ঢাকা, রবিবার, ১ আগস্ট, ২০২১

প্রানঘাতি করোনা ভাইরাসে স্বজন হারানোর স্মৃতিচারণ

"মোজাম্মেল ও আমি" প্রথমতঃ ডাঃ মোজাম্মেল হক, পিতা মরহুম মোমতাজ উদ্দিন মেম্বার, গ্রাম -হারিশ্বর,পোঃ জাটিয়া,থানা  ঈশ্বরগঞ্জ,জেলা  ময়মনসিংহ,করোনা আক্রান্ত হয়ে  গতকাল  রাত ৮.০০ ঘটিকায় ময়মনসিংহ  মেডিকেল  কলেজ  হাসপাতালে ইন্তেকাল  করেছেন।  সংবাদটি আমি ফেইসবুকের মাধ্যমে পাইএবং কিছুক্ষন পর তার  ছবিটাও দেখতে পেয়ে নিশ্চিত  হই।  আমি" ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না  ইলাইহি রাজিয়ুন পড়ি"।  সাথে সাথে দোয়া করি, আল্লাহ রাব্বুল আলামিন যেন  তাঁকে  শহীদের  মর্যাদা  দান করেন।
মোজাম্মেল তার ছবির মায়াবী মুখের ভাষায মনে হলো আমার থেকে  বিদায় নিয়ে বলে  গেলো  কাকা আমি  চলে গেলাম।  ক্ষমা করবেন এবং  তার বিদায় বেলায়  আমার  কাছে আরও মনে হলো যে, সে আমাকে বলছে  কাকা আমি ত   গেলাম  আপনিও  আসেন।  যাক, মোজাম্মেল  আত্মীয়তা সম্পর্কে আমার  আম্মার দিক থেকে  ভাতিজা হিসেবে  আমার  প্রতি  তার গভীর  ভালোবাসা ও শ্রদ্ধা  দুটোই ছিল ।  অর্থাৎ  আমাকে অনুকরণ করে  তা সে নিজের  মধ্যে  বাস্তবায়ন  করতো।  আজ মনে পড়ে সেই ১৯৮৮ সনের  কথা।  আমি  তখন এল-এল,বি ফাইনাল পরীক্ষার্থী। পাশাপাশি  ময়মনসিংহ  টিচার্স  ট্রেনিং কলেজে এম এ ইন এডুকেশন  ক্লাসের ছাত্র  হিসেবে ওই কলেজ থেকে ছাত্র  সংসদের  ভিপি  নির্বাচিত হয়েছি।  সংবাদ  পেয়ে  এলাকায়  অনেক  বন্ধু  বান্ধব  আমাকে অভিনন্দন জানায় ।  প্রসংগক্রমে বলতেই  হবে  যে,আমার  পিতা  একজন আদর্শ শিক্ষকএবং শিক্ষানুরাগী ব্যক্তি  ছিলেন। তাঁর  নির্দেশ  ও  দয়া দাক্ষিণ্যে তখন আমার  নিজ গ্রাম  পিতাম্বর পাড়ায় সবে একটি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও একটি  মাধ্যমিক  পর্যায়ের মাদ্রাসা স্থাপন করি । এতে  একজন তরুণ  সমাজ  কর্মী  হিসেবে   মোজাম্মেলের বাবা মোমতাজ  ভাইসহ এলাকার গণ্যমান্য  ব্যক্তিবর্গ  প্রায়  সকলেই  আমাকে অত্যন্ত  স্নেহের  চোখে দেখতেন এবং  উত্সাহ ও দিতেন।  আমাদের  আর মোজাম্মেল বাড়ি খুব যে দুরে তা কিন্তু নয়,  হেটে  গেলে হয়তো বিশ মিনিটের  রাস্তা।   আমি  মোজাম্মেলদের বাড়ির   কাছে  ঐতিহ্যবাহী জাটিয়া উচ্চ বিদ্যালয়ের ছাত্র হিসেবে  সেখানে  অষ্টম শ্রেণি পর্যন্ত লেখাপড়া করেছিলাম।  যে কারণে জাটিয়ার প্রতি আমার   হৃদয়ে সম্পর্ক জড়িয়ে  ছিল।  তখন ১৯৮৯ সন থানা সদরেরও ৮/১০ কিলোমিটার  ভিতরে রাস্তা ঘাটের  দুরবস্থার কারণে  গ্রামের  দরিদ্র  ও অসহায়  মানুষের  চিকিৎসা  ছিল অত্যন্ত  দূর্লভ। বিশেষকরে,  জেলা শহরের  বাইরে  গ্রামে চক্ষু  চিকিৎসার  অভাবে   বয়ষ্ক নারী পুরুষগন অন্ধত্ব  বরণ করায়  তাদের  জীবন  বিপন্ন  হয়ে  পড়তো।  

