ঢাকা, রবিবার, ১৭ অক্টোবর, ২০২১

কোন দিকে যাচ্ছে সাংবাদিকতা ?

                                                                                                                                     সাংবাদিকতার বিড়ম্বনা-২  

সাংবাদিকতা একটি মহান পেশা,একটি আদর্শ রাষ্ট্রের চতুর্থ স্তম্ভ ৷ সাংবাদিকতার সেই  গৌরবোজ্জ্বল অতীত  কি এখন আছে ? সাংবাদিকতা হল জনগনের সান্নিধ্যে  যাওয়ার একটি মাধ্যম,জনগনের সাথে স্থানীয়,জাতীয় ও আন্তর্জাতিক অঙ্গনের যোগাযোগের সেতুবন্ধনের  একটি মাধ্যমই সাংবাদিকতা,কালের আবর্তে ও ডিজিটালের ছোয়ায় সাংবাদিকতার সেই আভিজাত্য,জৌলুস এখন মলিন প্রায় ৷ সাংবাদিকতার মুখোশ পরে অপ-সাংবাদিক গুলো জনগন থেকে সাংবাদিক দের বিতাড়িত করার মিশন নিয়েই যেন মাঠে নেমেছে ৷ তারা চাই জনগনের কাছে সাংবাদিক পেশাটাকে বিতর্কিত করতে ৷ বাংলাদেশে কেন পৃথীবিতে ভুয়া সাংবাদিক আছে বলে আমি অন্তত বিশ্বাস করিনা,সাংবাদিক ভুয়া হতে পারেনা,ভুয়া হলে সেই হবে যার স্বাক্ষরে কেউ সাংবাদিক পরিচয় দেবার সুযোগ পাই,আমরা প্রায়ই বিভিন্ন পত্রিকা ও অনলাইন নিউজের কল্যানে বিভিন্ন ভুয়া সম্পাদকের কীর্তি দেখি,পত্রিকা প্রকাশনার যে শর্তগুলো থাকে তার মধ্যে অন্যতম প্রধান শর্ত হল সম্পাদকের শিক্ষাগত যোগ্যতা,অনেক ক্ষেত্রেই চোখে পড়ে,অবৈধ্য কালো টাকার জোরে অশিক্ষিত- মুর্খ্য,ভুমিদস্যু,বাড়ী জবর দখলকারী,চাঁদাবাজ,মাদক ব্যাবসায়ী,সন্ত্রাসীদের লালন পালনকারী কারী হিসেবে নিজের অধিপত্য বজায় রাখতে,ভুয়া শিক্ষা সনদের মাধ্যমে যে কেউ রাতারাতি সম্পাদক বনে যাচ্ছেন ৷ একাধিক পত্রিকায় এমন পত্রিকার সম্পাদকদের বিরুদ্বে সংবাদ প্রকাশিত হলেও তারা থেকে যাই ধরা ছোয়ার বাইরে,তাহলে কি এদের হাত অনেক লম্বা ? 

এই সকল সম্পাদকদের সাংবাদিক নির্বাচনে থাকে ভিন্নতা,তাদের পছন্দের তালিকায় থাকে থানার সোর্স,মাদক কারবারী,চাঁদাবাজ-ফাপরবাজ,সবজি বিক্রেতা,হকার পাম্পের কর্মচারী এবং চায়ের দোকানী ও ৷ 

সম্পাদক ও সাংবাদিক দের সাথে পাল্লা দিয়ে গড়ে উঠেছে নাম না জানা শত সাংবাদিক সংগঠন ৷ বেশীর ভাগ সংগঠনই নিজেদের আখের গোছাতে ব্যস্ত থাকলেও কিছু কিছু সাংবাদিক সংগঠন কে ইদানীং লক্ষ্য করা যাচ্ছে তারা সাংবাদিকদের নিরাপত্তা ও স্বার্থ সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন বিষয়ে  কথা বলছেন,এটা নিঃসন্দেহে ভাল লক্ষন ৷ আবার বিভিন্ন সংগঠনে দেখা যায় অপ-সাংবাদিকদের মিলন মেলা,নাম না প্রকাশ করে শর্তে তথাকথিত সাংবাদিক সংগঠনের একজন সাংবাদিক নেতা বলেন,অপ-সাংবাদিক গুলো সংগঠনের অনেক কাজে লাগে,তাদের যেহেতু কোন কাজ থাকেনা তাই ডাকলেই পাওয়া যায়,মানব বন্ধন ও মতবিনিময় সভাতে তাদের উপস্থিতি নাকি দ্যুতি ছড়ায় ৷ কিছু কিছু সাংবাদিক সংগঠনে তো অপ-সাংবাদিক গুলোই নেতৃত্বে আছে ৷ কোন সাংবাদিক সংগঠন কি অসহায়,বিপদ গ্রস্থ,সাংবাদিকের পাশে দাড়িয়েছে ? প্রথম আলোর রোজিনা ইসলাম সহ দুই একজনের বিষয়টি নিঃসন্দেহে ভিন্নতায় ভরপুর ৷ 


