ঢাকা, রবিবার, ১ আগস্ট, ২০২১

রগুনায় রেজাল্টশীট পরিবর্তন ও ভােট চুরির অভিযােগে আওয়ামিলীগ প্রার্থীর সংবাদ সম্মেলন

রগুনা সদর উপজেলার ৫ নং আয়লা পাতাকাটা ইউনিয়নে ভোট কারচুপি ও ফলাফল পরিবর্তনের অভিযোগে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী এম. মজিবুল হক কিসলুর সংবাদ সম্মেলন। বৃহস্পতিবার দুপুরে বরগুনার সাংবাদিক ইউনিয়নের সম্মেলন কক্ষে এ সংবাদ সম্মেলন করেন তিনি।


সংবাদ সম্মেলনে এম.মুজিবুল হক কিসলু বলেন,  আমি জনগনের ভােটে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছি। ৯ টি ভােট কেন্দ্রের ফলাফলে আমি বিজয়ী। রাত ১০ টার দিকে স্বতন্ত্র মােশাররফ হােসেনের বড় ভাই জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মােঃ দেলােয়ার হােসেন ৯ নং পূর্ব কেওড়াবুনিয়া দাখিল মাদ্রাসা কেন্দ্রের দায়িত্বরত প্রিজাইডিং অফিসার মােঃ জাকারিয়া হােসেনকে বাধ্য করে ফলাফল হেরফের করে যা কাম্য ছিল না। ওই ভােট কেন্দ্রে স্বত্র প্রার্থী মােঃ মােশাররফ ঘােড়া মার্কায় ভােট পেয়েছে ১ হাজার ৯ ভােট। কেন্দ্রের ফলাফলে প্রিজাইডিং অফিসার কাটা ছেড়া করে আমার পােলিং এজেন্টকে দেয়া প্রাপ্ত ফলাফলে আমি ২৩৭ ভােট বেশী পেয়ে বিজয়ী হই। স্বতন্ন প্রার্থী মােশাররফ হােসেন এর আপন বড় ভাই দেলােয়ার হােসেন ২১ জনু রাতে ৯ নং পূর্ব কেওড়াবুনিয়া দাখিল মাদ্রাসায় ভােট কেন্দ্রে দায়িত্বরত প্রিজাইডিং অফিসারকে বাধ্য করে ঘােড়া মার্কায় ১১ শত ৯ ভােট দেখায়। ৮ নং পূর্ব কেওড়াবুনিয়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় দায়িত্বরত প্রিজাইডিং অফিসার মাওলানা

মােঃ মিজানুর রহমান অধ্যক্ষ চরকগাছিয়া ফাজিল মাদ্রাসা আমার নৌকা মার্কায় ভােট ঘােড়া

মার্কায় যােগ করে ২৫০ ভােট দেখায়। অথচ ঘােড়া মার্কায় ভােট পেয়েছে ১০০ ভােট। তারপরও

আমি ৩৯০৮ ভােট পেয়ে বিজয়ী হয়েছি। স্বতন্ত্র প্রার্থী মােঃ মােশাররফ হােসেন পেয়েছে ৩৬৭১

ভােট। জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মােঃ দেলােয়ার হােসেন বরগুনা উপজেলা পরিষদের হল রুমে

বসে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও উপজেলা চেয়ারম্যানকে সঙ্গে নিয়ে ফলাফল পরিবর্তন করে

আমার বিজয় ছিনিয়ে নেয়। এছাড়াও শান্তিপ্রিয় নৌকা মার্কার কর্মী সমর্থকদের উপর অত্যাচার করে ঘর বাড়ী ভাংচুর করে। দোকান ঘর লুটপাট করে। মােশাররফ বাহিনীর ভয়ে এলাকার নৌকার কর্মীরা গ্রাম ছেড়ে পালিয়ে বেড়ায়। ২১ জুন মধ্য রাত হতে মােশাররফ বন্ড নামে খ্যাত আয়লা পাতাকাটা ইউনিয়নে যে ভাবে তান্ডব চালায় তা বিশ্ব বিবেক হতৰাগ। সত্তার নামে এক মুসুল্লীকে মসজিদে সেজদারত অবস্থায় কুপিয়ে মারাত্মক রক্তাক্ত জখম করে। এখন বরগুনা হাসপাতালে ভর্তী আছে। ইদ্রিসকে মসজিদের মধ্যে পিটাইয়া হাত পা থেতলে দেয়। দুলু বেগম নামের এক মহিলাকে নৌকা করার অপরাধে মারধর করে। নান্টুর বােনের বাড়িতে বুধবার গভীর রাতে ঘুমান্ত নারীদের উপর হামলা করে ভাংচুর করে। এই সবের মদদ দেয় বরগুনা জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান দেলােয়ার হােসেন। আমাদের ইউনিয়নের নৌকার কর্মী সমর্থক শান্তিতে থাকতে চায়। এ ব্যপারে মাননীয় প্রধান

মন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করি।


আপনাদের মাধ্যমে দেশ বাসিকে জানাতে চাই, বরগুনা জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মােঃ দেলােয়ার হােসেন সরকারী বেতন ভাতা ভােগ করেন। সরকারী গাড়ী ব্যবহার করেন। মাননীয়

প্রধান মন্ত্রীর মনােনয়ন নিয়ে জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান হয়ে আওয়ামীলীগের মনােনীত প্রার্থী


এম, মজিবুল হক কিসলুর বিরােধীতা করে দলের সঙ্গে বেঈমানী করে ভােট চুরির মাধ্যমে তার ভাইকে জয়ী করেছে। দুই প্রিজাইডিং অফিসার যে কাজটি করেছেন তা দুঃখজনক।

ads
ads

করোনা পরিস্থিতি বাংলাদেশ

২৪ ঘণ্টায় মোট
পরীক্ষা ৫২৪৭৮ ৭৬১২৫৮৮
আক্রান্ত ৯,৩৬৯ ১,২৪৯,৪৮৪
সুস্থ ১৪,০১৭ ১,০৭৮,২১২
মৃত ২১৮ ২০,৬৮৫

Our Facebook Page