ঢাকা, শুক্রবার, ২৩ অক্টোবর, ২০২০

পূর্ণাঙ্গ কমিটি নেই, তাই ‘হিমশিম’ ত্রাণ বিতরণে

<p>আওয়ামী লীগের সহযোগী সংগঠনের মধ্যে কৃষক লীগ, শ্রমিক লীগ, স্বেচ্ছাসেবক লীগ, যুবলীগ ও মৎস্যজীবী লীগ চলছে দুজন করে নেতার নেতৃত্বে। এই পাঁচ সংগঠনের কোনোটাতেই নেই পূর্ণাঙ্গ কমিটি। এছাড়া ঢাকা মহানগর উত্তর ও দক্ষিণ আওয়ামী লীগেও পূর্ণাঙ্গ কমিটি ঘোষণা হয়নি। একই অবস্থা ঢাকা মহানগর উত্তর-দক্ষিণ স্বেচ্ছাসেবক লীগেও। ফলে করোনাভাইরাস সংকটে মাঠের কার্যক্রম বাস্তবায়ন ও সমন্বয়ে হিমশিম খেতে হচ্ছে সংগঠনগুলোর শীর্ষ নেতাদের।</p><p><br></p><p>পূর্ণাঙ্গ কমিটি না থাকায় সঠিকভাবে দায়িত্ব বণ্টনও করা যাচ্ছে না। কেউ কেউ বিগত কমিটি বা নতুন খসড়া কমিটির নেতাদের সমন্বয়ে দায়িত্ব পালনের চেষ্টা করলেও অফিসিয়াল পদপদবি না থাকায় তাদের পড়তে হচ্ছে নানা বিড়ম্বনায়।</p><p><br></p><p>সহযোগী সংগঠনের নেতাদের মতে, করোনাভাইরাস সংকটের এই সময়ে পূর্ণাঙ্গ কমিটি থাকলে সারাদেশে তাদের কর্মসূচি আরও গতিশীল হতো। তবে আওয়ামী লীগের নীতিনির্ধারণী পর্যায়ের নেতারা বলছেন, এই মুহূর্তে কমিটি গঠনকে তারা ‘গুরুত্ব’ দিতে চান না। করোনাভাইরাসের বিরুদ্ধে কাজ করাই তাদের প্রধান দায়িত্ব।</p><p><br></p><p>এ বিষয়ে জানতে চাইলে আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সমস্য লে. কর্নেল (অব.) মুহম্মদ ফারুক খান বলেন, আমরা জনগণের জন্য রাজনীতি করি। এই সংকটেও আওয়ামী লীগের সহযোগী সংগঠনগুলো জনগণের পাশে দাঁড়িয়েছে। একটা কথা মনে রাখতে হবে, আওয়ামী লীগ ও তার সহযোগী সংগঠনে কিন্তু প্রচুর প্রতিযোগিতা হয়। যেকোনো কমিটি করতে গেলে অনেক প্রার্থী থাকে। তবে হ্যাঁ, এটাও সত্য যে, পূর্ণাঙ্গ কমিটি যখন হবে তখন আরও বেশি ভালো হবে। দল আরও বেশি শক্তিশালী হবে। এটা নিয়ে কোনো সন্দেহ নেই। তবে এই মুহূর্তে আমরা মনে করছি, করোনাভাইরাসের বিরুদ্ধে কাজ করাই আমাদের প্রধান দায়িত্ব। সূতরাং এখন কোনো সংগঠনের কমিটি করার বিষয়ে আমরা প্রায়োরিটি (প্রাধান্য) দিতে চাই না।</p><p><br></p><p>গত বছরের নভেম্বরে আওয়ামী লীগের সহযোগী সংগঠন কৃষক লীগ, শ্রমিক লীগ, স্বেচ্ছাসেবক লীগ, যুবলীগ ও মৎস্যজীবী লীগের জাতীয় সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। প্রায় একই সময় অনুষ্ঠিত হয় ঢাকা মহানগর উত্তর ও দক্ষিণ আওয়ামী লীগের সম্মেলন। পরে সংগঠনগুলোকে সাতদিনের মধ্যে পূর্ণাঙ্গ কমিটি ঘোষণার জন্য বলা হয় কিন্তু এখনও পূর্ণাঙ্গ কমিটি হয়নি। তবে কৃষক লীগ, শ্রমিক লীগ ইতোমধ্যে তাদের পূর্ণাঙ্গ কমিটির খসড়া আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে জমা দিয়েছেন বলে দাবি সংগঠনগুলোর। এছাড়া পূর্ণাঙ্গ খড়সা প্রস্তুত করে রেখেছে স্বেচ্ছাসেবক লীগও। আর যুবলীগ পদপ্রত্যাশীদের জীবনবৃত্তান্ত সংগ্রহ করেছে। তবে করোনাভাইরাস প্রাদুর্ভাব দেখা দেয়ার পর সকল সাংগঠনিক কাজের সঙ্গে এই কাজও বন্ধ হয়ে গেছে।