ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২৪ জুন, ২০২১

বস্তিবাসীর জন্য দীর্ঘস্থায়ী ব্যবস্থা অবশ্যই সরকারকে পরিকল্পনা নিতে হবে : মির্জা ফখরুল

ছিন্নমূল বস্তিবাসীর জন্য দীর্ঘস্থায়ী ব্যবস্থা কী করা যায়, তার জন্য অবশ্যই সরকারকে পরিকল্পনা নিতে হবে বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। তিনি বলেন, ‘সরকারের প্রথম অগ্রাধিকার হওয়া উচিত তাদের (বস্তিবাসী) বাসস্থানের ব্যবস্থা করা। যারা ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন, তাদের পর্যাপ্ত ক্ষতিপূরণ দিতে হবে। কী কারণে আগুন লাগল, কেন লাগল, এ ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত করতে হবে।’ মঙ্গলবার (৮ জুন) সকালে মহাখালী গতকাল আগুনে পুড়ে যাওয়া সাততলা বস্তি পরিদর্শন শেষে সংবাদমাধ্যমকে তিনি এসব কথা বলেন।বিএনপির মহাসচিব বলেন, ‘এখানে যারা বাস করেন, তাদের কেউ গৃহপরিচারিকার কাজ করেন, কেউ রিকশা চালান, কেউ জুতো পোলিশ করেন। একেবারেই বাস্তুহারা ছিন্নমূল মানুষ বস্তিতে বসবাস করেন। আজকে স্বাধীনতার ৫০ বছর হয়ে গেল, দুর্ভাগ্য আমরা সবার জন্য অন্ন, বস্ত্র, বাসস্থানের ব্যবস্থা করতে পারিনি।’


বস্তিবাসীর উদ্দেশে মির্জা ফখরুল ইসলাম বলেন, ‘আমাদের সঙ্গে আপনাদের এ এলাকার সাবেক মেয়রপ্রার্থী তাবিথ আউয়াল আছেন। যদিও সরকারের নির্বাচন কমিশন তাদের হারিয়ে দিয়েছে। তারপরও জনগণের নির্বাচিত মেয়র তাবিথ। আমি আশা করি, দু-এক দিনের মধ্যে ক্ষতিগ্রস্ত মানুষের জন্য সামান্য হলেও দেশনেত্রী খালেদা জিয়া ও ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের পক্ষ থেকে সহায়তা করবে।’


উল্লেখ্য, সোমবার (৭ জুন) ভোর ৫টার দিকে মহাখালী সাততলা বস্তিতে আগুন লাগে। আগুন লাগার পরই ফায়ার সার্ভিসের ১৮টি ইউনিট ঘটনাস্থলে পৌঁছায়। দীর্ঘ দুই ঘণ্টার প্রচেষ্টায় সকাল ৭টার দিকে আগুনে নিয়ন্ত্রণে আসে।


ভয়াবহ এই আগুন নেভাতে পার্শ্ববর্তী জনস্বাস্থ্য ইনস্টিটিটিউট, সংক্রামক ব্যাধি হাসপাতালসহ বিভিন্ন জলাশয় থেকে পানি এনেছেন ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা। তবে বাতাসে আগুন দ্রুত চারদিকে ছড়িয়ে পড়ায় আগুন নিয়ন্ত্রণে আনতে হিমশিম খেতে হয়। সাততলা বস্তিতে প্রায় ৪ থেকে সাড়ে ৪ হাজার ঘর ছিল। বেশিরভাগ স্থাপনাই এখন এক ধ্বংসস্তূপে পরিণত হয়েছে।

ads
ads

করোনা পরিস্থিতি বাংলাদেশ

২৪ ঘণ্টায় মোট
পরীক্ষা ২২২৬২ ৬৩২৭৭৩৪
আক্রান্ত ৫,৭২৭ ৮৬৬,৮৭৭
সুস্থ ৩,১৬৮ ৭৯১,৫৫৩
মৃত ৮৫ ১৩,৭৮৭

Our Facebook Page