ঢাকা, রবিবার, ১৮ এপ্রিল, ২০২১

রাজধানীর মিরপুরে লকডাউনের কোনো তোয়াক্কা করছেন না কেউই

করোনার ভয়াল থাবায় তটস্থ গোটা বিশ্ব। গত বছরে করোনা ভাইরাসের ভয়াল থাবায়  সম্প্রতি সিথিল গোটাবিশ্বে ফের হুহু করে বাড়ছে করোনা সংক্রমণ। প্রতিদিনই দেশের আক্রান্তের রেকর্ড ভেঙ্গেই চলেছে। সেদিকে খেয়াল করেই দেশবাসীকে ভবিষ্যৎ আসন্ন মহাবিপদ থেকে রক্ষা করতে লকডাউনের সিদ্ধান্ত নিতে বাধ্য হয় সরকার।

এদিকে রাজধানীর মিরপুরে করোনা মহামারীতে সরকার ঘোষিত চলমান লকডাউন এর তৃতীয় দিনেও স্বাস্থ্যবিধি মানার কোনো বালাই নেই। সামাজিক দুরত্ব রক্ষায় কোনো নিয়মনীতিরই তোয়াক্কা করছেন না কেউই। 


৭ এপ্রিল (বুধবার) বিকেলে সরেজমীনে রাজধানীর মিরপুর এক নম্বরস্থ হযরত শাহ্ আলী সিটি কর্পোরেশন মার্কেটে  গিয়ে দেখা গেলো-ক্রেতা,বিক্রেতা বা পথচারীদের কেউই স্বাস্থবিধি মানছেন না। একরকম ঠেলাঠেলি করে চলতে হচ্ছে। তদুপরি মুখে মাস্ক ব্যবহার বা সামাজিক দূরত্বের কোনো তোয়াক্কাই করছেন না তারা।
ফুটপাতসহ মূল সড়কের দুই তৃতীয়াংশ দখল করে পণ্যসামগ্রী কেনাবেচায় ব্যস্ত দোকানীরা।
এদিকে বাজার করতে এসে স্বাস্থঝুঁকি নিয়েই অবাধে ঠেলাঠেলি করে  চলতে হচ্ছে সকলকে।
 
মিরপুর এক নম্বরের এফ ব্লকের বাসিন্দা শাহ আলম এসেছেন নিত্যপ্রয়োজনীয় সামগ্রী কিনতে। তিনি জানালেন,আসলে কাঁচাবাজার কিনতে বাজারে এসেছি। কিন্ত বাজারে এসে যা দেখছি তাতে চরম আতঙ্কিত হওয়াটাই স্বাভাবিক। সরকার খোলা স্থানে সামাজিক দূরত্ব মেনে কাঁচাবাজার বসানোর নির্দেশনা দিলেও এরা গাদাগাদি করে দোকানপাট বসিয়েছে। ঠেলাঠেলি করে চলাচল করতে হচ্ছে। এতে করে করোনা সংক্রমণের ঝুঁকি বহুগুণ বেড়ে গেছে।
কয়েকজন দোকানির সাথেও কথা হলো। তবে তারা দারিদ্র্যের দোহাই দিয়ে এড়িয়ে যেতে চেষ্টা করলেন ভয়ানক এব্যপারটি। ফুটপাতের এক কাঁচামাল ব্যবসায়ী বললেন, আমরা গরীব মানুষ। কই যামু কি খামু। দোকানপাট বন্ধ হইয়া গেলে তো পোলামাইয়া নিয়া না খাইয়া মরমু। 

এবিষয়ে হযরত শাহ আলী সিটি কর্পোরেশন মার্কেটের সভাপতি সেক্রেটারি দাবি করে বললেন,আমরা বাজারের সকল প্রবেশদ্বার বন্ধ করে দিয়ে নির্দিষ্ট গেট দিয়ে সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখেই সকল বাজারে প্রবেশ করতে দিচ্ছি। তবে দুঃখ জনক বিষয় বার বার মাইকিং করে স্বাস্থ্য বিধি মানতে সকলকে বিশেষ অনুরোধ করলেও অনেকেই তা মানছেন না। আমরা পুরোপুরি স্বাস্থবিধি মেনেই ব্যবসা পরিচালনা করার চেষ্টা করছি।
তবে সকলের সকল মতামতের উর্ধ্বে যে বাস্তবতাটি দৃশ্যমান সেটি হচ্ছে মহামারী করোনা ভাইরাসের ভয়াল সংক্রমণ। সকলকেই সরকারী নির্দেশনা মেনেই রাস্তাঘাটে চলাফেরা এমনকি বাজারে আগমন করা উচিত। 
ads
ads

করোনা পরিস্থিতি বাংলাদেশ

২৪ ঘণ্টায় মোট
পরীক্ষা ১৯৪০৪ ৫১৫১১৬১
আক্রান্ত ৩৬৯৮ ৭১৮৯৫০
সুস্থ ৬১২১ ৬১৪৯৩৬
মৃত ১০২ ১০৩৮৫

Our Facebook Page