</p><p><br></p><p>খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, করোনাভাইরাস সংকটে মূল দল আওয়ামী লীগের সঙ্গে সকল সাংগঠনিক কর্মসূচি স্থগিত রেখেছে সহযোগী সংগঠনগুলোও। পাশাপাশি এই পরিস্থিতি মোকাবিলায় আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশে অসহায়দের মাঝে খাদ্যসামগ্রী বিতরণসহ জনসচেতনতামূলক কাজ করছেন তারা। এছাড়া সংকটের এই সময়ে চলতি বোরো মৌসুমে কৃষকের ধান কাটার কাজে সহযোগিতা করতেও নানা কর্মসূচি হাতে নিয়েছে সংগঠনগুলো। আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে ওয়ার্ডপর্যায়ে ত্রাণ কমিটিতেও রাখা হচ্ছে সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীদের। কিন্তু এসব কাজের সমন্বয় করতে গিয়ে বেকায়দায় পড়তে হচ্ছে সংগঠনগুলোর। করোনাভাইরাস সংকট মোকাবিলায় এই সময়ে সারাদেশের সব ইউনিটের সঙ্গে মূলত শীর্ষ দুই নেতাকেই যোগাযোগ রাখতে হচ্ছে।</p><p><br></p><p>নাম প্রকাশ না করে এক সহযোগী সংগঠনের শীর্ষ নেতা বলেন, ‘সারাদেশের সঙ্গে যোগাযোগ রাখতে হচ্ছে। এই কঠিন সময়ে পূর্ণাঙ্গ কমিটি থাকলে সমস্যা হতো না। কিন্তু এখন তো কিছুই করার নেই। সত্যি বলতে কী, ফোনে কথা বলতে বলতে গলা দেবে গেছে।’</p><p><br></p><p>সংগঠনগুলোর আগের কমিটিতে ছিলেন এমন কেন্দ্রীয় পর্যায়ের বেশ কয়েকজন নেতার সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, তারাও কাজ করতে গিয়ে সমস্যায় পড়ছেন। তাদের মতে, কেন্দ্রীয় কমিটিতে পদপদবি না থাকলে সমন্বয় করতে গিয়ে নানা ধরনের বাধার সম্মুখীন হতে হচ্ছে। কারণ কেন্দ্রীয় কমিটিতে তাদের যেমন পদপদবি নেই, তেমনি আনুষ্ঠানিকভাবে তাদের কোনো দায়িত্বও দেয়া হয়নি।</p><p><br></p><p>এ বিষয়ে জানতে চাইলে বাংলাদেশ কৃষক লীগের সভাপতি কৃষিবিদ সমীর চন্দ্র বলেন, প্রধানমন্ত্রীর আহ্বানে সাড়া দিয়ে আমাদের কৃষক লীগের সবাই একেকজন কর্মী হিসেবে কাজ করছি। এছাড়া আমাদের জেলা-উপজেলা কমিটি তো আছেই। সূতরাং আমার কাজ করছি। তবে পূর্ণাঙ্গ কমিটি থাকলে আমাদের কাজের সমন্বয়টা আরও বেশি ভালো হতো।</p><p><br></p><p>একই বিষয়ে আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি নির্মল রঞ্জন গুহ বলেন, আমাদের পূর্ণাঙ্গ কমিটির খড়সা ইতোমধ্যে জমা দিয়ে দিয়েছি। আগের কমিটির নেতাদের মধ্যে দু-একজন বাদে সবাই সক্রিয়। আমরা তাদের সঙ্গে নিয়ে সমন্বয় করে কাজ করছি।</p><p><br></p><p>জানতে চাইলে মৎস্যজীবী লীগের সাধারণ সম্পাদক শেখ আজগর লস্কর বলেন, আমরা বসে নেই। এই সংকটে মৎস্যজীবী লীগ বিভিন্ন উদ্যোগ নিয়ে কাজ করে যাচ্ছে। অসহায়দের পাশে দাঁড়াচ্ছে। তবে এটা ঠিক, পূর্ণাঙ্গ কমিটি থাকলে কেন্দ্রীয়ভাবে আমাদের কাজ করতে আরও সুবিধা হতো। কাজের গতি আরও বাড়ত।</p><p><br></p><p>এদিকে আওয়ামী লীগের আরও তিন সহযোগী সংগঠন মহিলা আওয়ামী লীগ, যুব মহিলা লীগ ও তাঁতী লীগের মেয়াদও শেষ হয়েছে। একমাত্র ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির মেয়াদ আছে এবং তাদের পূর্ণাঙ্গ কমিটিও আছে। করোনাভাইরাসের এই সংকটে সংগঠনটি (ছাত্রলীগ) নানা কর্মসূচি নিয়ে মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছে। করোনা প্রতিরোধসামগ্রী বিতরণ, অসহায়দের মাঝে খাদ্যসামগ্রী বিতরণের পাশাপাশি সমন্বিতভাবে সারাদেশের কৃষকের ধান কেটে দেয়ার কাজও করছে সংগঠনটির নেতাকর্মীরা। আওয়ামী লীগ সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নিজেও তাদের (ছাত্রলীগ) কর্মকাণ্ডের প্রশংসা করেছেন।</p>

করোনা পরিস্থিতি বাংলাদেশ

২৪ ঘণ্টায় মোট
পরীক্ষা ১৪৯৫৮ ২২২১৩৬৯
আক্রান্ত ১৬৯৬ ৩৯৪৮২৭
সুস্থ ১৬৮৭ ৩১০৫৩২
মৃত ২৪ ৫৭৪৭

Prayer Times

Calender

Printcal.net Calendar Widget

Our Facebook Page