ত্রান সাংবাদিকতা-


আজ যদি সাংবাদিক সংগঠন গুলো মহামারী করোনা কালীন দুর্যোগে অসহায়, অভাব গ্রস্থ সাংবাদিক দের প্রতি সহযোগীতার হাত বাড়াতো তাহলে হয়তো ত্রান সাংবাদিকতার জন্ম হতোনা বা দেখতে হতোনা,ছি ছি ছি আপনার/আপনাদের কি বিবেক বলে কিছু নেই ? গত ইং ১৭/০৭/২১ তারিখে মিরপুর এমডিসি মডেল ইনষ্টিটিউটে জে,এ,এন এসোসিয়েটের ত্রান বিতরন অনুষ্ঠানে এবং ২০/০৭/২১ ইং তারিখে মিরপুর আইডিয়াল স্কুলের মাঠে স্থানীয় ওয়ার্ড কাউন্সিলরের ত্রান বিতরন অনুষ্ঠানে আপনারা সাংবাদিক পরিচয় দিয়ে যেভাবে কাজের বিনিময়ে খাদ্য কর্মসুচী পালন করিলেন তাহাতে ত্রান প্রত্যাশী সাধারন মানুষ ও সমাজের শিক্ষিত সচেতন সমাজ ধিক্কার ও লজ্জা প্রকাশ করেছেন ৷ আপনি সাংবাদিক পরিচয় দিলেন আবার নিউজের বিনিময়ে ত্রান নিলেন,কিভাবে পারলেন গরীবের হক মেরে খেতে,গরীবের প্রাপ্য হক ২/১ ব্যাগ ত্রানের বস্তার লোভ আপনি নিবারন করতে পারলেন না,আপনার কাছ থেকে এই জাতি কি আশা করতে পারে,বলতে পারেন ? আপনি সামান্য স্বার্থের মোহে পড়ে সাংবাদিকতা কে বিক্রি করে দিলেন ত্রানের বস্তার বিনিময়ে,ধিক্কার জানাই ঐ সকল নামধারী সাংবাদিক দের ৷ আপনি সাংবাদিকতা করুন লেখনী বা মুল তথ্য -উপাত্ত তুলে ধরার মাধ্যমে ৷


অনলাইন গনমাধ্যম-


"একটি বাড়ী একটি খামার" শ্লোগান টির সাথে আমরা সবাই কম-বেশী পরিচিত ৷  সেদিন হয়তো বেশী দুরে নয় আমরা না দেখলেও ভবিষ্যৎ প্রজন্ম হয়তো দেখবে একটি বাড়ী একটি খামার এর মত করে প্রতিটি বাড়ীতে একজন সাংবাদিক না থাকলেও একজন সম্পাদক কে পাওয়া যাবে, অনলাইন গনমাধ্যম ও সাংবাদিকতার আড়ালে একশ্রেনীর অশিক্ষিত-মুর্খ্য,নিরক্ষর ও জ্ঞ্যানহীন,অতিরন্জিত চাঁপাবাজ যারা সর্বদা ধান্দাবাজীতে ব্যস্ত এই শ্রেনীর লোকগুলো  প্রযুক্তির সহজ লভ্যতা এবং সহজে ব্যবহার যোগ্য হওয়ায় নামে বেনামে রেজিঃবিহীন অনলাইন পোর্টালের জন্ম দিচ্ছে অহরহ ৷ সংশ্লিষ্ট মন্ত্রনালয় কোথাও নাম ঠিকানা পাবেন কিনা সন্দেহ,তারাও কিন্তু আজ সম্পাদকের তকমা লাগিয়ে জন্ম দিচ্ছে হাজার হাজার অপ-সাংবাদিকের ৷

এবিষয়ে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একজন অনলাইনের স্বনামধন্য সম্পাদক বলেন,আমি আবেদন করেছি,অফিসে খবর নিয়ে দেখা যায় তার নাম সম্পাদকের তালিকায়  নাই অথচ তার ভিজিটিং কার্ডে সম্পাদক পরিচয় দেওয়া ৷

প্রশ্ন হচ্ছে, এসব ভূঁইফোড় পোর্টালের গ্রহণযোগ্যতা কতোটুকু ? এটা লাখ টাকার প্রশ্ন বটে ! তার পাশাপাশি আরেকটি প্রশ্নও স্বাভাবিকভাবেই উঠে আসে, তথাকথিত ‘খ্যাতিমান' পোর্টালগুলো কি দায়িত্বশীলতার পরিচয় দিচ্ছে ?