দ্বিতীয়ত: অতঃপর  আমি  বাংলাদেশের জাতীয় অন্ধ কল্যাণ  সমিতি  ময়মনসিংহের সহযোগিতার  আমি   উক্ত  জাটিয়া  উচ্চ  বিদ্যালয় প্রাংগনে বিনামূল্যে চক্ষু চিকিৎসার জন্য সাত ( ৭)দিন ব্যাপী" জাটিয়া  চক্ষু চিকিৎসা ক্যাম্প /৮৯ইং"পরিচালনার জন্য সিদ্ধান্ত  গ্রহণ  করি। সমিতির  শর্ত ছিল  স্থানীয় ভাবে  অন্তত  পাঁচ হাজার  রোগীর আয়োজন করে ডাক্তার , নার্স, ষ্টাফ ও রোগীদের থাকা  খাওয়ার  ব্যবস্থা  করতে হবে।  শুধু চিকিৎসার ব্যবস্থা ও রোগীদের চশমা সমিতির  পক্ষ থেকে  দেওয়া  হবে।  প্রাথমিকভাবে অনুমান  করলাম  মিনিমাম একলক্ষ   টাকা প্রয়োজন। আমি বেকার । এতো টাকা আমার পক্ষে যোগাড় করা সম্ভব নয়।এলাকায় ক্যাম্প পরিচালনার খবর জানাজানি হয়ে  গেল। মোজাম্মেল  সাহায্যের জন্য এগিয়ে  আসলো। স্হানীয় লোকজন  আলোচনা করে এলাকার সকলস্থরের লোকজন কে নিয়ে আমাকে  সাধারন  সম্পাদক  করে  এবং  প্রবীন ব্যক্তি  সাবেক  সফল  চেয়ারম্যান  জনাব  রইছ উদ্দিন আহমেদ সাহেব কে  সভাপতি  করে কমিটি করা হলো। উক্ত কমিটিতে  ছিলেন সর্ব জনাব ইউপি  চেয়ারম্যান অমরেশ  সরকার দুলু, সোনালী ব্যাংক কর্মকর্তা আবুল কালাম, ডা.চাঁন মিয়া, মোমতাজউদ্দিন মেম্বার,আঃ রহিম মেম্বার, পোষ্ট মাস্টার আঃগনি,  ইয়াকুব  আলী মেম্বার, চানমিয়া মেম্বার, ছাফিল উদ্দিন মেম্বার, আব্দুল  আলী,মফিজ উদ্দিন বয়াতী,  হাবিবুর রহমান প্রধান শিক্ষক জাটয়া সঃপ্রাঃবিঃ,ডাঃ ইদ্রিস আলী,আবুল কাশেম মন্ডল, সিরাজ উদ্দিনখান,আঃগফুর মাস্টার, আঃখালেকমেম্বার,নুরুল  ইসলাম,জাহেদুল ইসলাম,আব্দুল মোতালেব বাচ্চু,আঃমোতালেব,আকবর আলী, বোরহান উদ্দিন , আঃ সামাদ, আবুল কালাম, ও মাওঃফারুক আহমেদ প্রমুখ।

