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করে। এবিষয়ে ডামুড্যা থানার ওসি তদন্ত ইমারত হোসেন  জানান যে, আহত জান্নাতের ভাই সাইফুল ইসলাম বাদি হয়ে একটি অভিযোগ দায়ের করেছে। এ বিষয়ে আমরা যথাযথ আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করবো। জান্নাতের ভাই সাইফুল ইসলাম বলেন,মামলা করার পর থেকে সেকু গাজী ও তার ভাই উজ্জ্বল গাজী মামলা তুলে নেয়ার জন্য বিভিন্ন ধরনের ভয় ভীতি সৃষ্টি করে আসছে এবং এলাকার প্রভাবশালীদের দারস্থ হচ্ছে। আহত জান্নাত ইসলাম জাগোকন্ঠকে আর বলেন,আমি একজন রোভার স্কাউটস, আমি মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নিকট থেকে পুরস্কার পেয়েছি এবং কি আমি চল্লিশ দিনের অস্র প্রশিক্ষণ দিয়েছি সেই আমার আজ এ অবস্থা! আমি মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কাছে এ ঘটনার সুবিচার কামনা করছি।

ads
ads

করোনা পরিস্থিতি বাংলাদেশ

২৪ ঘণ্টায় মোট
পরীক্ষা ১৯৪০৪ ৫১৫১১৬১
আক্রান্ত ৩৬৯৮ ৭১৮৯৫০
সুস্থ ৬১২১ ৬১৪৯৩৬
মৃত ১০২ ১০৩৮৫

Our Facebook Page