ঢাকা, সোমবার, ১০ মে, ২০২১

অনলাইনে কেনাকাটায় প্রতারিত হলে করণীয়

চলমান মহামারি করোনা ভাইরাসের সংকটময় পরিস্থিতিতে অনলাইনে কেনাকাটার প্রয়োজনীয়তা বৃদ্ধি পেয়েছে বহু মাত্রায়। পাল্লা দিয়ে বেড়েছে প্রতারণার ফাঁদও। হরহামেশাই শোনা যায় ফেসবুক কিংবা কোনো গ্রুপের পেইজে যে পণ্য অর্ডার দেওয়া হয়েছিল হঠাৎই আগাম অর্থ নিয়ে উধাও হয়ে গেছে।


আবার অনেক সময় অনলাইনে যে মানের পণ্য অর্ডার দেওয়া হয়েছিল তা হাতে পাওয়ার পর ক্রেতার চোখ একেবারেই চড়কগাছ! এমন ভোগান্তির ক্ষেত্রে নেওয়া যেতে পারে আইনি প্রতিকার। চলুন জেনে নেওয়া যাক অনলাইন কেনাকাটায় প্রতারিত হলে আইনি কি প্রতিকার পাওয়া যেতে পারে।


একজন বিবেকবান নাগরিক হিসেবে যে কোনো অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনা এড়াতে সচেতনতাই সর্বোৎকৃষ্ট পন্থা। আইনে ‘ক্রেতা সাবধানতা নীতি’ বা ক্যাভিয়েট এম্পটর একটা মতবাদ আছে। যেখানে ক্রেতাকে প্রতারণার শিকার হতে রক্ষার জন্য সচেতনতার উপর ব্যাপক গুরুত্বারোপ করা হয়েছে।


যদিও একজন অনলাইন কিংবা অফ লাইনের ক্রেতা হিসেবে কোনো প্রতারণার শিকার হোন তাহলে কয়েক ভাবে আইনের আশ্রয় নেওয়ার যথেষ্ট সুযোগ রয়েছে। এই ক্ষেত্রে দেওয়ানি আদালতে প্রয়োজনীয় ডকুমেন্টসহ ক্ষতিপূরণের মামলা করা যেতে পারে; ফৌজদারি আদালতে ৪২০ ধারার আওতায় প্রতারণার মামলা করা যেতে পারে; দ্যা সেলস অফ গুডস অ্যাক্টসের আওতায় প্রতিকার পাওয়া যায়; চুক্তি আইনে প্রতিকার পাওয়া যায়। এমনকি প্রতিটি জেলার নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট বরাবর অভিযোগের ভিত্তিতে প্রতিকার পাওয়া যেতে পারে।


তবে বর্তমান সামগ্রিক দিক পর্যালোচনায় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদফতরে অভিযোগ করাটাই সবচেয়ে কার্যকরী পন্থা। অনলাইনে প্রতারিত হলে সংশ্লিষ্ট সাইট বা গ্রুপের বিরুদ্ধে অভিযোগটি লিখিত আকারে ক্রয়ের রশিদ সহ যাবতীয় তথ্য সংযুক্ত করে ভোক্তা অধিকার কার্যালয়ের ফ্যাক্স বা ইমেইলে দিতে হবে।


ঢাকা ছাড়া অন্য বিভাগের ক্ষেত্রে ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদফতরের উপ-পরিচালক বরাবর অভিযোগ করা যাবে। এ ক্ষেত্রে পণ্য কেনার তারিখ থেকে ৩০ দিনের মধ্যে ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদফতরের নিকট অভিযোগ জানাতে হবে।


অধিদফতরে অভিযোগের ভিত্তিতে ঘটনার সত্যতা নিরূপণে দুই পক্ষ থেকে শুনানি শেষে সংশ্লিষ্ট অনলাইন প্রতিষ্ঠানকে জরিমানার আদেশ দিবেন। অভিযুক্ত প্রতিষ্ঠানের কাছ থেকে জরিমানার টাকা আদায় শেষে ২৫ শতাংশ আদায়কৃত টাকা ক্ষতিগ্রস্ত ভোক্তা বা ক্রেতাকে প্রদান করা হবে। ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ আইন, ২০০৯ এর ৪৪ ধারা মতে ‘কোনো ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠান ক্রেতা সাধারণকে প্রতারিত করার উদ্দেশ্যে কোনো পণ্য বা সেবা বিক্রয়ের জন্য অসত্য বা মিথ্যা বিজ্ঞাপন দেন এ ক্ষেত্রে তাকে অনূর্ধ্ব এক বছর কারাদণ্ড অনধিক দুই লাখ টাকা অর্থদণ্ড বা উভয় দণ্ডে দণ্ডিত হবেন।

ads
ads

করোনা পরিস্থিতি বাংলাদেশ

২৪ ঘণ্টায় মোট
পরীক্ষা ১৬৮৪৮ ৫৬৪৭৭৪২
আক্রান্ত ১৫১৪ ৭৭৫০২৭
সুস্থ ২১১৫ ৭১২২৭৭
মৃত ৩৮ ১১৯৭২

Our Facebook Page