এভাবেই একমাস  পুর্ব থেকে  বিভিন্ন  সাব কমিটিকে দায়িত্ব  বন্টন  করে  দেওয়া  হলো। সাথে  মোজাম্মেলকে প্রধান করে  ৫০ সদস্যের ভলান্টিয়ার গ্রুপ আমাকে সাহায্য করতে  দেওয়া  হলো। শুরু হলো বিশাল  কর্মযজ্ঞ। দিনরাত  পরিশ্রম করে  হাটে  বাজারে ও বাড়ি  বাড়ি   গিয়ে চাল ডাল এবং  নগদ অর্থ  সংগ্রহ করে   চক্ষু শিবিরের কাজ  যথাসময়ে শুরু করায়  এলাকার  নারী, পুরুষ, যুবক, ছাত্র,  শিক্ষক সকলের মনই আনন্দের জোয়ার বইতে  থাকলো। মোজাম্মেল তার ভলান্টিয়ার  গ্রুপ স্কুল  কলেজের ছাত্র শিক্ষক  ও যুবকদের নিয়ে  আমাকে  সর্বাত্মক  সহযোগিতা  করার জন্য  ক্যাম্পে দায়িত্বে থাকা  ডাক্তার, নার্স ও রোগী  সকলকেই সর্বোচ্চ  সেবা দিলো। রাতে অপারেশনকৃত রোগীদের খাবার দাবার  পরিবেশনের  সাথে সাথে বিছানার  অদুরেই নিরাপদ স্থানে  ওয়াসরুমের ব্যবস্থাপনায় মোজাম্মেলের নেতৃত্বে ভলান্টিয়ারদের সেবাদানকার্যে  আনন্দের যে মুহূর্তগুলি আমার চোখে আজও  ভেসে উঠে তা কোনদিন  ভোলার নয়,ভুলতেও  পারবো  না।  এ  যে শুধুই  স্মৃতি! যাক্  সুসম্পন্ন  হলো রোগীদের প্রাথমিক চিকিৎসা  ও বাছাইকৃত প্রায়  ৩০০ রোগীর  ছানি অপারেশন এবং তাদের  মধ্যে   বিতরণ  করা  হলো চশমাসহ কিছু ঔষধপত্রও। তাছাড়া  দূর দুরান্ত  থেকে  আশা  অপারেশনের রোগীদের তিনদিন পর বেন্ডেজ  খোলায় চোখের আলো ফিরে  পেয়ে  সকলের  মুখে  হাসি  ফুটে ওঠে। এ যে এক আনন্দের  বন্যা। ঠিক  সেই মুহুর্তে  আরেক  ভিন্ন  দৃশ্যের  অবতারণা। ক্যাম্প পরিচালনার সমাপ্তির  দিন  রোগীদের বিদায় বেলা। উপস্থিত কমিটির সম্মানিত সকল সদস্যবৃন্দ,ভলান্টিয়ার, রোগী  ডাক্তার  নার্স  সকলের  চোখে পানি । কেউ যেন কাউকে   যেতে নাহি দিতে চাই।  ইতিমধ্যে কমিটি সিদ্ধান্ত  নিলো অপারেশনকৃত রোগীদের  পরবর্তী  ফলোআপের জম্য প্রয়োজনে অসমর্থ ও অসচ্ছল রোগীদের  জন্য সরাসরি  ময়মনসিংহ চক্ষু  হাসপাতালে বিশেষ ব্যবস্থার জন্য মোজাম্মল ও তার ভলান্টিয়াদের কমিটির পক্ষ থেকে সহযোগিতা করা হবে এবং চক্ষু  শিবিরের  কাজের  মুল্যায়ন স্বরূপ  পরবর্তী  সপ্তাহেই ভলান্টিয়ারদের  মাঝে  সনদ বিতরন করা হবে এবং এ  উপলক্ষে জাটিয়া চক্ষু শিবির/৮৯ইং এর একটি   আলোচনা সভা,ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান করতে হবে। যথারীতি অনুষ্ঠান করা হলো।  উক্ত   অনুষ্টানে সভাপতিত্ব করছিলেন চক্ষু  শিবির কমিটির সভাপতি জনাব রইছ উদ্দিন  আহমেদ সাহেব  এবং  আমার স্বাগত বক্তব্যের পাশাপাশি চক্ষু শিবিরের সার্বিক সফলতায় এলাকাবাসীর ঐক্যবদ্ব প্রচেষ্টা ও ভবিষ্যত উন্নয়ন পরিকল্পনা  তুলে ধরার মাঝে  প্রধান অতিথি  ছিলেন জাটিয়া ইউনিয়ন তথা ঈশ্বরগন্জের কৃতি সন্তান  বিশিষ্ট আইনজীবী  আমার শ্রদ্ধেয় মুরুব্বি  জনাব এ এইচ এম খালেকুজ্জামান এডভোকেট ও সভাপতি রোটারি ক্লাব ময়মনসিংহ , বিশেষ  অতিথি হিসেবে  ছিলেন  স্হানীয় গণ্যমান্য  ব্যক্তিবর্গ এবং  মহাসমারোহে এক মনোমুগ্ধকর  পরিবেশে   সনদ বিতরন  ও সাংস্কৃতিক  অনুষ্ঠানের মাধ্যমে  সভার সমাপ্তি  ঘোষণা  করা  হয়েছিল।  

