ঢাকা, সোমবার, ১০ মে, ২০২১

অভিনেতা সোনুর প্রশংসায় প্রিয়াঙ্কা

অভিনেতা সোনু সুদ। ভারতে করোনা মহামারির প্রকোপ শুরুর পর থেকেই নানাভাবে দুস্থ ও অসহায় মানুষের সাহায্যে এগিয়ে এসেছেন। অনেকেই তার এই কাজের ভূয়সী প্রশংসা করছেন। এবার এই অভিনেতার প্রশংসায় পঞ্চমুখ অভিনেত্রী প্রিয়াঙ্কা চোপড়া।


সম্প্রতি ভারতে দ্বিতীয় দফায় করোনাভাইরাসের তাণ্ডব শুরু হয়। রেকর্ড হারে বাড়ছে আক্রান্ত ও মৃতের সংখ্যা। এই অবস্থায় যে সকল শিশুর বাবা-মা করোনা আক্রান্ত হয়ে মারা যাচ্ছেন, তাদের পড়াশোনার সব খরচ বিনামূল্যে করে দেওয়ার জন্য দেশটির কেন্দ্রীয় সরকারের কাছে আবেদন জানিয়েছেন সোনু।


সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে একটি ভিডিও পোস্ট করেন ‘দাবাং’ অভিনেতা। পরবর্তী সময়ে ফটো ও ভিডিও শেয়ারিং সাইট ইনস্টাগ্রামে সেটি শেয়ার করেন প্রিয়াঙ্কা। সহকর্মীকে ভবিষ্যৎদ্রষ্ট্রা ও মানবদরদী হিসেবে আখ্যা দিয়ে প্রিয়াঙ্কা লিখেছেন, ‘আমার সহকর্মী সোনু সময়ের থেকে এগিয়ে ভাবে এবং পরিকল্পনা করে। এর প্রভাব অনেক দূর পর্যন্ত থাকবে। এটাতে বিশেষত শিশুরা জড়িত। যে সব শিশুরা করোনায় বাবা অথবা মা, অথবা দু’জনেই হারাচ্ছে, এই ব্যবস্থা তাদের জন্য করতে অনুরোধ করা হচ্ছে। হয়তো এই ক্ষতির ফলে আজীবনের জন্য তাদের পড়াশোনা বন্ধ হয়ে যাবে। কারণ এর সঙ্গে আর্থিক বিষয়ও জড়িত।’


শিশুদের ভবিষ্যৎ পড়াশোনা কীভাবে হবে, সেটি নিয়ে সোনুর ভাবনা দেখে মুগ্ধ প্রিয়াঙ্কা। এই অভিনেত্রী লিখেছেন, ‘শুধু সরকার নয়। আমি সকলকে অনুরোধ করব। এই বিষয়ে যে সাহায্য করতে পারবেন, এগিয়ে আসুন, সেটাই অনেক বড় বিষয়। সম্ভব হলে একজন শিশুর পড়াশোনার দায়িত্ব নিন। সোনুর প্রস্তাবের সঙ্গে আমি সহমত। যাতে সকল শিশু শিক্ষা পায়, সে বিষয়ে আমিও যথাসম্ভব চেষ্টা করব। একটা ভাইরাস একটা প্রজন্মের পড়াশোনা শেষ করে দেবে, সামাজিক ভাবে এটা আমরা মেনে নিতে পারি না।’


গত বছর করোনার প্রাদুর্ভাব বেড়ে যাওয়ায় লকডাউন শুরু হলে খেটে খাওয়া মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছিলেন সোনু। ভারতের বিভিন্ন অঞ্চল থেকে আসা শ্রমিক, যারা লকডাউনে মুম্বাইয়ে আটকা পড়েছিলেন তাদের বাড়ি ফিরিয়েছেন। এরপর নানাভাবেই মানুষের প্রয়োজন মিটিয়েছেন তিনি। চলতি বছরও মানুষের পাশে রয়েছেন এই অভিনেতা। সম্প্রতি পুরো একটি গ্রামের রেশনের ব্যবস্থা করার অঙ্গীকার করেছেন সোনু সুদ।

ads
ads

করোনা পরিস্থিতি বাংলাদেশ

২৪ ঘণ্টায় মোট
পরীক্ষা ১৬৮৪৮ ৫৬৪৭৭৪২
আক্রান্ত ১৫১৪ ৭৭৫০২৭
সুস্থ ২১১৫ ৭১২২৭৭
মৃত ৩৮ ১১৯৭২

Our Facebook Page