ঢাকা, সোমবার, ২৬ অক্টোবর, ২০২০

ডিএমপির শাহ্ আলী থানার এসআই মতিউরের বিরুদ্ধে অভিযোগের পাহাড়

বৈশ্বিক মহাদুর্যোগ করোনা ভাইরাস পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে পুলিশের ইতিবাচক ভূমিকায় প্রমান হয়েছে-পুলিশ দেশের আইনের রক্ষক, জনগনের বন্ধু। এদেশের সর্বস্তরের জনগনের জানমালের রক্ষক হিসেবে নিয়োজিত তারা।করোনা ভাইরাস সংক্রমণরোধে ইতোমধ্যে আমাদের দেশের পুলিশ বাহিনী তাদের পরিশ্রম,সাহসিকতা,মহানুভবতা, দায়িত্বশীলতা ও নিষ্ঠার সাথে দায়িত্ব পালনের পাশাপাশি রাষ্ট্রীয় ও আন্তর্জাতিক ভাবে ব্যাপক সুনাম অর্জন করেছে।

কিছুদিন আগেও পুলিশের কথা শুনলেই সাধারণ মানুষ মুখ ফিরিয়ে নিলেও করোনা পরিস্থিতিতে পুলিশের ইতিবাচক ভূমিকায় দেশের সকল জনগোষ্ঠীর গণমানুষের মনে আজ পুলিশকে ঘিরে গভীর শ্রদ্ধা, ভালোবাসা ও সম্মানের জন্ম দিয়েছে। অপরদিকে পুলিশ ডিপার্টমেন্টে কর্মরত দুই একজন অসৎ, অর্থলোভী,ঘুষখোর ও দায়িত্ব জ্ঞানহীন পুলিশ সদস্যের অপকর্মের খবরে ম্লান হয়ে যাচ্ছে সেই অর্জিত সাফল্য ও সামগ্রিক সুনাম। সাধারণ জনগনের মনে পুলিশের বিরুদ্ধে নেতিবাচক ধারনার সৃষ্টি করছে। এমনই একজন পুলিশ অফিসার ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) মিরপুর বিভাগের শাহ্ আলী থানা পুলিশের এস.আই মতিউর রহমানের বিরুদ্ধে অভিযোগের অন্ত নেই। দীর্ঘদিন একটানা এই শাহ্ আলী থানাতে কর্মরত থাকার সুযোগটাকে কাজে লাগিয়ে থানা এলাকাজুড়ে নানা ভাবে তিনি ব্যক্তিগত ত্রাসের রাজত্ব কায়েম করতে চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন। এলাকার চিহ্নিত কুখ্যাত মাদক ব্যবসায়ীদের প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে মদদ দেয়া, নিজের পোষ্য সোর্সদের দ্বারা আসামী ধরা ছাড়ার বানিজ্য ও নিরীহ মানুষকে অযথা গ্রেপ্তার করে বিভিন্ন মামলায় জড়িয়ে জেলে পাঠানোর ভয় দেখিয়ে অর্থ আদায়সহ নানা অভিযোগে এই পুলিশ অফিসারের নামটি গোটা থানা এলাকার সকল মহলেই ব্যাপক সমালোচিত । রক্ষকই যদি ভক্ষক হয় তবে সাধারণ জনগণ কার কাছে যাবে? এসআই মতিউর রহমান টানা কয়েক বছর একই থানাতে কর্মরত থাকার সুবাদে থানা এলাকার চিহ্নিত মাদক ব্যবসায়ী, জুয়ারী ও জুয়ার বোর্ডের মালিক, স্থানীয় ছিনতাইকারী সিন্ডিকেট ও চিহ্নিত সোর্সদের সাথে মাত্রাধিক সখ্যতা ও গভীর সম্পর্ক গড়ে ওঠার ফলে তিনি নানা অপকর্মের সাথে জড়িয়ে পড়েছেন। তার নিকট কোনো অভিযোগ আসলেই বাদী-বিবাদী উভয় পক্ষকে ভয়ভীতি দেখিয়ে মোটা অংকের অর্থ হাতিয়ে নেয়ার কৌশলে তার কোনো জুড়ি নেই! ফলে শাহ্ আলী থানার স্টাফসহ এলাকার সকলের নিকট তিনি একজন চরম অপছন্দের পুলিশ অফিসার হিসেবে পরিচিত ও ব্যাপকভাবে সমালোচিত। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক থানা এলাকার গোদারাঘাটের এক চিহ্নিত মাদক ব্যবসায়ী অভিযোগ করে বলেন,আমাকেও এই এসআই মতিউর একাধিকবার গ্রেপ্তার করে আমার কাছে কোনো মাদক দ্রব্য না পেয়েও হেরোইনের মামলা দিয়ে জেলহাজতে পাঠানোর ভয় দেখিয়ে পাঁচ লাখ টাকা দাবি করেন। তাছাড়া তার মদদ দেওয়া মাদক ব্যবসায়ীদের ব্যবসা নির্বিঘ্নে চালাতে একই এলাকার অন্যান্য মাদক ব্যবসায়ীদের নানা ভাবে হয়রানীসহ মোটা অংকের অর্থও হাতিয়ে নেন তিনি। থানা এলাকার চিহ্নিত মাদক ব্যবসায়ীদেরকে নিজস্ব পোষ্য সোর্সদের মাধ্যমে গ্রেপ্তার করে থানায় না এনে নিজের আয়ত্বে রেখে দৈনিক, সাপ্তাহিক, পাক্ষিক ও মাসিক নির্ধারিত অর্থ প্রদানের চুক্তিতে ছেড়ে দেয়ার পাশাপাশি মাদকের স্পটগুলিকে নিজের নিয়ন্ত্রনে নিয়ে নেয়ার অভিযোগও উঠেছে তার বিরুদ্ধে। বিভিন্ন মাদকের স্পটের মালিকদের সাথেও তার গভীর সম্পর্ক তৈরি হওয়ায় চিহ্নিত মাদক ব্যবসায়ীরাও অতিরিক্ত সুবিধা ভোগ করছে পুলিশের নিকট থেকে। শাহ্ আলী থানার ২০০ গজ অদূরে এসআই মতিউরের মদদে ধুমচে প্রকাশ্যেই বিক্রি হচ্ছে মাদকদ্রব্য। মিরপুরের হযরত শাহ আলী (রঃ) মাজার শরীফের সামনে মাছবাজারের মতো পথচারীদেরকে গলা ফাটিয়ে 'এই কয়টা, এই কয়টা' বলে ডেকে ডেকে প্রকশ্যে বিক্রি হচ্ছে বিভিন্ন প্রকার মাদক দ্রব্য। এমনকি এসকল মাদকস্পটে মাদক সেবন করতে আসা কিছু ধনাঢ্য পরিবারের ক্রেতাগনের নিকট মাদক দ্রব্য বিক্রি করেই ওই মাদক ব্যবসায়ী আগে থেকেই ওৎ পেঁতে থাকা এসআই মতিউরকে কৌশলে ধরিয়ে দেন। তিনি তাদেরকে গ্রেপ্তার করে মোটা অংকের অর্থের বিনিময়ে ছেড়ে দিলে ওই মাদক ব্যবসায়ীও আদায়কৃত অর্থের নির্ধারিত একভাগ পেয়ে থাকেন। এমনকি থানা এলাকায় সামান্য হাতাহাতি, মারামারি, পারিবারিক দ্বন্দ্ব যাই ঘটুক না কেন; তার নিজস্ব সোর্সরা তাকে খবর দিলেই সেখানে হাজির হয়ে নানা ভাবে অসদুপায়ে অর্থ আদায় করেন তিনি। তার বিরুদ্ধে এরকম অনেক প্রমানই রয়েছে। গত ৭ জুন মিরপুরের কাঁচাবাজার আড়ৎ সংশ্লিষ্ট এমনই এক ঘটনায় সংবাদ প্রকাশের প্রয়োজনে পেশাগত দায়িত্ব পালনকালে দৈনিক সংবাদ প্রতিদিন পত্রিকার সাংবাদিক এনামুল হক ইমন শাহআলী থানায় উপস্থিত হলে এস.আই মতিউর তাকে লাঞ্ছিত করার পাশাপাশি তাকে অযৌক্তিক ও আইনবহির্ভূত গ্রেপ্তার করে লকআপে ঢুকিয়ে দেয়ার হুমকী প্রদান করেন। এঘটনায় সাংবাদিক এনামুল হক বাদি হয়ে ডিএমপির মিরপুর বিভাগের উপ-পুলিশ কমিশনারের বরাবর লিখিত অভিযোগ দায়েট করেন । এবিষয়ে ভুক্তভোগী সাংবাদিক এনামুল হক বলেন, আমরা অপে