তৃতীয়ত:  আলহামদুলিল্লাহ। মহান আল্লাহর দরবারে  লাখো শুক্রিয়া পরিবারে পিতামাতার বড় সন্তান হিসেবে আমার  বাল্যকাল থেকে সামাজিক নানাবিধ প্রতিকুলতা অতিক্রম করে ব্যস্ততম  জীবনে আমার পড়ালেখার  পাশাপাশি  চলছিল অবহেলিত  নিজ গ্রামের  উন্নয়নে সমাজকর্ম। ইতিমধ্যে  এল-এল,বি ফাইনাল পরীক্ষা ও এম এ-ইন এডুকেশনের  রেজাল্ট দটোই  সফল হলো।  আমার গ্রামের ৮০% জনসংখ্যা  ছিলো  নিরক্ষর ও অতি  দরিদ্র।  এটি  আমার জীবনের ছোটকাল থেকে  ভীষণ পীড়াদায়ক একটি বিষয়  ছিল।  মাঝে মধ্যে নানার বাড়ি  বেড়াতে গেলে  আশে পাশে  অনেকে বলতে দ্বিধা  করতো না যে আব্বাজি শিক্ষিত না হলে নানা নাকি আম্মাকে বিয়েই দিতে রাজীই ছিলেন না। আমার  দাদা গ্রামের মধ্যে ধর্মপরায়ণ ও প্রভাবশালী  ব্যক্তি ছিলেন বলে হয়তোবা নানা মাকে বিয়েটি দিতে বাধ্য হয়েছিলেন। যাক্ প্রমিজ করলাম আমার গ্রামের শিক্ষার হার শতভাগে উন্নীত করে একটি  আদর্শ  স্বনির্ভর গ্রাম  হিসেবে  জাতির সামনে তুলে ধরবো।  ইনশাআল্লাহ আজ ২০২১ সন আমার পিতামাতা, ফুফু মা,চাচাতো এক বড় ভাই,  নানাজান ও অলি আওলিয়াগন সহ এলাকাবাসীর দোয়া ও সহযোগিতায় প্রায় এই ৩৫/৩৭ বছরে আমার সেই  অবহেলিত  গ্রামের স্নপ্ন বাস্তবায়নকল্পে সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়১টি, পিতার নামকরনে  স্নাতক ডিগ্রি পর্যায়ের ফাজিল  মাদ্রাসা ১টি,বিএম কোর্স সহ কারিগরি  কলেজ ১টি, মহিলা  কলেজ  ১টি, মেডিকেল  ইনস্টিটিউট ১টি ও নির্মানাধীন দোতলা মসজিদ ১টি,মক্তব ১টি, ইত্যাদি  প্রতিষ্টান সমুহ সুপরিচালনার মাধ্যমে  নিরক্ষরতা হার  বর্তমানে প্রায় শতভাগ  পূরনের  পথে