ইউটিউব চ্যানেল ও তার সাংবাদিক ৷


ইউটিউব চ্যানেল সম্পর্কে দুই একটি কথা না বললেই নয় ৷ আপনি তো শিক্ষিত সচেতন হিসেবে  দাবীদার,আপনিই বলুন,ডিজিটাল যুগে ইউটিউব,লাইকি,টিকটক সহ অনেক কিছুই আমরা দেখতে পাই,,অনেক স্কুল ও কলেজের ছাত্র-ছাত্রী কে দেখেছি,তার যেটা ভাল লাগে সেটা হতে পারে গেম,কম্পিউটার বিষয়ক,ব্লগ বা অন্যকিছু ৷ তারাও তাদের থিম অনুযায়ী একটি সুন্দর নাম দিয়েছে চ্যানেলটির ৷ কই তাদের কখনো কোথাও দেখিনি সেই চ্যানেলের পরিচয় দিতে ৷ কখনো তো তারা দাবী করেনি, আমি সাংবাদিক বা অমুক চ্যানেলের চেয়ারম্যান তাহলে আপনিই বা কেন একটি মোবাইল বা ক্যামেরা ও বুম নিয়ে নিজেকে ডিজিটালের দোহাই দিয়ে সেই তথাকথিত চ্যানেলের চেয়ারম্যান বা সাংবাদিক পরিচয় দিচ্ছেন ৷


এ লজ্জা কার ?


তথাকথিত সম্পাদক নামধারী অশিক্ষিত চাঁদাবাজ,ভুমি দস্যু,বাড়ী জবর দখলকারী ব্যাক্তিগুলো যখন শুরুতেই দুর্নীতির বীজ বুনে সার্টিফিকেট জালিয়াতির মাধ্যমে একটি জাতীয় দৈনিক বা সাপ্তাহিক অথবা অনলাইন পোর্টালের সম্পাদক বনে যায় তখন সে ধরাকে সরা জ্ঞ্যান করে ফেলে,তার হাত দিয়েই উঠে আসে সমাজের মন্দ স্বভাবের মানুষগুলো,এরমধ্যে থানার সোর্স,সবজী ব্যাবসায়ী,ফুটপথের হকার,পানের দোকানদার,চা বিক্রেতা,মাদক ব্যাবসায়ী,পাম্পের কর্মচারীরা হয়ে যাই কার্ডধারী সাংবাদিক ৷ এরা অবশ্য লিখতে না জানলেও মুছতে পারে,একজন কলম সৈনিকের চলার পথের অন্তরায় হলো এই কার্ডধারী অপ-সাংবাদিক গুলো ৷

এই ঈদুল আযহার আগের দিন সন্ধ্যার ঘটনা, মিরপুরের বিতর্কিত একটি পত্রিকার সাংবাদিক পরিচয় দানকারী গাবতলীতে একজন মা তার শিশু সন্তান কে বুকের দুধ খাওয়াচ্ছিলেন,ঐ সাংবাদিক নামধারী ব্যাক্তি সেটা আবার মোবাইলে ভিডিও ধারন করেন,পরে সাধারন জনগনের রোষানলে পড়ে হালকা উত্তম মাধ্যম দিয়ে,সালিশির মাধ্যমে মুচলেকা দিয়ে এ যাত্রায় রক্ষা পান ৷ 

করোনা মহামারীর এই ঈদে সাধারন জনগনের যখন নাভিশ্বাস,ছোট ছোট ক্ষুদ্র ব্যাবসায়ীগুলো যখন হিমশিম খাচ্ছে, তখন এই কার্ডধারী অপ-সাংবাদিক গুলো,ঈদের শুভেচ্ছা বিনিময়ের নামে ৫০০-১০০০ টাকার জন্য চষে বেড়াচ্ছে সারা ঢাকা শহরের অলিগলি ৷

সাংবাদিকতার এই দৈন্যতা ঘুচাতে,মুল ধারার বিভিন্ন সাংবাদিক সংগঠন,সিনিয়র সাংবাদিক বৃন্দ,সরকারের সংশ্লিষ্ট কতৃপক্ষের হস্তক্ষেপ কামনা করছি ৷

কলম যোদ্ধারা স্বোচ্ছার হোন,অপ-সাংবাদিকতা থেকে মুক্তি এখন সময়ের দাবী ৷

লেখক-

মোঃ মনিরুজ্জামান মনি

গনমাধ্যম কর্মী ৷


                                                                                                                 



ads
ads

করোনা পরিস্থিতি বাংলাদেশ

২৪ ঘণ্টায় মোট
পরীক্ষা ৩১৭১৪ ৮০৭৫৪০৭
আক্রান্ত ৬৯৫৯ ১৫,৫০,৩৭১
সুস্থ ৯২৬৮ ১৫,১০,১৬৭
মৃত ১৭৪ ২৭,৩৯৩

Our Facebook Page