ক্ষায় রয়েছি ডিসি সাহেবের বিচারের ফলাফল দেখতে। অভিযুক্ত এসআই মতিউরের অপরাধের সুষ্ঠু বিচার না পেলে সকল সাংবাদিকদের নিয়ে পুলিশের উর্ধতন মহলের দারস্থ হতে বাধ্য হবো।

নানা অসংগতিপূর্ণ ও অনাকাঙ্ক্ষিত আইনবহির্ভূত ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে শাহ আলী থানা এলাকায় বসবাসরত সকল শ্রেনীর জনগোষ্ঠীর সকলের নিকট এসআই মতিউর রহমান এক মূর্তিমান আতঙ্কের নাম। এ প্রসঙ্গে ডিএমপির মিরপুর বিভাগের উপ-পুলিশ কমিশনার (ডিসি) মোস্তাক আহমেদের সাথে মুঠোফোনে যোগাযোগ করে তার বক্তব্য জানতে চাইলে তিনি বলেন, বিষয়টি আমার জানা নেই। কোন অভিযোগ থাকলে আপনি আমার অফিসে এসে আমাকে খুলে বলেন। সুনির্দিষ্ট অভিযোগ পেলে অপরাধী যেই হোক না কেনো, কোনো ছাড় দেয়া হবে না। আইনের আওতায় এনে যথাযোগ্য শাস্তির ব্যবস্থা করা হবে।

করোনা পরিস্থিতি বাংলাদেশ

২৪ ঘণ্টায় মোট
পরীক্ষা ১১১০৩ ২২৫৭৫৮৯
আক্রান্ত ১০৯৪ ৩৯৮৮১৫
সুস্থ ১৫৪৪ ৩১৫১০৭
মৃত ২৩ ৫৮০৩

Prayer Times

Calender

Printcal.net Calendar Widget

Our Facebook Page