চতুর্থত: আমার জীবনে ধৈর্য,  সংগ্রাম, দুঃখ, বেদনা , ত্যাগ,ও শতব্যর্থতার মাঝে অনেক সফলতার জন্য  মহান রাব্বুল আলামিনের প্রেরীত রাসুল, ত্রিভুবনের প্রিয় নবী, সারোয়ারে কায়েনাত ও সর্দারে আলম, আবুল কাশেম হযরত  মুহাম্মদ মোস্তফা (সাঃ) এর একজন  অধম উম্মত হিসেবে তাঁর প্রতি অযুত কোটি সালাম ও কৃতজ্ঞতা জানাই।  পাশাপাশি  আমার জীবনে সবচেয়ে সুখের বিষয় হলো,  আমার মা মনি আয়েশা আকতার খাতুন নিসন্দেহে একজন  আল্লাহর অলির মেয়ে এবং বর্তমান সময়ের একজন আবেদা মহিলা বটে।  অপরদিকে , আমার দৃষ্টিতে যদিও পৃথিবীতে  সব পিতাই মহান সৃষ্টিকর্তা  আল্লাহ রাব্বুল আলামীনের দয়ায় সব সন্তানের জন্য এক মহা নিয়ামক বটে । তবে   আমার পিতা শেখ মোহাম্মদ  মিযা হোসেন মাস্টার জীবদ্দশায় তাকে  যতটুকু দেখতে  পেরেছি তাতে তিনি  নিজেকে প্রমান করে গিয়েছেন যে, সাধারণ  শিক্ষায় শিক্ষিত গ্রাজুয়েট  হলেও  তিনি  ছিলেন একজন অসামান্য  জ্ঞানের অধিকারী ইসলামি  চিন্তাবিদ্ , ন্যায়পরায়ন  তৌহিদীবাদের  উজ্জ্বল  প্রতিভার অধিকারী ও সৎ  মানুষ। যিনি  তার অগনিত  ছাত্রছাত্রী ও গুনীজনসহ এলাকাবাসীর দ্বারা "আমানতদার মাস্টার" নামেই খ্যাতি অর্জন করে  গিয়েছেন।তাছাড়া,ইসলামী জ্ঞানে  তাঁর  যতটুকু অর্জন ছিল  আমরা পাঁচ ভাই  দুই  বোনেরা  সকল আত্মীয়  স্বজনের যোগফল দ্বারাও  হয়তো তার  শতভাগের একভাগও  অর্জন করতে পারিনি।বিশেষকরে তিনি  ওয়াক্তের নামাজের মধ্যে প্রতিদিন ফজরের নামাজ বাদ পবিত্র কোরআন পাক থেকে মুখস্থ করা, ছুরা ইয়াছিন বিরতিহীনভাবে নিয়মিত পাঠ করতেন এবং  অন্যান্য সকল নফল এবাদত সমুহ আদায় করেই অনেক বিলম্বে মসজিদ থেকে  বের হতেন।  এভাবেই তিনি দিনের কাজের শুরুটি করতেন। সুতরাং  পিতা মাতা দু'দিক থেকেই  আমরা  সব ভাইবোন গর্বিত  তাতে কোন  সন্দেহ  নেই। তবে আমার এই  ব্যস্ততম কর্ম জীবনে  আজও সামান্য পড়ালেখার একজন  শিক্ষার্থী হিসেবে পিতামাতার  মূল্যায়ন  আমার  পক্ষে  কোনমতেই সম্ভব হবে  না।  তবে  এতটুকুই  বলতে পারি যে, প্রায় সাত ( ৭)বছর  হলো আমার পরম  শ্রদ্ধাভাজন পিতাকে হারালেও  তিনি  যেন মহাকাশের  উজ্জ্বল এক  ধ্রুব তারা হয়ে   চেয়ে রয়েছেন।হয়তো, যখন আমরা ভালো কাজ করি তখন  তিনি খুশী হন,আর যখন আমরা খারাপ  কাজে লিপ্ত হই তখন তিনি  কাঁদেন। সুতরাং  পিতা মাতা হারানো সব সন্তানদের আজীবনেই প্রতিদিন শতবার এ কামনাই করতে হবে যে," হে রাব্বুল আলামীন তুমি  আমাদের পিতা-মাতাকে সেভাবেই হেফাজত করো যেভাবে তাঁরা আমাদেরকে  শিশুকালে হেফাজত তথা লালন পালন করে গিয়েছেন"। আমিন।  

পঞ্চমতঃ যাক মোজাম্মেলের স্মৃতি চারণ করতে যেয়ে আমার কথা গুলো ও চলে  আসবে তাই স্বাভাবিক। এবার মোজাম্মেলের চক্ষু ডাক্তার  হওয়ার গল্পের  কিছু কথা।তখন সে সবে বয়োলজি নিয়ে বিএসসি  পাশ করা একজন তরুণ  এবং ভাতিজা বলে, আমার খুবই  হিতাকাঙ্ক্ষী। চক্ষু শিবির শেষ  হওয়ার  কয়েকদিন  পর এসে  বললো কাকা আমি আপনার দেওয়া অভিজ্ঞতাটিকে স্বরনীয় রেখে  কাজে লাগাতে চাই।  চক্ষু শিবিরে আসা ডাক্তার সাহেবের সাথে আমার  কথা হয়েছে।  তাই চক্ষু  বিষয়ে বিশেষ  প্রশিক্ষন নিয়ে এটাকে আমি  সেবামূলক পেশারূপে গ্রহণ করতে  চাই। আমি খুব  আনন্দিত হয়ে বললাম, তুমি  যেহেতু  বায়োলজি নিয়ে   পড়াশুনা করেছো সেহেতু  তোমার সিদ্ধান্তে আমি একমত।                                          

ষষ্ঠতম: এদিকে ১৯৯০ সনের প্রথমার্ধে উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের তফসিল প্রকাশ হলো।  আমিও নিজেকে অন্য সকল প্রার্থীগনের মধ্যে সর্বকনিষ্ঠ একজন  প্রার্থী   ঘোষণা করলাম।  সারা উপজেলায়  নাম শুনে শোরগোল। সাবেক  সফল এম পি জয়নাল  আবদিন জায়েদী সাহেব  আমি তার  স্নেহভাজন কর্মী ছিলেম বলে ডেকে  বললেন  সৈরাচার বিরোধী আন্দোলনের   সাইরেন বাজার  সংকেত আসছে, নির্বাচনের পরিবেশ  আমাদের  প্রতিকূলে। তুমি  নির্বাচন করতে চাও, যাক্ অন্তত  পরিচিতিটা হয়ে যাবে। পরে এডভোকেটশীপ হয়ে গেলে আমাদের  দল বিএনপির  জন্য শক্তিশালী  ভুমিকা  রাখা সম্ভব হবে। নির্বাচনের খবর পেয়ে মোজাম্মেল দৌড়িয়ে আসলো।   যদিও  তার বাবা মোমতাজ উদ্দিন  মেম্বার সাহেব  সারাজীবন  আওয়ামীলীগের লোক। তবু্  বেলাল  কাকাও বাবার যথেষ্ট  স্নেহের পাত্র,তাই নির্বাচনে  বাধা দেয়  কে?অতঃপর মোজাম্মেল খুবই আন্তরিকতার সঙ্গে  নির্বাচন   পরিচালনার দায়িত্ব নিয়ে  একমাস আমার সাথে কঠোর  পরিশ্রম করে দিলো। নির্বাচনে ফেল করে  বার কাউন্সিলে সনদের জ্ন্য  পড়ালেখায় মনোযোগী হলাম।  মোজাম্মেলও তার কাজে  সে চিটাগাং একটা  ইন্সটিটিউট থেকে  চক্ষু চিকিৎসা বিষয়ে  কারিগরি প্রশিক্ষণ কোস' সম্পন্ন করতে চলে গেল।   মাঝে  মধ্যে উভয়েই আমরা একে অপরের   খোঁজ নেই।                                    

সপ্তমত: আলহামদুলিল্লাহ একদিন  সে জানালো, কাকা আপনি ব্যস্ত থাকেন।  বাবা-মা সবার পছন্দমতো বিয়ে করতে  হলো। ভালোই হলো , বিয়ে করে সে ময়মনসিংহ শহরে  বাসা নিয়ে  ঈশ্বরগন্জ বাজারে চেম্বার নিয়েছে।   প্রাইভেট প্র্যাকটিস  আরম্ভ  করেছে। অক্টোবর মাসের দিকেই  শুরু  হয়ে  গেলো এরশাদ  বিরোধী আন্দোলন। সুযোগ পাইলেই আমি ঢাকার রাজপথে। পতন হলো সৈরাচারী সরকারের।  চাচা ব্যারিস্টার  গোলাম  নবী  ১৯৭৩ সন জাসদের  প্রার্থী   হিসেবে  ভোট ষড়যন্ত্রের  শিকারে পরাজয়ের বেদনা  নিয়ে  লন্ডনে চলে যান।এবার  বিএনপির  মহাসচিব  জনাব আবদুস  সালাম  তালুকদারের সহপাঠী হওয়ার  সুবাদে এবং  উনার আহবানে বা এলাকার স্বার্থে ১৯৯১ এর নির্বাচনে বিএনপি র প্রার্থী  মনোনীত  হন।সানন্দের সংগ আমি একজন  তরুণ শিক্ষা নবীশ আইনজীবী  হিসেবে ব্যারিস্টার চাচার  উক্ত নির্বাচন পরিচালনায় অন্যতম  মুল ভুমিকায় দায়িত্ব পালন  করি।  কিন্তু সারা দেশে    বিএনপির  জয় হলেও দলীয় আভ্যন্তরীণ কোন্দলের কারনে সামান্য  ভোটের ব্যবধানে আমাদের  আসনে  হেরে গেলাম। এভাবে  নির্বাচনের এক মাসের মধ্যেই ব্যারিস্টার  চাচার  উপস্থিতিতে থানা বিএনপি র অনুষ্টিত কাউন্সিলে আমাকে  সিনিয়র যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক  করা হয় । অপর  দিকে সৈরাচার বিরোধী আন্দোলনের আপোষহীন  দেশনেত্রী বেগম  খালেদা জিয়ার  নেতৃত্বে বিএনপির  সরকার  গঠিত হলো। আমি  দলীয় দায়িত্ব গ্রহণের পাশাপাশি  বার কাউন্সিললের এডভোকেটশীপ রিটেন ভাইবা পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়ে ১০-০৫-১৯৯২ইং থেকে ঈশ্বরগন্জ আইনজীবী সমিতি এবং ময়মনসিংহ জেলা আইনজীবি সমিতির সদস্য হিসাবে  আইন  পেশায়  যোগদান করি। অতঃপর  ১৯৯৪ইং সনে মাননীয় মন্ত্রী  ও বিএনপির মহাসচিব  ব্যারিস্টার  আব্দুস  সালাম  তালুকদার  এর উপস্থিতিতে অনুষ্টিত কাউন্সিলে আমাকে বিএনপি ময়মনসিংহ  উত্তর  জেলা   শাখার  আইন  বিষয়ক  সম্পাদক  এর দায়িত্বে নির্বাচিত করা হয়।

অষ্টমত: যাহোক, প্রিয় ভাতিজা মোজাম্মেলের চির বিদায়ের সময় তার স্মৃতিচারণ করতে  গিয়ে  জীবনে এই গুরুত্বপূর্ণ  সময়ের কথাগুলো  চলে  আসলো।মোজাম্মেল এর সাথে  আর একটি  স্বরনীয় বিষয়, আমি যখন  ১৯৯৩-৯৪ এর পেশাগত কাজের সাথে  সাথে আমি সভাপতি, ডাঃ মোজাম্মেল  সহ সভাপতি এবং এ্যাড: মজিবুর রহমান কে সাধারণ  সম্পাদক  করে বাংলাদেশের  মানবাধিকার কমিশন ঈশ্বরগন্জ উপজেলার শাখার কর্মকর্তা হিসেবে সামাজিক যেসকল  দায়িত্ব  আমরা পালন  করি তাতে   ডাঃ মোজাম্মেল এর ভুমিকা  ছিল অত্যন্ত  গুরুত্বপূর্ণ।  সেজন্য আমরা সকলেই  তার  অমায়িক আচরন ও ব্যবহারে চিরকৃতজ্ঞ থাকব।  পরিশেষে, মহান আল্লাহ রাব্বুল  আলামীনের  দরবারে  তার  বিদেহী  আত্মার মাগফিরাত কামনা  করি এবং দোয়া করি প্রিয় নবী  হযরত মুহাম্মাদ(দঃ) এর উম্মত  হিসেবে  আল্লাহ যেন তাকে  জান্নাতুল  ফেরদৌস নসিব করেন এবং সাথে তার  অবর্তমানে পরিবারের  শোকসন্তপ্ত   সদস্যদের মানষিক  সুস্থতা ও চির  কল্যান  দান করেন। আমিন।  ড.আওরঙ্গজেব বেলাল, এ্যাডঃ বাংলাদেশ  সুপ্রিম কোর্ট, ঢাকা।

প্রোসিডিয়াম সদস্য  লিবারেল  ডেমোক্রেটিক  পার্টি(এলডিপি)
ads
ads

করোনা পরিস্থিতি বাংলাদেশ

২৪ ঘণ্টায় মোট
পরীক্ষা ৫২৪৭৮ ৭৬১২৫৮৮
আক্রান্ত ৯,৩৬৯ ১,২৪৯,৪৮৪
সুস্থ ১৪,০১৭ ১,০৭৮,২১২
মৃত ২১৮ ২০,৬৮৫

Our Facebook Page